শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২২ অক্টোবর, ২০২০ ২৩:৩৮

আজ মহাসপ্তমী

নিজস্ব প্রতিবেদক

আজ মহাসপ্তমী

চন্ডীপাঠ, বোধন ও দেবীর অধিবাসের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব দুর্গাপূজা। গতকাল ছিল মহাষষ্ঠী। আজ মহাসপ্তমী। আজ বেলা ১১টা ৫৭ মিনিটের মধ্যে নবপত্রিকা প্রবেশ ও সপ্তমীবিহিত পূজা সম্পন্ন হবে। পঞ্জিকামতে, গতকাল দুপুর ১টা ১৪ মিনিটে সপ্তমী শুরু হয়ে আজ বেলা ১১টা ৫৭ মিনিট পর্যন্ত স্থায়ী হবে। এই সময়ে দুর্গাদেবীর নবপত্রিকা প্রবেশ, স্থাপন ও সপ্তমী পূজা শুরু করে সম্পন্ন করতে হবে। আজ হবে প্রতিমায় প্রাণ প্রতিষ্ঠা। এবার দেবীর আগমন ঘটছে দোলায়। অর্থাৎ পৃথিবীতে মড়ক দেখা দেবে বলে বিশ্বাস সনাতন ধর্মাবলম্বীদের। দেবীর গমনাগমন রবিবার বা সোমবার হলে তাঁর যানবাহন হয় গজ অর্থাৎ হাতি। শনিবার বা মঙ্গলবার হলে তিনি চড়েন ঘোটকে অর্থাৎ ঘোড়ায়। বৃহস্পতিবার বা শুক্রবার হলে তিনি দোলায় যাতায়াত করেন। আর বুধবার হলে তাঁর যাতায়াতের যানবাহন হয় নৌকা। দেবী যাবেন গজে। দেবী গজে গমনাগমন করলে পৃথিবীতে জলের সমতা বজায় থাকে এবং শস্য ফলন ভালো হয়। সুখ-সমৃদ্ধিতে পরিপূর্ণ থাকে মর্ত্যভূমি।

ষষ্ঠীতে দেবীর অধিবাস ও আবাহনের মধ্য দিয়ে পূজা শুরু হয়েছে। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ঘরে ঘরে এখন পূজার ধুম। রংবেরঙের পোশাক পরে বিভিন্ন বয়সের মানুষ  আসছেন মন্ডপে মন্ডপে। তবে করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে উৎসবে ভাটা পড়েছে। মাস্ক পরে মন্ডপে প্রবেশের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। সন্ধ্যায় আরতির পরই বন্ধ করে দেওয়া হবে পূজামন্ডপ। থাকছে না সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও ধুনুচি নাচের প্রতিযোগিতা। অঞ্জলিও দেওয়া হবে ভার্চুয়ালি। পূজামন্ডপগুলোয় আলোকসজ্জায় তেমন জৌলুস নেই।

 গতকাল রাজধানীর গুলশান-বনানী সর্বজনীন পূজামন্ডপে মাস্ক পরে আসতে দেখা গেছে দর্শনার্থীদের। জনসমাগম নিয়ন্ত্রণ করছেন স্বেচ্ছাসেবীরা। বসুন্ধরা সর্বজনীন পূজামন্ডপ সাজানো হয়েছে সাদামাটাভাবে। করোনা মহামারীর কারণে এ বছর কোনো সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেনি পূজা কমিটি। এ বছর সাত্ত্বিক পূজায় সীমাবদ্ধ থাকছে, মহামারীর কারণে থাকছে না উৎসব আয়োজন। এ বছর প্রসাদ বিতরণেও থাকছে নিষেধাজ্ঞা।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর