১৯ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০

বেনাপোল এক্সপ্রেস বন্ধ, ভোগান্তিতে যাত্রীরা

বকুল মাহবুব, বেনাপোল :

বেনাপোল এক্সপ্রেস বন্ধ, ভোগান্তিতে যাত্রীরা

ফাইল ছবি

করোনা দাপটে বেনাপোল-ঢাকাগামী আন্তঃনগর ট্রেনটি এখনো বন্ধ রয়েছে। সরকার সব ধরনের যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলেও অজ্ঞাত কারণে চালু হয়নি ‘বেনাপোল এক্সপ্রেস’। ফলে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে ভারত যাতায়াতকারী অসুস্থ যাত্রীদের।

বেনাপোল বন্দর দিয়ে প্রতিদিন ঢাকাসহ দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে ৫ থেকে ৬ হাজার পাসপোর্টধারী যাত্রী ভারতে যাতায়াত করে থাকেন। সড়ক পথের বেহাল দশা ও দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া রুটে ফেরিঘাটে যানজটের কারণে নানা ধরনের হয়রানির শিকার হতে হয় যাত্রীদের। বেনাপোল-ঢাকা রুটে একমাত্র ট্রেনটি চালু হওয়ার পর কিছুটা স্বস্তি মেলে তাদের। বেনাপোল ঢাকার মধ্যে স্বল্প সময়ে আরামদায়ক যাতায়াতের জন্য অল্পদিনেই জনপ্রিয় হয়ে উঠে বেনাপোল এক্সপ্রেস। 

এদিকে, করোনা ধকল কাটিয়ে উঠার পর চিকিৎসার জন্য ভারতমুখী হয়েছেন যাত্রীরা। বর্তমানে বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে প্রতিদিন ভারতে যাচ্ছেন এক হাজারেরও অধিক যাত্রী। দেশে ফিরছেন অনুরুপ সংখ্যক। জানা গেছে, যাত্রীদের ৯৫ শতাংশ অসুস্থ। ট্রেন না থাকায় এসব যাত্রীদের বাড়িতে ফিরতে অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। বেনাপোল থেকে ঢাকায় যেতে পরিবহনে সময় লাগে ১২-১৪ ঘণ্টা। সেখানে ট্রেনে নির্বিঘ্নে সাড়ে সাত ঘণ্টায় বেনাপোলে থেকে ঢাকায় পৌঁছানো যায়। সপ্তাহে একদিন বিরতি দিয়ে প্রতিদিন দুপুর ১টায় বেনাপোল এবং রাত সাড়ে ১০টায় কমলাপুর ছাড়ে বেনাপোল একপ্রেস।

এর আগে, দ্বিতীয় ঢেউয়ে ট্রেনের চলাচল পুনরায় বন্ধ করে দেওয়া হয়। এরপর দেশে অন্য সব জায়গায় আন্তঃনগর ট্রেন চালু হলেও এখনো বন্ধ রয়েছে ঢাকা থেকে বেনাপোলের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা একমাত্র ট্রেনটি। 

বেনাপোল কাস্টমস সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন জানান, বেনাপোলের স্থানীয় মানুষ ও ভারতে যাতায়াতকারী পাসপোর্টধারী যাত্রীদের সুবিধার্থে বেনাপোল-ঢাকা রুটে ‘বেনাপোল এক্সপ্রেস’ সার্ভিস চালু করা হয়। করোনায় বন্ধ থাকার পর সব কিছু চালু হলেও এটি চালু না হওয়ায় ভারত-বাংলাদেশ যাতায়াতকারী যাত্রীসহ সাধারণ যাত্রীরা ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। 

কি কারণে ট্রেনটি চালু হচ্ছে না সে সম্পর্কে জানতে চাইলে বেনাপোল স্টেশন মাস্টার মো. সাইদুজ্জামান বলেন, ‘কর্তৃপক্ষ এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি। এটা কবে আবার চালু করা হবে তা আমার জানা নেই।

বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক (পশ্চিম) মিহির কান্তি গুহ জানান, দীর্ঘদিন ফেলে রাখায় বেনাপোল এক্সপ্রেস আন্তঃনগর ট্রেনের বগি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বগি মেরামতের জন্য সৈয়দপুরের লোকোশেডে রাখা হয়েছে ট্রেনটি। খুব শিগগিরই এই ট্রেন চালু করা হবে।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ১৭ জুলাই গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বেনাপোল-ঢাকা রুটে আন্তঃনগর ‘বেনাপোল এক্সপ্রেস’ ট্রেনের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এতে সড়কপথে দুর্ভোগ থেকে রেহাই পান অনেক যাত্রী। ঢাকার সঙ্গে রেল যোগাযোগ চালু হওয়ায় বেনাপোল বন্দরে আমদানি-রপ্তানির কাজে নিয়োজিত ব্যবসায়ীদের যাতায়াতও সহজ হয়। পাশাপাশি পাসপোর্টধারী যাত্রীরাও যাতায়াতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন।

বিডি-প্রতিদিন/শফিক

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর