শিরোনাম
প্রকাশ : ২৭ জুলাই, ২০২১ ১৮:৪৪
আপডেট : ২৭ জুলাই, ২০২১ ১৮:৫৮
প্রিন্ট করুন printer

নোয়াখালীতে অক্সিজেনের অভাবে করোনা রোগীর মৃত্যুর অভিযোগে ভাঙচুর

নোয়াখালী প্রতিনিধি

নোয়াখালীতে অক্সিজেনের অভাবে করোনা রোগীর মৃত্যুর অভিযোগে ভাঙচুর
Google News

নোয়াখালীতে অক্সিজেনের অভাবে রোগীর মৃত্যুর অভিযোগে ভাঙচুর চালিয়েছে নিহতের স্বজনেরা। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে নোয়াখালীর ১২০ শয্যা কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে। নিহত সাজেদা আক্তার (৪২) সদর উপজেলার ৪নং কাদির হানিফ ইউনিয়নের কৃষ্ণরামপুর গ্রামের নুর মো. সুজনের স্ত্রী। নিহতের পরিবারের অভিযোগ, অক্সিজেনের অভাবে রোগী মারা যায়।

নোয়াখালী ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা. হেলাল উদ্দিন জানান, বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করা হয়েছে। তবে রোগীর মৃত্যুর পেছনে অক্সিজেনের অভাব দায়ী ছিল না বলে দাবি করেন তিনি।

কোভিড হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, গত ১৩ জুলাই ওই নারী করোনা পজেটিভ হয়ে শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা নিয়ে কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালে ভর্তি হয়। এক পর্যায়ে মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

কোভিড হাসপাতালের সমন্বয়ক ডা. নিরূপম দাস রোগীর স্বজনদের অভিযোগ নাকচ করে দিয়ে বলেন, অক্সিজেনের কোনো অভাব ছিল না। যদি অক্সিজেনের অভাব থাকতো তাহলে আরও ২৮ জন রোগীর কিছু হলো না কেন? নিহতের স্বজনেরা কেন এমন করলো তা বোধগম্য নয়। তারা আইসিইউতে থাকা ভেন্টিলেটর মেশিন ভাঙচুর করে। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

তিনি বলেন, আইসিইউ মেশিন ভাঙচুরের কারণে করোনা রোগীদের চিকিৎসা ব্যাহত হয়েছে। পরে নতুন করে ভেন্টিলেটর ইনস্টল করা হয়েছে।

সুধারাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাহেদ উদ্দিন জানান, করোনা হাসপাতালে এক নারীর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। তবে পুলিশ যাওয়ার আগে হাসপাতালে ভাঙচুরকারীরা লাশ নিয়ে পালিয়ে যায়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ অভিযোগ দিলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নোয়াখালী ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. হেলাল উদ্দিন জানান, বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করা হয়েছে। রোগীর মৃত্যুর জন্য অক্সিজেনের অভাব দায়ী ছিল না। আগে থেকেই ওই রোগীর অবস্থা খারাপ ছিল।


বিডি প্রতিদিন/ফারজানা 

এই বিভাগের আরও খবর