Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৮ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৭ আগস্ট, ২০১৯ ২৩:২১

কাশ্মীরে বিক্ষোভ সংঘর্ষ

ভারতীয় হাইকমিশনারকে বহিষ্কার করল পাকিস্তান, বাণিজ্য বন্ধ

প্রতিদিন ডেস্ক

কাশ্মীরে বিক্ষোভ সংঘর্ষ
দোকানপাট বন্ধ কাশ্মীরে -এএফপি

কাশ্মীর উপত্যকায় বিক্ষিপ্ত ও বিচ্ছিন্নভাবে প্রতিবাদ বিক্ষোভ চলছে। কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহারের উদ্দেশে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিলোপ করার পর ওই উপত্যকাকে ‘নিরাপত্তার চাদরে মোড়া দুর্ভেদ্য দুর্গ’, বানিয়ে ফেলে। তাই কাশ্মীরে থমথমে অবস্থার মধ্যে কী হচ্ছে তা বোঝা যাচ্ছিল না। ৩৭০ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী কাশ্মীরের নিজস্ব পতাকা ছিল। প্রতিরক্ষা, বৈদেশিক সম্পর্ক ছাড়াও অন্যসব বিষয় ছিল কাশ্মীর রাজ্য সরকারের নিয়ন্ত্রণে। ৩৭০ অনুচ্ছেদের অনুপস্থিতিতে কাশ্মীরিদের গোলাম বানানো হতে পারে- এই আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। গুঞ্জন ছড়িয়েছে যে, ইসলামাবাদে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার অজয় বিসারিয়াকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে পাকিস্তান। তবে এ বিষয়ে সরকারিভাবে এখনো কোনো ঘোষণা আসেনি। বিবিসি হিন্দির সাংবাদিক আমীর পীরজাদা শ্রীনগর থেকে টেলিফোনে বার্তা সংস্থাকে বলেছেন, কাশ্মীর এখন ক্রোধে ফুটছে।

ভারতীয় পত্র-পত্রিকার খবরে বলা হয় : অবশেষে কাশ্মীরের রাজধানী শ্রীনগরের চিত্র প্রকাশ্যে আসতে শুরু করেছে। গতকাল দেখা গেছে, ১৪৪ ধারা উপেক্ষা করেই শ্রীনগরের রাস্তায় প্রতিবাদ-বিক্ষোভে শামিল কাশ্মীরের সাধারণ নাগরিকরা। সেই বিক্ষোভকে ঘিরে সংঘর্ষ। ঘটল প্রাণহানিও। গুলিবিদ্ধ এবং আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি অনেকে। গ্রেফতারও হয়েছেন শতাধিক। কাশ্মীরের বাকি অংশের ছবিটা ঠিক কেমন, তা এখনো স্পষ্ট নয়। এখনো বন্ধ ল্যান্ডলাইন, মোবাইল, ইন্টারনেট, ব্রডব্যান্ড, ক্যাবল পরিসেবা। সেগুলো চালু হলে এই প্রতিবাদ-বিক্ষোভ যে আরও বাড়বে, এমন আশঙ্কাই দানা বেঁধেছে পুলিশ-প্রশাসনের অভ্যন্তরে। ৬ আগস্ট জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল দিল্লিতে পাঠানো রিপোর্টে জানিয়েছিলেন, জম্মু-কাশ্মীরে শান্তি ও স্বাভাবিক পরিস্থিতি বজায় রয়েছে। ৩৭০ অনুচ্ছেদ রদকে স্বাগত জানিয়েছেন কাশ্মীরবাসী। তখনই অনেকে আঁচ করেছিলেন, এই শান্তি চিরস্থায়ী না-ও হতে পারে। তার আঁচ পাওয়া গেল এদিনই। ১৪৪ ধারা উপেক্ষা করেই এদিন দফায় দফায় বিক্ষোভ-মিছিল হয়েছে শ্রীনগরে। পুলিশ-সেনা জওয়ানদের লক্ষ্য করে পাথর ছোড়া এবং পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়েছে একাধিক দলের।

পুলিশ সূত্রে খবর, একটি দলের সঙ্গে পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনীর মধ্যে বিক্ষোভকারীদের ব্যাপক সংঘর্ষ শুরু হয়। তার মধ্যেই একজনকে তাড়া করে পুলিশ। সেই তাড়া খেয়ে ঝিলম নদীতে ঝাঁপ দেন ওই যুবক। পরে তার মৃতদেহ উদ্ধার হয়। ওই সংঘর্ষে পুলিশের বিরুদ্ধে গুলি চালানোর অভিযোগও উঠেছে। সংবাদ সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অন্তত ৬ জনের দেহে গুলির ক্ষত রয়েছে। এ ছাড়া আহত অনেকে। অন্তত ১০০ জন বিক্ষোভকারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাদের মধ্যে একাধিক রাজনৈতিক দলের নেতাও রয়েছেন বলে পুলিশ সূত্রে খবর। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক পুলিশকর্তা এই গ্রেফতারির খবর স্বীকারও করে নিয়েছেন। এমনটাই জানাচ্ছে সংবাদ সংস্থা। তবে ধৃতদের মধ্যে হেভিওয়েট কোনো রাজনৈতিক নেতা-নেত্রী আছেন কিনা, সে বিষয়ে কিছু জানাতে রাজি হননি ওই পুলিশকর্তা। এর মধ্যেই গতকাল শোপিয়ানে স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে বেশ কিছুক্ষণ সময় কাটান জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা (এনএসএ) অজিত দোভাল। সেখানকার বাসিন্দাদের সঙ্গে খাওয়া-দাওয়াও করেন। অর্থাৎ তিনি বোঝানোর চেষ্টা করেছেন উপত্যকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক।

অন্যদিকে সাবেক আইএএস অফিসার শাহ ফয়সল কাশ্মীরের সামগ্রিক অবস্থার বর্ণনা দিয়ে ফেসবুকে একটি পোস্ট করেছেন। তিনি লিখেন, ‘শ্রীনগরে জিরো ব্রিজ থেকে বিমানবন্দর, সব জায়গায় কার্যত কারফিউর চেহারা নিয়েছে। রোগী এবং কারফিউ পাসধারী ছাড়া কাউকে ছাড় দেওয়া হচ্ছে না। জম্মু-কাশ্মীর পুলিশকে নিষ্ক্রিয় করে নিরাপত্তার ভার তুলে নিয়েছে সেনা। শ্রীনগরের বাইরে অন্য জেলাগুলোতে ১৪৪ ধারা আরও কঠোর। রাজ্যের ৮০ লাখ মানুষ এরকম পরিস্থিতি আগে কখনো দেখেনি।’

শাহ ফয়সল আরও লিখেছেন, ‘স্যাটেলাইট ফোন ছাড়া টেলি  যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ। কেবল পরিসেবা বন্ধ থাকলেও ডিরেক্ট টু  হোম (ডিটুএইচ) যাদের রয়েছে, তারা টিভি দেখতে পারছেন। তবে অধিকাংশেরই এখনো স্পষ্ট ধারণা নেই, ঠিক কী হয়েছে। জাতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিনিধিদের শ্রীনগরের বাইরে যেতে দেওয়া হচ্ছে না। বড় কোনো সংঘর্ষের ঘটনার খবর পাওয়া না গেলেও রামবাগ, নতিপোরা, ডাউনটাউন, কুলগাম, অনন্তনাগের মতো জায়গায় বিক্ষিপ্ত বিক্ষোভ-পাথর ছোড়ার মতো ঘটনার খবর এসেছে।’

উপত্যকার সব যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ থাকলেও কোনো না কোনোভাবে অনেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের মতো তুলে ধরতে পারছেন। যেমন এর আগে ওমর আবদুল্লাহ বা মেহবুবা মুফতিও যোগাযোগহীন অবস্থায় টুইট করেছেন। তেমনভাবেই ফেসবুকে লিখেছেন ফয়সলও।

তবে এত কড়াকড়ির মধ্যেও বুধবার থেকে কিছুটা হলেও ছন্দে ফিরতে শুরু করেছে শ্রীনগর। অনেককেই রাস্তায় বেরোতে দেখা  গেছে দৈনন্দিন কাজকর্মে বেরোতে। যদিও সেই সংখ্যাটা খুবই কম। কিছু দোকানপাটও খুলেছে শ্রীনগরে। তবে যোগাযোগের প্রায় সব মাধ্যম বন্ধ থাকায় রাজ্যের বাকি অংশের খবর খুব বেশি পাওয়া যায়নি।

এর মধ্যে বুধবারও শ্রীনগর জম্মু-কাশ্মীর সচিবালয়ে জাতীয় পতাকা এবং কাশ্মীরের পতাকা পাশাপাশি উড়তে দেখা যায়। এত দিন পর্যন্ত ভারতের ত্রিবর্ণ পতাকা ছাড়াও জম্মু-কাশ্মীরের জন্য আলাদা পতাকা ছিল। কিন্তু ৩৭০ ধারা রদের পর থেকে ভূ-স্বর্গের জন্য আলাদা আর কোনো পতাকা থাকার কথা নয়। স্বাভাবিক পরিসেবা কখন চালু হবে, আপাতত সেই প্রশ্নের উত্তর খুঁজছেন কাশ্মীরবাসী। অন্যদিকে কারফিউ তোলার পর কী পরিস্থিতি দাঁড়াবে এবং সেই অনুযায়ী প্রতিরোধের ব্লু প্রিন্টও তৈরি করতে শুরু করে দিয়েছেন পুলিশ-প্রশাসনের কর্তারা।

দেয়াল এখন দূর হবে- অমিত শাহ : ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল বিষয়ে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা হচ্ছে। এবার এ বিষয়ে মন্তব্য করেছেন ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। ৩৭০ ধারা বাতিলের মধ্য দিয়ে ভারত ও কাশ্মীরের মধ্যকার দেয়াল দূর হবে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি। জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ রাজ্যের মর্যাদা বাতিল ও দ্বিখি ত করে দেওয়ার বিষয়ে লোকসভায় বিতর্কের একপর্যায়ে মঙ্গলবার এসব কথা বলেন অমিত শাহ।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, লোকসভায় দাঁড়িয়ে অমিত শাহ বলেছেন, ‘৩৭০ ধারার কারণে মানুষের মনে সংশয় জাগত, কাশ্মীর আসলেই ভারতের অংশ কিনা। এ ধারা বাতিলের পর এখন ভারত ও কাশ্মীরের মধ্যকার দেয়াল দূর হবে।’ লোকসভায় কাশ্মীরকে নিয়ে মোদি সরকারের এমন সিদ্ধান্তের দিনকে ‘কালো দিবস’ হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন কংগ্রেস রাজনীতিবিদ মণীষ তেওয়ারি। তেওয়ারির এমন মন্তব্যের জবাব হিসেবে অমিত শাহ পাল্টা খোঁচা দিয়েছেন কংগ্রেসকেই। ১৯৭৫ সালে ইন্দিরা গান্ধীর সময়ে ভারতে জরুরি অবস্থার সময়কেই ‘কালো দিবস’ বলেছেন অমিত শাহ, ‘কালো দিবস এখন নয়, বরং তখন (১৯৭৫) ছিল। জরুরি অবস্থার সময় আপনারা পুরো ভারতকে একটি ইউনিয়নের মতো বানিয়ে রেখেছিলেন। সুতরাং আমাদের উপদেশ দিতে আসবেন না।’

ইমরানের ঘোষণা : বিবিসি জানায়, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসনের অধিকার রদের ভারতীয় সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে তার দেশ লড়াই চালিয়ে যাবে। তিনি বলেন, ভারতের এই সিদ্ধান্ত আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন।  ইমরান বলেন, ‘জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের মাধ্যমে আমরা এখন এটি পর্যালোচনা করে দেখছি, এটি সাধারণ পরিষদে তুলব আমরা, সব ফোরামেই রাষ্ট্রপ্রধানদের সঙ্গে আলোচনা করব, এটি গণমাধ্যমে তুলে ধরব এবং বিশ্বকে জানাব।’ পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখন কাশ্মীরে জাতিগত নির্মূল করা শুরু হতে পারে। তারা স্থানীয়দের সরিয়ে অন্যদের এনে তাদের সংখ্যাগরিষ্ঠ বানাতে পারে, যাতে কাশ্মীরিরা গোলামে পরিণত হয়।

এর আগে পাকিস্তানের ক্ষমতাধর সেনাপ্রধান জানান, তার সৈন্যরা কাশ্মীরিদের ‘ন্যায্য সংগ্রামে’ তাদের পাশে থাকবে। প্রতিবেশী চীনও ভারতের সিদ্ধান্তকে ‘অগ্রহণযোগ্য’ বর্ণনা করে এর বিরোধিতা করবে বলে জানিয়েছে।

ভারতের অন্যান্য অংশে থাকা কাশ্মীরিরা তাদের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছেন না বলে জানিয়েছেন।

সোমবার ভারত সরকার জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে সিদ্ধান্ত ঘোষণার আগে সেখানে অতিরিক্ত ৩৫ হাজার সেনা মোতায়েন করেছিল। সিদ্ধান্ত ঘোষণার পর অতিরিক্ত আরও আট হাজার সেনা তাদের সঙ্গে যোগ দেয়। ইতিমধ্যেই কাশ্মীর বিশ্বের অন্যতম সামরিকায়িত অঞ্চল হয়ে উঠেছে।

১৯৪৭-এর পর থেকেই ভারত ও পাকিস্তান উভয়েই হিমালয় অঞ্চলের কাশ্মীরকে নিজেদের বলে দাবি করে এলেও নয়াদিল্লি ও ইসলামাবাদ এখন অঞ্চলটির আলাদা দুটি অংশের নিয়ন্ত্রক।

ভারতশাসিত অংশে দীর্ঘদিন ধরেই বিচ্ছিন্নতাবাদী বিভিন্ন সংগঠনের তৎপরতা বিদ্যমান, যাতে প্রাণ হারিয়েছে হাজার হাজার লোক।

এ পদক্ষেপের বৈধতা থাকবে না-চীন : ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ রদের মাধ্যমে জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল ও বিতর্কিত এ অঞ্চলের পুনর্বিন্যাসে সরকারি সিদ্ধান্তের তীব্র বিরোধিতা জানিয়েছে চীন। মঙ্গলবার চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে বিবৃতি দেয়।

বিতর্কিত কাশ্মীরের বিভিন্ন অংশকে চীন ও পাকিস্তান নিজেদের বলে দাবি করে। এসব নিয়ে চীন ও পাকিস্তানের সঙ্গে নানা সময়ে ভারতের বিরোধেরও সৃষ্টি হয়েছে। সীমান্ত ও লাদাখ অঞ্চল নিয়ে চীনের সঙ্গে ভারতের দীর্ঘদিন ধরে বিতর্ক চলে আসছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে চীন কাশ্মীরকে দুই ভাগে ভাগ করার সিদ্ধান্তের বিরোধিতা জানায়। চীন জানায়, তারা কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা রদের বিরোধিতা করে। সীমান্ত সংশ্লিষ্ট বিষয়ে নয়াদিল্লির সতর্ক হওয়া প্রয়োজন। চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হুয়া চুনিয়িং বিবৃতিতে বলেন, (কাশ্মীর ইস্যু) ভারতের পদক্ষেপ অগ্রহণযোগ্য। এর কোনো বৈধতা থাকবে না।


আপনার মন্তব্য