৭ এপ্রিল, ২০২২ ২১:৪৫

‘পাকিস্তানের পার্লামেন্ট বিলোপের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা, অধিবেশন বহালের আদেশ’

অনলাইন ডেস্ক

‘পাকিস্তানের পার্লামেন্ট বিলোপের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা, অধিবেশন বহালের আদেশ’

অবশেষে পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্টের আদেশ সামনে এলো। আদেশে পাকিস্তানের পার্লামেন্ট বিলোপের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করে অধিবেশন বহাল রাখতে বলা হয়েছে। খবর ডনের। একই সঙ্গে আদালত অনাস্থা ভোটের প্রস্তাব খারিজ করে দেওয়া ডেপুটি স্পিকারের সিদ্ধান্ত অসাংবিধানিক বলে রায় দিয়েছেন। আগামী শনিবার অনাস্থা ভোটের আয়োজন করারও নির্দেশ দেন আদালত।

প্রধান বিচারপতি উমর আতা বান্দিয়ালের নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের বেঞ্চ গতকাল এ রায় ঘোষণা দেয়। কাল জাতীয় পরিষদে অধিবেশন বসবে। সেখানে অনাস্থা প্রস্তাবের ওপর ভোটাভুটি হবে। রায়ে আদালত বলে, ‘রাষ্ট্রপতিকে  আইনসভা ভেঙে দেওয়ার পরামর্শ দেওয়ার অধিকার প্রধানমন্ত্রীর নেই। আজ পর্যন্ত নেওয়া সব সিদ্ধান্ত বাতিল করা হয়েছে।’ পাকিস্তানের প্রধান বিচারপতি উমর আতা বান্দিয়াল এর আগে বলেছিলেন যে জাতীয় স্বার্থ এবং বাস্তবতা দেখেই আদালত এগিয়ে যাবে। বিচারপতি বান্দিয়ালের নেতৃত্বে এবং বিচারপতি মুনীব আখতার, বিচারপতি আইজাজুল আহসান, বিচারপতি মাজহার আলম ও বিচারপতি জামাল খান মন্দোখেলের সমন্বয়ে গঠিত সুপ্রিম কোর্টের পাঁচ সদস্যের বৃহত্তর বেঞ্চ মামলাটির শুনানি করেছে।

ইমরান খানের বিরুদ্ধে আনা বিরোধী দলগুলোর অনাস্থা প্রস্তাব ‘অসাংবিধানিক’ আখ্যা দিয়ে ডেপুটি স্পিকারের খারিজ করার বৈধতা নিয়ে বুধবার রাতে সুপ্রিম কোর্টের রায় দেওয়ার কথা ছিল।

এ নিয়ে শুনানির দ্বিতীয় দিন গত সোমবার প্রধান বিচারপতি উমর আতা বান্দিয়াল বলেছিলেন, ‘সংবিধানের ৫ অনুচ্ছেদ উদ্ধৃত করেও স্পিকার অনাস্থা প্রস্তাব খারিজ করে দিতে পারেন না।’ গতকাল সকালে শুনানি শুরুর পরপরই তিনি বলেন, বিরোধীদের আনা অনাস্থা প্রস্তাব ডেপুটি স্পিকার কাসিম খান সুরির খারিজ করে দেওয়া সংবিধানের ৯৫ অনুচ্ছেদের লঙ্ঘন। এ সিদ্ধান্ত ‘ত্রুটিপূর্ণ’। এ রায়কে কেন্দ্র করে গতকাল আদালত চত্বরে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়। আদালতের বাইরে মোতায়েন করা হয় দাঙ্গা পুলিশ।

প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বিরুদ্ধে আনা বিরোধী দলগুলোর অনাস্থা প্রস্তাব ‘অসাংবিধানিক’ আখ্যা দিয়ে ৩ এপ্রিল খারিজ করে দেন পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ জাতীয় পরিষদের ডেপুটি স্পিকার। এর পরপরই প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শে পার্লামেন্ট ভেঙে দেন প্রেসিডেন্ট। এই পুরো প্রক্রিয়াকে ‘অসাংবিধানিক’ আখ্যা দিয়ে আদালতের দ্বারস্থ হন বিরোধীরা। অন্যদিকে সুপ্রিম কোর্ট অনাস্থা প্রস্তাব খারিজের দিনই স্বতঃপ্রণোদিত (সুয়োমোটো) হয়ে নোটিস দেয়। সর্বোচ্চ আদালত তখন বলে, দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতির ওপর তারা নজর রাখছে।

পাকিস্তানে সংবিধান অনুযায়ী পার্লামেন্ট ভেঙে দেওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন হওয়ার কথা। বিরোধীরা ইমরানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) সদস্য ডেপুটি স্পিকার সুরির সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখান।

বিডি-প্রতিদিন/শফিক

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর