Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ২ ডিসেম্বর, ২০১৮ ২৩:৩০

যে প্রতিক্রিয়া পেলেন সালমান

জি-২০ সম্মেলন

যে প্রতিক্রিয়া পেলেন সালমান

সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের জন্য জি-টুয়েন্টি সম্মেলন সবসময়ই একটি পরীক্ষা। সৌদি সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যার পর আর্জেন্টিনায় এবারের এই সম্মেলনেই প্রথম কোনো আন্তর্জাতিক মঞ্চে হাজির হলেন মোহাম্মদ বিন সালমান। খাশোগি হত্যার আদেশ সৌদি সরকারের সর্বোচ্চ মহল থেকে দেওয়া হয়েছিল বলে ব্যাপক সন্দেহ ও অভিযোগ রয়েছে। ফলে আন্তর্জাতিক মহল সৌদি আরবের সঙ্গে শীতল আচরণ করতে যাচ্ছে কিনা, তা দেখার জন্য বুয়েন্স আয়ার্ন্স এই সম্মেলন ছিল একটা দারুণ সুযোগ। এর প্রথম ইঙ্গিত পাওয়া যায় প্রথামাফিক শীর্ষ নেতাদের যেসব ছবি তোলা হয় তার মধ্যেই। সৌজন্য বিনিময়, হাত মেলানো, নেতাদের শরীরী ভাষা যা বলে দিয়েছে, তা হয়ত একাধিক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে প্রকাশ সম্ভব হতো না। শীর্ষ নেতাদের গ্রুপ ছবি তোলার সময় সৌদি আরবের ডি ফ্যাক্টো শাসক মোহাম্মদ বিন সালমান, যাকে এমবিএস নামে ডাকা হয়, নিজে থেকেই একেবারে সারির শেষ প্রান্তে গিয়ে দাঁড়িয়েছিলেন। জি-টুয়েন্টি সম্মেলনে আসা নেতাদের মধ্যে তিনি ছিলেন একমাত্র আরব নেতা, আর স্যুট টাই পরিহিত একদল প্রভাবশালী মানুষের ভিড়ে নিজের পোশাকের কারণে তিনি দূরেই ছিলেন। এএফপি

এদিকে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী তেরেজো মে সাংবাদিক জামাল খাশোগজি হত্যাকারীদের খুঁজে বের করার তাগিদ দিয়েছেন কখনো কখনো তাকে কিছুটা অনিশ্চিত, এমনকি নার্ভাসও মনে হয়েছে। সম্মেলনে বিশ্ব নেতাদের কেউ কেউ তার সঙ্গে সৌজন্যসূচক দুয়েকটি কথা বলেছেন, আবার অনেকেই হাত মেলাতেও ভুলে গেছেন! এর ব্যতিক্রম ছিলেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। অনেকটা আয়োজন করেই ‘হাই-ফাইভ’ দিয়েছেন তিনি এমবিএসকে, যা কেবল ক্যামেরায় পোজ দেওয়ার জন্য ছিল না। বসেছিলেনও দুজন পাশাপাশি। তবে এর অনেকটাই নিজ স্বার্থে বলে মনে করেন বিশ্লেষকরা। কারণ সৌদি আরবের সঙ্গে কৌশলগত কারণেই রাশিয়ার ঘনিষ্ঠতা রাখা দরকার।

সম্মেলনের ফাঁকে ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাঁক্রোও এমবিএসের সঙ্গে বৈঠক করেন। তিনি সে সময় জামাল খাশোগির হত্যাকারীদের খুঁজে বের করার জন্য একটি আন্তর্জাতিক তদন্তের আহ্বান জানান। যদিও ভিডিও ফুটেজ দেখে মনে হয়েছে, ম্যাঁক্রোর কথা শুনছিলেন না এমবিএস।

তবে, এই সম্মেলনের মাধ্যমে যে সত্যটা বেরিয়ে এসেছে তা হলো জামাল খাশোগি হত্যার সঙ্গে যুবরাজের সংশ্লিষ্টতা থাকার যে অভিযোগ- তাতে বিশ্বনেতাদের অনেকে ক্রুব্ধ হলেও সেই ক্ষোভ কেউ প্রকাশ করেননি। বিবিসি


আপনার মন্তব্য