Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১০ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৯ এপ্রিল, ২০১৯ ২৩:২০

মেরুকরণে দুই দলের রাজনীতি

সাংগঠনিক ব্যস্ততায় আওয়ামী লীগ

রফিকুল ইসলাম রনি

সাংগঠনিক ব্যস্ততায় আওয়ামী লীগ

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর আওয়ামী লীগে সাংগঠনিক ব্যস্ততা চলছে। এর মধ্যে রয়েছে- আগামী অক্টোবরে জাতীয় সম্মেলনকে ঘিরে বিভিন্ন উপ-কমিটি গঠন, গঠনতন্ত্র সংশোধন, মেয়াদোত্তীর্ণ জেলাগুলোর সম্মেলন ও কমিটি গঠন, সাংগঠনিক সফর, অভ্যন্তরীণ কোন্দল নিরসন, উপজেলা নির্বাচনে দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের পক্ষে কাজ করা এমপি-মন্ত্রী ও নেতাদের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ প্রভৃতি। এ ছাড়া কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়া সহযোগী সংগঠনের সম্মেলন করার তাগাদা দেওয়া হয়েছে। এ জন্য বিশেষ দায়িত্ব পাচ্ছেন দলের সিনিয়র নেতারা।

জানা গেছে, আগামী অক্টোবর মাসে শেষ হচ্ছে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির মেয়াদ। যথাসময়েই জাতীয় সম্মেলন করতে চান দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রস্তুতি নিতে তিনি দলীয় নেতা-কর্মীদের নির্দেশনা দিয়েছেন। সে কারণে খুব একটা সময়ও পাচ্ছে না আওয়ামী লীগ। দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে এ সময়ের মধ্যে ওয়ার্ড থেকে শুরু করে তৃণমূলের সব মেয়াদোত্তীর্ণ (৪ থেকে ৫ বছরের অধিক সময়) কমিটিগুলোতে পুনরায় সম্মেলন অনুষ্ঠান এবং সম্মেলনে আগত কাউন্সিলরদের তালিকা ঠিক করে নেওয়ার নির্দেশনা রয়েছে। 

সূত্রমতে, আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় সম্মেলনকে সামনে রেখে তৃণমূলকে সংগঠিত ও সুসংহত করতে চলতি মাস এপ্রিলেই দায়িত্বপ্রাপ্ত অঞ্চলগুলোয় সাংগঠনিক সফর শুরু করছেন আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা। দেশের ৮টি বিভাগের প্রস্তাবিত কমিটিগুলোতে থাকছেন দলের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য, প্রেসিডিয়াম সদস্য থেকে শুরু করে যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক, সাংগঠনিক সম্পাদক। সাংগঠনিক এ মহাযজ্ঞ তদারক করবেন দলটির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ।  সাংগঠনিক সফরের জন্য এরই মধ্যে যাবতীয় প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছেন দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা। তবে কে কোথায় দায়িত্ব পাচ্ছেন তা এখনো না জানালেও নেতাদের মৌখিকভাবে দায়িত্ব সম্পর্কে বলে দেওয়া হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে দলটির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, চলতি মাস থেকেই জেলা সফর শুরু হবে। এই সফরে যেসব উপজেলা-জেলায় কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে, সেখানের সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি গঠন করা হবে। আগামী শুক্রবার দলের উপদেষ্টা পরিষদ এবং ২০ এপ্রিল কেন্দ্রীয় কমিটির সঙ্গে উপদেষ্টা পরিষদের যৌথসভা অনুষ্ঠিত হবে। এরপর দলীয় সভানেত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী আমরা দেশব্যাপী সফরে বের হব।

আওয়ামী লীগ নেতারা বলছেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর নানা কারণে জেলা সফর এবং সম্মেলনের প্রস্তুতি নিতে দেরি হয়েছে। এ ছাড়া চার ধাপে উপজেলা নির্বাচন হওয়ার কারণেও তৃণমূলে যেতে পারেননি দলের কেন্দ্রীয় নেতারা। সে কারণে তারা এখনই সাংগঠনিক কাজে মনোযোগী হয়েছেন। আগামী বছর (২০২০) বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী সামনে রেখে সরকারের ‘মুজিব বর্ষ’ পালনের ঘোষণা এবং ২০২১-এ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালনের মতো বৃহৎ রাষ্ট্রীয় ও দলীয় কর্মসূচি রয়েছে। সব মিলিয়ে এর আগেই সংগঠনকে গুছিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা।

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর নানা কারণে আমরা জেলা সফরে যেতে পারিনি। জাতীয় সম্মেলনকে সামনে রেখে তৃণমূলকে গতিশীল করতে এবং অভ্যন্তরীণ কোন্দল মেটাতে আমরা তৃণমূলে যাব। দলের একাধিক নেতা জানিয়েছেন, চলতি মাসেই আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সফর শুরু হচ্ছে। এই সফরে কেন্দ্রীয় নেতাদের একটি খসড়া তালিকা করা হয়েছে এবং দলীয় সভানেত্রীর কাছে জমা দেওয়া হয়েছে। সে কমিটি অনুমোদন হলেই নেতারা জেলা সফরে বের হবেন। প্রস্তাবিত কমিটিতে রংপুর বিভাগের দায়িত্বে রয়েছেন রমেশ চন্দ্র সেন, জাহাঙ্গীর কবির নানক, বিএম মোজাম্মেল, টিপু মুনশি এবং এইচ এন আশিকুর রহমান। রাজশাহী বিভাগের দায়িত্বে থাকবেন মোহাম্মদ নাসিম, জাহাঙ্গীর কবির নানক, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন, নুরুল ইসলাম ঠা ু এবং মেরিনা জাহান। খুলনা বিভাগে পীযূষ কান্তি ভট্টাচার্য, আবদুর রহমান, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, বেগম মন্নুজান সুফিয়ান, এস এম কামাল হোসেন, আমিরুল আলম মিলন এবং পারভীন জাহান কল্পনা। ঢাকা বিভাগে সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, মোজাফফর হোসেন পল্টু, কাজী জাফরউল্লাহ, সাহারা খাতুন, মুকুল বোস, আবদুল মান্নান খান, ডা. দীপু মনি, ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, হাবিবুর রহমান সিরাজ, নুরুল মজিদ হুমায়ুন, আখতারুজ্জামান, ফজিলাতুন নেছা ইন্দিরা, মৃণাল কান্তি দাস, কামরুল ইসলাম, দেলোয়ার হোসেন, আনোয়ার হোসেন, ইকবাল হোসেন অপু, সিমিন হোসেন রিমি এবং এবিএম রিয়াজুল কবির কাওছার। ময়মনসিংহ বিভাগে আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, ড. আবদুর রাজ্জাক, ডা. দীপু মনি, মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, অসীম কুমার উকিল, মোহাম্মদ আবদুস সাত্তার এবং উপাধ্যক্ষ রেমন্ড আরেং।

বরিশাল বিভাগে আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ, আবদুর রহমান, আ ফ ম  বাহাউদ্দিন নাছিম, আফজাল হোসেন, শাম্মী আহমেদ এবং শ ম রেজাউল করিম। সিলেট বিভাগে আবুল মাল আবদুল মুহিত, নুরুল ইসলাম নাহিদ, মাহবুব-উল আলম হানিফ, আহমদ হোসেন, বদরউদ্দিন আহমদ কামরান এবং অধ্যাপক রফিকুর রহমান। চট্টগ্রাম বিভাগে শেখ ফজলুল করিম সেলিম, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, আবদুল মতিন খসরু, মাহবুব-উল আলম হানিফ, ডা. দীপু মনি, মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম, ড. হাছান মাহমুদ, এ কে এম এনামুল হক শামীম, ফরিদুন্নাহার লাইলী, সুজিত রায় নন্দী, ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সবুর, আমিনুল ইসলাম, ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী, হারুনুর রশিদ এবং নজিবুল্লাহ হিরু। এ ছাড়া বিভক্ত ঢাকার দুই সাংগঠনিক অঞ্চল ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ও উত্তরের সম্মেলন সফলে সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করবেন ড. আবদুর রাজ্জাক এবং লে. কর্নেল (অব.) ফারুক খান।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর