Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ২৩:৩৬

স্কুল নয়, কোচিংয়ে গুরুত্ব

শিক্ষার হালচাল - ১১

মাহবুব মমতাজী

স্কুল নয়, কোচিংয়ে গুরুত্ব

স্কুলের পাঠদানের চেয়ে কোচিং সেন্টারে বেশি সময় দেন সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষকরা।

আবার কিছু কিছু প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কোচিং করতে বাধ্য করারও অভিযোগ পাওয়া যায়। শিক্ষার্থীরা এখন আর শেখার জন্য বা লেখাপড়ার জন্য স্কুল কলেজে যায় না। যায় হাজিরার জন্য, শিক্ষার্থী হিসেবে তালিকায় নাম থাকার জন্য। পড়ার জন্য, শেখার জন্য বা পরীক্ষায় ভালো নম্বর পাওয়ার জন্য ছোটে কোচিং সেন্টারগুলোতে। এ চিত্র পুরো দেশের। শিক্ষকরাও শিক্ষার্থীদের এ ধারণার সঙ্গে মানিয়ে নিয়েছেন। হাজিরা নিতেই সময় পার করছেন তারা। তাদের ধারণা- শ্রেণিকক্ষে না শেখালেও শিক্ষার্থীরা কোনো না কোনো কোচিং সেন্টারে গিয়ে পড়া শিখবে, পরীক্ষায় ভালো নম্বর পাবে। তাই শ্রেণিকক্ষে শেখানোর এত তাড়া নেই। পরিস্থিতি এমন যে— কোচিংগুলোই এখন শিক্ষার মূল ব্যবস্থা।

 আর স্কুলগুলো শুধু সার্টিফিকেট কিংবা আনুষ্ঠানিকতার জন্য। কোচিং সেন্টার বা শিক্ষকদের সৃষ্ট প্রাইভেট হোমে প্রতিদিন সকাল-বিকাল-রাতে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ভিড় থাকেই। স্কুল-কলেজে সমান্তরালে শ্রেণিকক্ষের মতো আয়োজন করে এসব জায়গায় পড়ানো হচ্ছে, স্কুলের আদলে পরীক্ষা হয়, ক্লাস হয়, দেওয়া হয় হোমওয়ার্ক। স্কুলের চেয়ে কোচিং সেন্টারে পড়াতেই বাধ্য হন অভিভাকরা। বিরক্ত ও ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা সন্তানকে নিয়ে ছোটেন স্কুল এবং কোচিং সেন্টারে। রাজধানীর বেশ কয়েকটি স্কুলের শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকদের সঙ্গে কথা বলে মিলেছে এসব তথ্য। শিক্ষার্থীদের ভাষ্য, স্কুলে তাদের শুধু আসা-যাওয়া। পড়াশোনার চাপ সামলাতে হয় কোচিংয়ে। কোচিংয়ের বিষয়গুলো প্রাকটিস করে যেতে হয়। নিয়মিত কোচিংয়ে পরীক্ষা দিতে হয়। কোচিংয়ের পরীক্ষা ও পড়াশোনার জন্য স্কুলের পড়াশোনায় তেমন গুরুত্ব দেওয়ার সুযোগ থাকে না। তাদের স্কুলের শিক্ষকরাই কোচিংয়ের শিক্ষক। স্কুলের চেয়ে কোচিংয়ে তারা পড়া আদায় করে নেন পাই টু পাই। তবে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ফল ভিত্তিক শিক্ষা ব্যবস্থার কারণে এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। শিক্ষার্থীরা কি শিখল এটা এখন গুরুত্ব পায় না, গুরুত্ব পায় সে কতটা ভালো ফল করল। আর ভালো ফলের জন্য ছুটছে এক কোচিং থেকে অন্য কোচিংয়ে।

মাহিন বিশ্বাস। দয়াগঞ্জের সিটি ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী। সকাল ৮টা থেকে ১২টা পর্যন্ত তার ক্লাস। এক ঘণ্টা বিরতি দিয়ে দুপুর ২টায় শুরু হয় তার কোচিং। ওই স্কুলের শিক্ষকরাই স্কুলের মধ্যেই বিকাল ৫টা পর্যন্ত কোচিং করান। সাদমান। রাজধানীর মনিপুর স্কুলের ৭ম শ্রেণির শিক্ষার্থী। স্কুল সময় দুপুর ১২টা থেকে ৪টা পর্যন্ত। এরপরই তার বাসায় ফেরার কথা। সময়মতো বাসায় ফিরে সে। কিন্তু স্কুলে যাওয়ার ক্ষেত্রে নির্ধারিত সময়ে বের হওয়া হয় না তার। তাকে বের হতে হয় সকাল ৮টায়। সকাল ৮টা থেকে ১১টা পর্যন্ত স্কুলের পাশের একটি কোচিং সেন্টারে পড়তে হয় তাকে। নাজমুস সাবা। মিরপুরের আরেকটি স্কুলের শিক্ষার্থী। তার স্কুল সময় ৮টা থেকে ১২টা পর্যন্ত। কিন্তু সে বাসায় ফেরে বিকাল ৫টায়। স্কুল শেষেই সাবা স্কুলের পাশেই একটি কোচিং সেন্টারে যায়। সেখানে থাকতে হয় প্রায় ৪ ঘণ্টা। কোচিংয়ের দেওয়া হোম ওয়ার্ক, পরীক্ষা নিয়েই পুরো ব্যস্ত সময় কাটে তার। উপরোক্ত শিক্ষার্থীদের বক্তব্য, ‘স্কুলে লেখাপড়া তেমন হয় না। স্যারেরা তেমন গুরুত্ব দিয়ে পড়ান না। তাই কোচিংয়ের বিকল্প নেই। স্কুলে গুরুত্ব দিয়ে শেখালে এবং প্রাকটিস করালে কোচিংয়ে যেতে হতো না।’ কিন্তু ভিন্ন কথা বললেন বামৈল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীর বাবা শাহিনুর রহমান। বলেন, সরকারি স্কুল হওয়ার পরও এখানে ছেলে-মেয়েদের ভর্তি করাতে হয় টাকা দিয়ে। আবার ৪র্থ ও ৫ম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের কোচিং করতে বাধ্য করেন প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেন। কোচিং বাবদ প্রতি শিক্ষার্থীর কাছ থেকে নেওয়া হয় ৫০০ টাকা। স্কুল পরিচালনা কমিটির অনুমোদন সাপেক্ষে কোচিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে— জানতে চাইলে একথা বলেন প্রধান শিক্ষক। পুরান ঢাকার লক্ষ্মীবাজারের একটি স্কুলের শিক্ষার্থী তারিকুল ইসলামের ক্লাস শুরু সাড়ে ১২টায়। কিন্তু সকাল ৮টায় সে বাসা থেকে বের হয়। ৮টা থেকে ৯টা পর্যন্ত একজন শিক্ষকের কাছে গণিত, ৯টা থেকে ১০টা পর্যন্ত আরেকজন শিক্ষকের কাছে পদার্থ। দুপুর ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত এক কোচিংয়ে গিয়ে পড়ে রসায়ন। এর পর বাসা থেকে টিফিন বক্সে আনা খাবার খেয়ে হাজির হয় স্কুলে। ক্লান্ত শরীরে কোনো রকম ক্লাসগুলো পার করে। অভিভাবকরা বলছেন, স্কুলগুলোতে মানসম্পন্ন পড়াশোনা না হওয়ায় অপারগ হয়েই তাদের কোচিং সেন্টারমুখী হতে হচ্ছে। সরকার ২০১২ সালে কোচিং বাণিজ্য বন্ধ নীতিমালা জারি করে। ওই নীতিমালা অনুযায়ী শিক্ষকদের নিজ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের প্রাইভেট পড়ানোর সুযোগ নেই। অন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বড়জোর ১০ জন শিক্ষার্থীকে পড়ানোর সুযোগ রয়েছে। কিন্তু এ নীতিমালা কাগজেই বন্দী। আলোর মুখ দেখে না। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মফস্বলের স্কুলগুলোতে পঞ্চম, অষ্টম ও দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি আশঙ্কাজনক হারে কমে গিয়েছে। অনুপস্থিত শিক্ষার্থীরা স্কুল বাদ দিয়ে বিভিন্ন কোচিং সেন্টার ও টিউটোরিয়াল হোমে ভিড় করছে। নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক এক শিক্ষক জানান, একটি শ্রেণিকক্ষে ৮০ থেকে একশর বেশি শিক্ষার্থীকে ৩০-৪৫ মিনিটে কি শেখানো যাবে? হাজিরা নিতেই তো সময় চলে যায়। এ ছাড়া শিক্ষার্থীরা যা জানতে চায় তা সময়ের অভাবে জানতে পারছে না। শেখানো যাচ্ছে না। তাই তারা বাধ্য হয়েই কোচিং সেন্টারমুখী হচ্ছে।


আপনার মন্তব্য