শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২৩:৫১

ভয়ঙ্কর প্রতারক মশিউর ধরা পড়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক

ভয়ঙ্কর প্রতারক মশিউর ধরা পড়েছে

বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কোটি কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ‘ভয়ঙ্কর প্রতারক’ মশিউর রহমান খান (৪০) গ্রেফতার হয়েছেন।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) গতকাল রাত দেড়টার দিকে রাজধানীর সবুজবাগের মধ্য বাসাবো থেকে তাকে গ্রেফতার করে। পুলিশ তার কাছ থেকে বিপুল অঙ্কের জাল টাকা ও বৈদেশিক মুদ্রা উদ্ধার করেছে। উদ্ধার করা মুদ্রার মধ্যে ৩ লাখ ৩৬ হাজার টাকার বাংলাদেশি জাল নোট ও ৬ হাজার জাল মার্কিন ডলার রয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, জাহান গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পরিচয় দিয়ে মশিউর রহমান বিভিন্নভাবে প্রতারণা করে আসছিলেন। তার গ্রেফতারের খবর ছড়িয়ে পড়ায় প্রতারণার  শিকার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিরা গোয়েন্দা দফতরে অভিযোগ দিতে শুরু করেছেন। গত কয়েক বছরে এলজি, বসুন্ধরা গ্রুপ, বেঙ্গল, ওয়ালটনসহ বড় বড় প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নিয়েছেন মশিউর রহমান। তার বিরুদ্ধে ব্যক্তি পর্যায়ে সেনা-বিমান বাহিনীর তিনজন কর্মকর্তার অর্থ আত্মসাতের অভিযোগও পাওয়া গেছে। তাকে দুই দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। গোয়েন্দা পুলিশ জানায়, রাজধানীর বিভিন্ন থানায় মশিউরের নামে প্রতারণাসহ চেক জালিয়াতির অন্তত ৩০টি মামলা রয়েছে। এলজি, বাটারফ্লাই, ওয়ালটন গ্রুপ ও বেঙ্গল গ্রুপের দায়ের করা মামলার আসামিও তিনি। অন্তত চারটি মামলায় তার নামে গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে। ডিবি পূর্ব বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) শাহিদুর রহমান রিপন জানান, মশিউর পেশাগতভাবেই একজন প্রতারক। তিনি নিজেকে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন গ্রুপের মালিক বলে পরিচয় দিতেন। রাজধানীর বিভিন্ন জায়গায় বিলাসবহুল অফিস নিয়ে বিভিন্ন কোম্পানি ও ব্যক্তির সঙ্গে প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ হাতিয়ে নিতেন, এরপর জায়গা বদলে আবার অন্য কোথাও ভিন্ন নামে অফিস নিতেন। শুরু করতেন নতুন পন্থায় প্রতারণা। জানা গেছে, প্রতারক মশিউর অত্যন্ত বিলাসবহুল জীবনযাপন করতেন। পাঁচতারকা হোটেল ছাড়া কারও সঙ্গে মিটিং করতেন না। বিভিন্ন জায়গায় বিলাসবহুল অফিস নিয়ে কয়েক মাস পর পর তা পরিবর্তন করতেন। প্রতারণার মাধ্যমে অসংখ্য মানুষের টাকা আত্মসাৎ করেছেন তিনি।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর