শিরোনাম
প্রকাশ : ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১১:০২

'টরন্টো স্টার যেনো তাই দেখালো'

শওগাত আলী সাগর

'টরন্টো স্টার যেনো তাই দেখালো'
শওগাত আলী সাগর

করোনাভাইরাস আক্রান্ত উহান থেকে কানাডিয়ান নাগরিকদের নিয়ে চার্টার্ড ফ্লাইটটির দিকে কেবল মিডিয়াই নয়- পুরো কানাডারই গভীর মনোযোগ ছিলো। টেলিভিশন, পত্রিকা, অনলাইন নিউজ পোর্টাল- সবাই নিজেদের মতো খবর পরিবেশন করেছে উহান থেকে কানাডার নাগরিকদের ফিরিয়ে আনা নিয়ে। সংবাদ পরিবেশনায় ব্যতিক্রমী দৃষ্টান্ত স্থাপন করলো টরন্টো স্টার।

আন্ডার কভার সাংবাদিকতায় খ্যাতি অর্জন করা টরন্টো স্টার সিদ্ধান্ত নিলো উহান বিমানবন্দর থেকে টরন্টোর ট্রেনটন পর্যন্ত পুরোটা সময়ের হাল নাগাদ তথ্য জানাবে পাঠকদের। কিন্তু এই ফ্লাইটে তো কোনো রিপোর্টারের যাওয়ার সুযোগ ছিলো না। তা হলে!

উপায় বের করে ফেললো টরন্টো স্টারের ভ্যাঙ্কুবার ব্যুরোর আলেক্স ম্যাককিন। কুইবেকের মেয়ে মারিয়াম লারোসি পড়তো উহানের সেন্ট্রাল চায়না নর্মাল ইউনিভার্সিটিতে  পৌনে দুইশ কানাডিয়ানের সঙ্গে মারিয়ামও ফিরছে কানাডায়। মারিয়ামের সাথে কথাবার্তা চূড়ান্ত হয়ে গেলো। অ্যালেক্সের সাথে ম্যাসেঞ্জারে চ্যাট করবে মারিয়াম। সেই চ্যাট সরাসরি প্রকাশ করবে টরন্টো স্টার।

উহান বিমানবন্দরে অপেক্ষমান সময় থেকে HFM322 এ উড়ে আসার সময়টায় দুজনের চ্যাট চলতে লাগলো। ভ্যাঙ্কুভারে জ্বালানির জন্য কয়েক ঘণ্টার স্টপ্ওভার, ভোর বেলা টরন্টোর ট্রেনটনে পৌঁছা পর্যন্ত পুরোটা সময় ধরেই তাদের চ্যাট চললো। সেই চ্যাটে ফিরতি যাত্রার হাল হকিকত, অন্যান্য যাত্রীদের অবস্থা, ফ্লাইটের অবস্থা সবই থাকলো। সঙ্গে ছবিও দিলেন মারিয়াম। কোনো রিপোর্টার না পাঠিয়েও টরন্টো স্টার তার পাঠকদের সামনে তুলে ধরলেন রিয়েল টাইম এক্সক্লুসিভ খবর।

সাংবাদিকতা, নিউজ ম্যানেজমেন্টে ক্রিয়েটিভিটিই কেবল একটি প্রতিষ্ঠানকে অন্যদের চেয়ে অনেকটা এগিয়ে দিতে পারে। টরন্টো স্টার যেনো তাই দেখালো।

(ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

লেখক: প্রকাশক ও সম্পাদক, নতুন দেশ ডটকম

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য