রবিবার, ২৫ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ টা

মইসির শেষ বিদায়ের সময়ও গোলাগুলি

মইসির শেষ বিদায়ের সময়ও গোলাগুলি

হাইতির ঐতিহাসিক শহর ক্যাপ-হাইতিয়েনে হত্যাকান্ডের শিকার প্রেসিডেন্ট জোভেনেল মইসির শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছে। প্রেসিডেন্টের শেষবিদায়ের সময়ও ঘটেছে গোলাগুলির ঘটনা। এতে ঘটনাস্থলে থাকা অতিথিদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। স্থানীয় সময় শুক্রবার শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রসহ নানা দেশের শীর্ষ  কর্মকর্তারা। গুলির শব্দে তারা দ্রুত নিরাপদে সরে যান। অনুষ্ঠানে ছিলেন জোভেনেল মইসির স্ত্রী মার্টিন মইসি এবং তিন সন্তানও। যুক্তরাষ্ট্রের একটি হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে গত শনিবার তিনি দেশে ফেরেন। শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে মার্টিন মইসি বলেন, ‘আমরা বিচারের দাবিতে কাঁদছি। আমরা প্রতিশোধ চাই না, বিচার চাই।’

এর আগে মইসির মরদেহ কফিনে করে অনুষ্ঠানস্থলে নিয়ে আসা হয়। যাদের কাঁধে করে কফিন আসে, তাদের পরনে ছিল সেনা উর্দি। সেখানে সাবেক এ প্রেসিডেন্টের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়। পরে তাকে বাবার কবরের পাশেই সমাহিত করা হয়।

খবরে বলা হয়, শেষকৃত্যের সময় বিক্ষোভ চলছিল মূল ঘটনাস্থলের বাইরে। অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়া পুলিশপ্রধানসহ অনেকেরই প্রেসিডেন্টের হত্যাকান্ডের পেছনে হাত আছে বলে দাবি করেন বিক্ষোভকারীরা। একপর্যায়ে তারা পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। শোনা যায় গুলির শব্দ। প্রত্যক্ষদর্শীরা অনেকেই কাঁদানে গ্যাসের গন্ধ পেয়েছেন বলেও জানিয়েছেন। তবে হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। পুলিশ-বিক্ষোভকারীদের সংঘর্ষের সময় সেখানের একটি দোকান লুটপাটের খবর পাওয়া গেছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, ওই দোকান থেকে ওয়াশিং মেশিনসহ অন্যান্য আসবাব নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল।

এদিকে গত মঙ্গলবার হাইতির নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন অ্যারিয়েল হেনরি। দায়িত্ব পাওয়ার পর নিহত প্রেসিডেন্ট মইসি হত্যাকাে র বিষয়টি সামনে আনেন তিনি। হেনরি বলেন, হত্যাকাে র সঙ্গে জড়িত সব অপরাধীকে আইনের আওতায় আনা হবে।