২৪ মে, ২০২২ ২২:২৮

প্রেমিকের সঙ্গে আবাসিক হোটেলে স্ত্রী, হাতেনাতে ধরলেন স্বামী

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী:

প্রেমিকের সঙ্গে আবাসিক হোটেলে স্ত্রী, হাতেনাতে ধরলেন স্বামী
রাজশাহীর সাহেব বাজার এলাকায় পরকীয়ার অভিযোগ এনে স্ত্রীর সঙ্গে প্রকাশ্যে মাঝ রাস্তায় টানাহেঁচড়া ও মারপিট করতে দেখা গেছে এক দম্পতিকে। মঙ্গলবার দুপুরে একটি আবাসিক হোটেলের সামনে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় এই নারীর কথিত প্রেমিককেও আটক করে সাধারণ জনগণ। প্রায় আধা ঘণ্টা ধরে চলা এই টানাহেঁচড়ার পর বোয়ালিয়া থানা পুলিশ তাদের তিনজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে যায়। 
 
ঢাকায় একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানে চাকরি করা মোকসেদ আলী (৩৫) জানান, তার স্ত্রী তাজিল মাহনাজ বিথী (৩৪) দীর্ঘদিন ধরে কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ বাহাদুরপুরের সারোয়ার করিম ছোটনের (৩৫) সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কে জড়িত আছেন। মোকসেদ ও বিথীর আড়াই বছরের দাম্পত্য জীবনে এখন কলহ ছাড়া কিছুই নেই। পুলিশের কাছে বিথী জানিয়েছেন তার বাড়ি মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার রঘুনন্দীগ্রামে। বাবার নাম জাবেদ আলী সরকার। তিনি রাজধানীতে একটি ফার্নিচারের শোরুমে কাজ করেন। অন্যদিকে সারোয়ার করিম ছোটনও রাজধানীর একটি ফার্নিচারের শোরুমে কাজ করেন। 
 
মোকসেদ আলী জানান, তার স্ত্রী যখন ফার্নিচার শোরুমে কাজ করতেন তখন থেকেই ছোটনের সঙ্গে তার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। বিভিন্ন সময় বান্ধবীর বাড়ি যাওয়ার কথা বলে প্রেমিকের সঙ্গে ঘুরে বেড়ায়। দুদিন আগেও রাজশাহীতে বান্ধবীর বাড়ি আসার নাম করে প্রেমিক ছোটনের সঙ্গে হোটেলে ওঠেন বিথী। বান্ধবীর বাড়ি গিয়ে একটি সেলফি তুলে স্বামীকে পাঠিয়ে জানান, তিনি বান্ধবীর বাড়িতেই আছেন। কিন্তু মোকসেদ আলীর সন্দেহ হয়। তিনি খুঁজতে খুঁজতে হোটেলে তাদের দুইজনকে হাতেনাতে ধরে ফেলেন। দুপুরে সড়কের মধ্যে প্রকাশ্যে এই তিনজনের মারামারি দেখে এগিয়ে আসে স্থানীয়রা। তারা তাদের নিবৃত করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়। পরে বোয়ালিয়া থানা পুলিশে খবর দিলে পুলিশ এসে তাদের নিয়ে যায়। 
 
থানায় বিথী জানান, মোকসেদ তার স্বামী। কিন্তু তিনি তার সঙ্গে থাকতে চান না। তিনি মোকসেদকে তালাক দিতে চান। 
 
বোয়ালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় কোনো পক্ষই থানায় মামলা বা অভিযোগ করেনি। এ কারণে অসামাজিক কাজে জড়িত থাকায় পুলিশ মামলা করে আদালতে সোপর্দ করেছে।
 
বিডি প্রতিদিন/এএম

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর