বৃহস্পতিবার, ৫ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ টা

৯ বছরের শিশুকে ধর্ষণ ও পুড়িয়ে হত্যা, উত্তাল দিল্লি

৯ বছরের শিশুকে ধর্ষণ ও পুড়িয়ে হত্যা, উত্তাল দিল্লি

ভারতের রাজধানী দিল্লিতে নয় বছরের শিশুকে শ্মশানঘাটে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে পুরোহিত ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় ক্ষোভে উত্তাল হয়ে পড়েছে দিল্লি। টানা চতুর্থ দিনের মতো বিক্ষোভ করছে সেখানকার মানুষ। খবর বিবিসির। এদিকে নিহতের পরিবার ও এলাকার বাসিন্দারা এই  ঘটনার প্রতিবাদে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করলে ঘটনার প্রায় ২৪ ঘণ্টা পর দিল্লি পুলিশ অভিযুক্ত এক পুরোহিত ও তার তিন সঙ্গীকে গ্রেফতার করেছে। দিল্লি সরকারও প্রতিশ্রুতি দিয়েছে এই ঘটনার দ্রুত বিচার নিশ্চিত করা হবে। বাড়ির পাশে শ্মশানে বসানো ঠান্ডা পানির মেশিন থেকে রবিবার সন্ধ্যায় পানি আনতে যায় মেয়েটি। কিন্তু তারপর অনেক সময় কেটে গেলেও বাড়ি ফেরেনি সে। সন্ধ্যা ৬টা নাগাদ আচমকা স্থানীয়রা এসে তার মাকে জানায়, শ্মশানের পুরোহিত রাধেশ্যাম তাকে ডেকেছেন। সেখানে গিয়ে ওই মহিলা দেখেন, তার শিশুর দেহ পড়ে রয়েছে। বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মেয়ের মৃত্যু হয়েছে বলে তাকে জানান রাধেশ্যাম। কিন্তু তাকে মেয়ের দেহ ছুঁয়ে পর্যন্ত দেখতে দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ। সংবাদমাধ্যমে মেয়েটির মা বলেন, ‘মেয়ের দেহ দেখে পাগলপারা অবস্থা হয় আমার। কিন্তু ঝাঁঝের সঙ্গে পুরোহিত বলেন, মেলা কান্না না জুড়ে বাড়ি গিয়ে ঘুমোও। চেঁচামেচি, কান্নাকাটি করো না।’ ১০০-য় ফোন করে পুলিশে খবর দিতে বললে তিনি বলেন, ‘পুলিশে খবর দিলে বছরের পর বছর মামলা চলবে। মেয়ের দেহ হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে কাটাছেঁড়া করা হবে। ডাক্তার এবং পুলিশ মিলে মেয়ের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ বেচে দেবে। আমার যেহেতু সামর্থ্য নেই, তাই তিনিই মেয়ের সৎকার করে দেবেন।’

রাধেশ্যাম নামে মূল অভিযুক্ত ওই পুরোহিতকে সোমবার রাতেই পুলিশ গ্রেফতার করেছে, সঙ্গে আটক করা হয়েছে লক্ষ্মীনারায়ণ, কুলদীপ ও সালিম নামে তার তিন সঙ্গীকেও। তাদের বিরুদ্ধে আনা হয়েছে ধর্ষণ, হত্যা, ভয় দেখানো ও প্রমাণ লোপাট করাসহ বিভিন্ন অভিযোগ।