Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ১৫ জুলাই, ২০১৯ ০৯:১৮

রক্তদানে ট্যাটু নিয়ে ভুল ধারণা ভাঙতে ব্লাডমেটস’র অন্যরকম উদ্যোগ

অনলাইন ডেস্ক

রক্তদানে ট্যাটু নিয়ে ভুল ধারণা ভাঙতে ব্লাডমেটস’র অন্যরকম উদ্যোগ

একটা সময় রক্তের অভাবে মানুষের মৃত্যু হতো। সমাজে অসংখ্য মানুষ থাকলেও কেউ রক্ত দিতে চাইতো না। কিন্তু দিন বদলেছে, এখন রক্তের প্রয়োজন হলে অনেকেই স্বেচ্ছায় এগিয়ে আসে।

কিন্তু তবুও রক্ত দানের মতো জরুরি বিষয়ে ভুল ধারণা বা ভ্রান্তির ঘেরাটোপ থেকে বেরোতে পারেনি মানুষ। রক্ত দিতে গেলে কী কী আবশ্যক, বা রক্ত দেওয়ার পরে সংক্রমণসহ নানা ধরনের ভুল ধারণা এখনও সমাজের একটা বড় অংশের মানুষকে রক্ত দেওয়ার মতো বিষয় থেকে পিছিয়ে রেখেছে।

এই ভুল ধারণার মধ্যে অন্যতম হল, শরীরে ট্যাটু থাকলে রক্ত দেওয়া যায় না! এমন ভ্রান্ত ধারণা ভাঙতেই এবং নতুন প্রজন্মকে রক্তদানে আরও উৎসাহিত করতে অন্যরকমের এক রক্তদান শিবিরের আয়োজন করছে পশ্চিমবঙ্গের ব্লাডমেটস। গোটা রাজ্যে ছড়িয়ে রয়েছেন ব্লাডমেটসরা। কোথায় কোন বিপদে রক্ত প্রয়োজন, পৌঁছে যান তারা, ভীষণ সক্রিয় সোশ্যাল মিডিয়াতেও। এবার তাদেরই উদ্যোগে শুধুমাত্র ট্যাটুওয়ালা মানুষদের দিয়েই আয়োজিত হবে এই রক্তদান শিবির। সংগৃহীত রক্ত যাবে কলকাতা থ্যালাসেমিয়া সোসাইটিতে।

আগামী ১১ আগস্ট অভিনব এই শিবিরের আয়োজন করা হয়েছে। কমপক্ষে ১০০ জন রক্তদাতা এই শিবিরে রক্ত দেবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

ব্লাডমেটসের পক্ষে প্রিয়ম সেনগুপ্ত জানান, “আমাদের মূল লক্ষ্য হল‌ ট্যাটু থাকলে রক্ত দেওয়া যায় না, এই ভ্রান্ত ধারণাটাকে নির্মূল করা।” 

শরীরকে ভালোবেসে নানা ধরণের ট্যাটু করালে কি সত্যিই সেই রক্ত অন্য মানুষকে দেওয়া যায় না? প্রিয়ম বলেন, “বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং ন্যাশনাল ব্লাড কাউন্সিলের নির্দেশ অনুসারে ট্যাটু করানোর এক বছর পর থেকেই স্বাভাবিক পদ্ধতিতে রক্ত দেওয়া যায়।”

উল্কি বিষয়টি প্রাচীন, তবে তা ট্যাটু ডাকনামে এই সমাজে অন্তত জনপ্রিয়তার শীর্ষে উঠেছে শেষ কয়েক বছরে। ট্যাটু সব থেকে বেশি করান সাধারণত যুব সম্প্রদায়ের মানুষই।

নানা সমীক্ষা থেকে স্পষ্ট যে, যুব সম্প্রদায়ের মানুষই সবচেয়ে বেশি রক্তদানও করে। সুতরাং ট্যাটু করানোর শখে যদি এই তরুণ–তরুণীরা রক্ত দেওয়া বন্ধ করে দেয় তাহলে কলকাতা শহর ও সমস্ত জেলাতেই রক্ত সংকট বাড়বে। সুতরাং, ট্যাটু করানো ও ট্যাটুশরীরে রক্ত দেওয়ার নিয়ম কানুন সবটা সম্পর্কে মানুষকে আরও ওয়াকিবহাল করতেই এই অভিনব উদ্যোগে সামিল ব্লাডমেটস।‌

কলকাতা‌ শহরের দু'টি বড় ট্যাটু পার্লার এই উদ্যোগে তাদের সঙ্গে সামিল হয়েছে। ‘ইংক ডম' এবং ‘ট্যাটু ক্রিড' নামের এই পার্লার তাদের গ্রাহকদের তথ্যপুঞ্জি শেয়ার করছে ব্লাডমেটসদের সঙ্গে। সেই গ্রাহকদের ফোন করেই অনুরোধ করা হচ্ছে আগামী ১১ অগাস্ট রক্ত দেওয়ার জন্য।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য