শিরোনাম
বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ০০:০০ টা

গাজায় সোমবারের মধ্যে যুদ্ধবিরতির আশ্বাস বাইডেনের

যুক্তরাষ্ট্র সাম্প্রতিক দিনগুলোতে রাফাহ শহরে হামলা বন্ধ করতে ইসরায়েলের ওপর চাপ বাড়াচ্ছে

গাজায় সোমবারের মধ্যে যুদ্ধবিরতির আশ্বাস বাইডেনের

গাজার পর রাফাতেও ধ্বংসযজ্ঞ চালাচ্ছে ইসরায়েল। গোটা অঞ্চলে খুব কম স্থাপনা অক্ষত রয়েছে। গতকাল রাফায় ধ্বংস হওয়া আশ্রয় কেন্দ্রের সামনে হেঁটে যাচ্ছেন এক ব্যক্তি -এএফপি

গাজায় ৩০ হাজার ফিলিস্তিনি হত্যার পর অবশেষে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন জানালেন, সোমবারের মধ্যে ইসরায়েল ও হামাসের যুদ্ধবিরতি হয়ে যাবে। ফিলিস্তিনি ভূখন্ডে  ক্রমশ ঘনীভূত হতে থাকা মানবিক সংকটের মধ্যে মিসর, কাতার, যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স এবং সংশ্লিষ্ট অন্যান্য পক্ষের প্রতিনিধিরা ইসরায়েল ও হামাসের মধ্যে সমঝোতার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। এ সময় আশার কথা জানালেন বাইডেন। নিউইয়র্ক সফরকালে সোমবার বাইডেনের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল, গাজায় এমন একটি চুক্তি কবে নাগাদ শুরু হতে পারে? জবাবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘আমার জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা আমাকে বলেছেন, আমরা খুবই কাছাকাছি পৌঁছে গেছি। আমরা কাছাকাছি রয়েছি। তবে আমরা এখনো শেষ করতে পারিনি।’ বাইডেন আরও বলেন, ‘আশা করছি, সোমবারের মধ্যে আমরা যুদ্ধবিরতি দেখতে পাব।’ কাতারে যুদ্ধবিরতি নিয়ে আলোচনায় চলমান যুদ্ধে সাময়িক বিরতি টানা ও গাজায় অবস্থান করা ইসরায়েলি জিম্মিদের মুক্ত করার কৌশল খুঁজছেন তারা। যুদ্ধবিরতির এ চুক্তিতে হামাসের হাতে বন্দি কয়েক ডজন জিম্মির মুক্তির বিনিময়ে ইসরায়েলের হাতে আটক থাকা কয়েক শ ফিলিস্তিনিকেও মুক্তি দেওয়ার বিষয়টিও অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। ইসরায়েলি সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, একটি ইসরায়েলি সামরিক প্রতিনিধি দল আলোচনার জন্য কাতারে গেছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার নিউইয়র্কে বাইডেন এ মন্তব্য করেন। গাজায় মানবিক সহায়তা পাঠানোর জন্য মিসর, কাতার এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতায় হওয়া এ আলোচনার মধ্য দিয়ে গাজায় যুদ্ধবিরতি হলে ইসরায়েল এবং হামাসের মধ্যে চলমান সংঘাতের অবসান হবে বলে আশা করা হচ্ছে। জাতিসংঘ জানিয়েছে, প্রায় ২.৩ মিলিয়ন মানুষ গাজায় দুর্ভিক্ষের দ্বারপ্রান্তে রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র সাম্প্রতিক দিনগুলোতে দক্ষিণ গাজার রাফাহ শহরে হামলা বন্ধ করতে ইসরায়েলের ওপর চাপ বাড়াচ্ছে। রাফাহতে প্রায় ১.৪ মিলিয়ন মানুষ অবস্থান করছেন যাদের মধ্যে অনেকেই যুদ্ধের কারণে বাস্তুচ্যুত হয়ে নিরাপত্তার জন্য সেখানে আশ্রয় নিয়েছিলেন। এদিকে বাইডেনের বক্তব্যের আগে দেশটির জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জ্যাক সুলিভান জানিয়েছিলেন, ‘ইসরায়েল, মিসর, কাতার ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধিরা গত সপ্তাহের শেষে প্যারিসে যুদ্ধবিরতি চুক্তির শর্ত নিয়ে আলোচনা করেছেন এবং এ ধরনের চুক্তির রূপরেখা সম্পর্কে ‘একটি বোঝাপড়া’ হয়েছে।’ সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা জানিয়েছে, বাইডেনের এ মন্তব্য ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুর জন্য একটি বার্তা হতে পারে। সংবাদমাধ্যমটি আরও জানিয়েছে, বাইডেনের মন্তব্য মিশিগান রাজ্যের ভোটারদের উদ্দেশেও হতে পারে কারণ গতকালই রাজ্যটিতে প্রাথমিকভাবে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা।

 

সর্বশেষ খবর