২২ জুন, ২০২৪ ১৬:৫০

বিশ্বনাথে নামছে বন্যার পানি, ভেসে উঠছে ক্ষত

বিশ্বনাথ (সিলেট) প্রতিনিধি

বিশ্বনাথে নামছে বন্যার পানি, ভেসে উঠছে ক্ষত

ছবি- বাংলাদেশ প্রতিদিন।

সিলেটের বিশ্বনাথে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে। মেঘালয় থেকে নেমে আসা ঢল ও ভারি বৃষ্টির কারণে সৃষ্ট বন্যার পানি ধীরে ধীরে কমতে শুরু করেছে। পানি নামার সঙ্গে সঙ্গে ভেসে উঠছে ক্ষয়ক্ষতির চিত্র। 

স্রোতে ভেঙে গেছে প্লাবিত বিভিন্ন সড়ক। যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে অনেক এলাকা। এখনও পানির নিচে অনেক গ্রামীণ সড়ক। বন্যার পানিতে লন্ডভন্ড হয়েছে বীজতলা, ফসলের মাঠ, মাৎস্য খামার। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে অনেক বসতবাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থান নেয়া লোকজন ইতিমধ্যে বাড়িঘরে ফিরতে শুরু করেছেন।

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, পানি নামতে শুরু করায় স্বস্থি ফিরেছে বন্যা আক্রান্ত মানুষের মনে। তবে ধীর গতিতে পানি নামার বিষয়টি ভাবিয়ে তুলেছে অনেককে। ঘরবাড়ি থেকে পানি নামায় আশ্রয় কেন্দ্র ছেড়ে আপন নীড়ে ফিরেছেন কেউ কেউ। অধিকাংশ পরিবার দিনাতিপাত করছেন আশ্রয়কেন্দ্রেই। 

স্থানীয় বাসিন্দা ও জনপ্রতিনিধিরা জানান, পানি ধীরে ধীরে নামতে শুরু করেছে। নতুন করে কোন এলাকা প্লাবিত হয়নি। তবে, কিছু কিছু এলাকায় স্থির অবস্থায় রয়েছে বানের পানি। অপরিবর্তিত রয়েছে দৌলতপুর, দশঘর, দেওকলস, অলংকারি ও রামাপাশা ইউনিয়নের বন্যা পরিস্থিতি। উন্নতি হয়েছে বিশ্বনাথ সদর, লামাকাজি ও খাজাঞ্চী ইউনিয়নে।

বন্যায় বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে উপজেলার লামাকাজি ও খাজাঞ্চী ইউনিয়নের পথঘাট। পানির স্রোতে ভেঙে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে একাধিক সড়কে। পিচঢালাসহ কোথাও কোথাও নিশ্চিহ্ন হয়েছে সড়কের আংশিক। ক্ষতিগ্রস্ত সড়কের মধ্যে রয়েছে, লামাকাজি ইউনিয়নের লামাকাজি-পরগনা বাজার সড়ক, পরগরা পয়েন্টে, পরগনা-আকিলপুর সড়কের আতাপুর এলাকা ও রাজাপুর এলাকার মধ্যবর্তী সড়ক। 

অপরদিকে, খাজান্সি ইউনিয়নের রামপাশা-ভোলাগঞ্জ সড়ক, রাজাগঞ্জ বাজার-খাজান্সি স্টেশন সড়ক ও খাজান্সি-কামাল বাজার সড়ক। এসব সড়ক পথ একেবারে অনুপযোগী হয়ে পড়েছে যানচলালের।

এ বিষয়ে কথা হলে উপজেলা প্রকৌশলী আবু বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, বন্যায় উপজেলার ৮৫-৯০ কিলোমিটার সড়ক নিমজ্জিত হয়। এর মধ্যে একাধিক ব্রীজ কালভার্টও আছে। ভেসে ওঠা সড়কে যে পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি দেখা যাচ্ছে, সে অনুপাতে পানির নীচে থাকা সড়কগুলোর এ অবস্থা হলে, ক্ষয়ক্ষতি পরিমাাণ দাঁড়াবে আনুমানিক ৭০-৭৫ কোটি টাকার। ক্ষতিগ্রস্ত প্রত্যেক সড়কের ব্যাপারে আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।


বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ

এই রকম আরও টপিক

সর্বশেষ খবর