৭ জুলাই, ২০২২ ২১:০৪

সাতক্ষীরায় কোরবানির হাট কাঁপাচ্ছে ১৬ মণের মেসি

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি

সাতক্ষীরায় কোরবানির হাট কাঁপাচ্ছে ১৬ মণের মেসি

এক দিন পরেই কোরবানির ঈদ। এবারের ঈদে সাতক্ষীরার ১৫টি স্থায়ী হাট ও ১৯টি অস্থায়ী পশুর হাট বাহারি জাতের গরু ও ষাঁড়ের বিকিকিনিতে সরগরম হয়ে উঠেছে। সাতক্ষীরায় এবার কোরবানির হাট কাঁপাচ্ছে ১৬ মণ ওজনের ফ্রিজিয়ান জাতের একটি ষাঁড়। যার নাম মেসি। পশুটির মালিক সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার যুগিখালী গ্রামের রহিমা এগ্রো ফার্মের স্বত্বাধিকারী আলতাফ হোসেন। 

এবারের ঈদে তার দাম হাঁকানো হয়েছে ১০ লাখ টাকা। ইতোমধ্যে ৪ লাখ টাকা দামও বলেছেন অনেকে। কিন্তু কাঙ্ক্ষিত দাম না হওয়ায় পশুটি তিনি এখনো বিক্রির জন্য অপেক্ষা করছেন। হাতির মত আকৃতির পশুটি দেখতে প্রতিদিন তার ফার্মে প্রচুর মানুষ ভিড় করছেন। তার রহিমা এগ্রো ফার্মে দেশীসহ বিভিন্ন প্রজাতির আরও ২৬টি কোরবানির গরু রয়েছে। যার মধ্যে একটির সর্বনিম্ন দাম ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা হাঁকানো হয়েছে। গো-খাদ্যের দাম বৃদ্ধির কারণে এবার গরুর দামও একটু বেশি। 

কিন্তু বন্যার কারণে বাজারে এবার চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার থেকে ব্যাপারি না আসার কারণে চাহিদা কমে গেছে। ফলে শেষ মুহূর্তে বাজারে গরুর দাম একেবারেই কম বলছে ক্রেতারা। সাতক্ষীরার আবাদেরহাট, কলারোয়া, পাটকেলঘাটা, পারুলিয়াসহ বিভিন্ন ঐতিহ্যবাহী জেলার উল্লেখযোগ্য গরুর হাটে প্রচুর পরিমাণে কোরবানির পশু উঠেছে। ৫৫ থেকে ৮৫ হাজার টাকা মূল্যের মাঝারি ধরনের গরুর চাহিদা বাজারে একটু বেশি। 

তবে ক্রেতারা বাজার মূল্য কম বলায় বেচা-বিক্রি একেবারেই কম বলে জানিয়েছেন প্রান্তিক খামারিরা। সাতক্ষীরা প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের তথ্য মতে, জেলায় এবার কোরবানির জন্য ৬০ হাজার ৯০৭টি কোরবানির পশুর চাহিদা থাকলেও উৎবৃত্ত পশু রয়েছে ৪৭ হাজার ৯৮টি গরু ছাগল, ভেড়া, মহিষ ও ষাঁড়। যেটি জেলার চাহিদা মিটিয়ে অন্য জেলায় রফতানি হবে।

সাতক্ষীরা জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. এবিএম আব্দুর রউফ জানান, জেলায় ৯ হাজার ৯৩০টি খামারে ১ লাখ ৮ হাজার ৫টি গরু, ভেড়া, গাভী, মহিষ, ছাগল ও ষাঁড় উৎপাদন হয়েছে। যার আনুমানিক মূল্য ৪৪ কোটি ৭১ লাখ ১২ হাজার টাকা।

বিডি প্রতিদিন/আবু জাফর

এই রকম আরও টপিক

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর