শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ১৩ মে, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১২ মে, ২০১৯ ২৩:৫১

চলন্ত বাসে নার্স তানিয়াকে ধর্ষণ করে তিনজন

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি

চলন্ত বাসে নার্স তানিয়াকে ধর্ষণ করে তিনজন

কিশোরগঞ্জে চলন্ত বাসে নার্স তানিয়াকে জোরপূর্বক ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। বাসচালকসহ তিনজন পালাক্রমে তাকে ধর্ষণ করে। গতকাল বিকালে কিশোরগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনজনের মধ্যে বাসচালক নূরুজ্জামান ও হেলপার লালন মিয়াকে পুলিশ গ্রেফতার করলেও অপর আসামিকে ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তবে তদন্তের স্বার্থে তার নাম বলছে না পুলিশ। এরমধ্যে বাসচালক নূরুজ্জামান গত শনিবার বিকালে কিশোরগঞ্জের চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. হাবিবুল্লাহর আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে বলে প্রেস ব্রিফিংয়ে জানানো হয়। স্বীকারোক্তিতে নিজেসহ তিনজন মিলে ধর্ষণ ও হত্যার কথা স্বীকার করে নূরুজ্জামান। প্রেস ব্রিফিংয়ে আরও জানানো হয়, স্বর্ণলতা পরিবহনের বাসটিতে তানিয়াকে ধর্ষণের পর হত্যা করে বাজিতপুরের গজারিয়া বিলপাড় এলাকায় একটি কলাবাগানের পাশে মরদেহ ফেলে রাখা হয়। ডিআইজি জানান, বর্তমানে আসামিদের দেওয়া তথ্য যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। উদ্ধার করা আলামত সংগ্রহ করে ডিএনএ পরীক্ষা করা হবে। তানিয়ার মরদেহের ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এখনো পুলিশ পায়নি। ময়না তদন্তের বিষয়ে সিভিল সার্জন ডা. হাবিবুর রহমান জানান, হত্যার আগে তানিয়াকে ধর্ষণ করা হয়। মাথায় আঘাতজনিত কারণে তার মৃত্যু হয়। উল্লেখ্য, গত সোমবার তানিয়াকে ধর্ষণ ও হত্যার পর ওইদিন রাতেই পুলিশ বাসের চালক নুরুজ্জামান ও হেলপার লালন মিয়াসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করে। গত বুধবার তাদেরকে আদালতে হাজির করে আটদিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়।


আপনার মন্তব্য