১২ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০৩:৫৮

বন্যার কারণে কালিয়াকৈরে স্কুলের পাঠদান অনিশ্চিত

গাজীপুর প্রতিনিধি:

বন্যার কারণে কালিয়াকৈরে স্কুলের পাঠদান অনিশ্চিত

করোনা পরিস্থিতির কারণে প্রায় ১৮ মাস বন্ধ থাকার পর রবিবার হতে খোলা হচ্ছে দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। তবে করোনার পর এবার বন্যা পরিস্থিতির কারণে গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার ২০টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পাঠদান শুরু হওয়ার কার্যক্রম অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। এসব বিদ্যালয়ে বন্যার পানি ওঠায় এ সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। 

জানা গেছে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে সরকারের ঘোষণায় শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মাঝে ফিরে এসেছে প্রাণ চাঞ্চল্য। দীর্ঘ প্রায় ১৮ মাস বন্ধ থাকার পর অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার প্রস্তুতি ইতিমধ্যে নিয়েছে। শ্রেণীকক্ষ, বেঞ্চ ও চেয়ার-টেবিলসহ আসবাবপত্র পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করে শিক্ষার্থীদের পাঠদানের জন্য প্রস্তুত করে তোলা হয়েছে। শিক্ষার্থীরাও স্বশরীরে স্কুলে উপস্থিত হয়ে পাঠদানে অংশ নিতে প্রস্তুতি নিয়েছে। ফলে বিদ্যালয় খোলাকে কেন্দ্র করে অধিকাংশ শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মাঝে আনন্দের বন্যা ইতিমধ্যে বইতে শুরু করেছে। শিক্ষার্থীদের ড্রেস তৈরিতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে জেলার টেইলার্সগুলোর কর্মীরা। কিন্তু বন্যা দুর্গত এলাকার শিক্ষার্থীদের মাঝে চাঞ্চল্যতা তেমনটা নেই। 

তবে গত কিছুদিন ধরে বন্যার পানি হঠাৎ বৃদ্ধি পাওয়ায় গাজীপুরের বিভিন্ন নদী ও বিলের পানি বৃদ্ধি পেয়ে নিম্নাঞ্চলগুলো প্লাবিত হয়েছে। বিভিন্ন এলাকার রাস্তা ঘাট, ঘরবাড়িসহ অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পানি উঠেছে। কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বন্যার পানি প্রবেশ না করলেও সেগুলোতে যাতায়াতের রাস্তাগুলোসহ বিদ্যালয়ের মাঠ কয়েক ফুট পানিতে তলিয়ে গেছে। ফলে পাঠদান শুরু হলে সেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের ঝুঁকি নিয়ে বিকল্প উপায়ে আসা যাওয়া করতে হবে। ফলে বন্যার পানি যেসব বিদ্যালয়ে প্রবেশ করেছে সেসব বিদ্যালয়ে পাঠদান শুরু হওয়ার বিষয়টি অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। ওই বিদ্যালয়গুলো নির্ধারিত ১২ সেপ্টেম্বর হতে পাঠদান শুরু করতে পারছে না।  

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. মোফাজ্জল হেসেন জানান, গাজীপুর জেলার মোট ৭৮১টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে কালিয়াকৈর উপজেলায় ১২২ প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। প্রাথমিক বিদ্যালয় ছাড়াও এ উপজেলায় ৫২টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ৮টি স্কুল এন্ড কলেজ, ৫টি কলেজ এবং ৮টি মাদ্রাসা রয়েছে। কালিয়াকৈরের বিভিন্ন এলাকা অপেক্ষাকৃত নিম্নাঞ্চল হওয়ায় এ উপজেলার শেওড়াতলী, সাদুল্যাপুর, চাপাইর, টেকিবাড়ি, উত্তর রাজাবাড়ি, চৌধুরীটেক, মুদিপাড়া, বাহাদুরপুর, কাঞ্চনপুর, বাঁশতলী, টালাবহ, কাঁঠালতলী, বাসুরা, ঢালজোড় বাসুরি, বাবাড়িয়া, দেওয়াইর ও কুন্দাকাটাসহ ২০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ইতিমধ্যে বন্যার পানি প্রবেশ করেছে। ফলে এসব বিদ্যালয়ে আপাতত রবিবার হতে পাঠদান কার্যক্রম চালু করা সম্ভব হচ্ছে না। সেগুলো কবে খোলা যাবে তা-ও এ মুহূর্তে বলা সম্ভব হচ্ছে না। তবে বন্যার পানি কমে গেলে রক্ষণাবেক্ষণ কাজ শেষে উপযুক্ত পরিবেশ তৈরী করেই সেসব বিদ্যালয়গুলো খুলে দিয়ে পাঠদান কার্যক্রম শুরু করা হবে। জেলার অন্য উপজেলা, সিটি কর্পোরেশন ও পৌরসভা এলাকাগুলোর প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে এ সমস্যা না থাকায় সেসবগুলো যথাসময়ে খোলা হবে। 

বিডি প্রতিদিন/এ মজুমদার 

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর