বৃহস্পতিবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা

আট দিনেও সন্ধান নেই নালায় নিখোঁজ ব্যবসায়ীর

রেজা মুজাম্মেল, চট্টগ্রাম

আট দিনেও সন্ধান মেলেনি চট্টগ্রামের চকবাজারের সবজি ব্যবসায়ী সালেহ আহমেদের। ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি ও বিশেষ অনুসন্ধানি টিম দফায় দফায় তল্লাশি চালালেও তাকে উদ্ধার করতে পারেনি জীবিত কিংবা মৃত অবস্থায়।

জানা যায়, ২৫ আগস্ট চট্টগ্রাম নগরজুড়ে পানি থইথই। ড্রেন-নালা-সড়ক পানিতে একাকার। সড়কের কোনো চিহ্নই থাকেনি। এর মধ্যে পুরো নগরই ছিল নিরাপত্তা বেষ্টনীবিহীন  ছোট-বড় নালা-নর্দমা। এসব নালার ওপর নেই স্লাব বা ব্যারিয়ার। চরম ঝুঁকি নিয়েই চলাচল করে পথচারী ও যানবাহন। এমন পরিস্থিতিতে ওইদিন বেলা ১১টায় মুরাদপুর মোড়ে ডুবে থাকা নালায় পা পিছলে পড়ে যান নগরীর চকবাজারের সবজি ব্যবসায়ী সালেহ আহমেদ। নিমিষেই হারিয়ে যান তিনি। এরপর টানা আট দিন তল্লাশি চালিয়েও তার খোঁজ মেলেনি। গতকালের অভিযানে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিদলসহ ১৫ জন অংশ নেয়।

নিখোঁজ ব্যবসায়ীর ছেলে পটিয়ার মনমা গ্রামের সাদেক উল্লাহ মাহিন বলেন, ‘উন্মুক্ত নালায় পড়ে আমার বাবা নিখোঁজ হলেন। মুহূর্তেই তিনি নাই হয়ে গেলেন। এটি কেমন কথা। অথচ নালাগুলোর পাশে নিরাপত্তা বেষ্টনী থাকলে এমন দুর্ঘটনা ঘটত না। তাছাড়া পরিষ্কার থাকলেও পানি গড়িয়ে অপর প্রান্ত দিয়ে বের হয়ে আসত। অথচ এমন অমানবিক বিষয় নিয়ে ফায়ার সার্ভিস ছাড়া আর কারও দায়িত্বশীল ভূমিকা দেখি না। তবে আমরা বাবার লাশটি চাই। এটিই আমাদের সান্ত্বনা।’ চট্টগ্রাম ফায়ার সার্ভিসের পরিদর্শক শামসুল আলম বলেন, ‘বুধবার সকাল থেকে অষ্টম দিনের মতো তল্লাশি চালিয়েও তার সন্ধান মেলেনি। নিখোঁজের লাশ কোনো কারণে ময়লায় বা কোনো গর্তে চেপে রয়েছে কি না তা দেখা হচ্ছে। এমনকি নালায় নেমেও তল্লাশি টিম অনুসন্ধান করেছে। মুরাদপুর থেকে কর্ণফুলী নদীর মোহনা পর্যন্ত তল্লাশি চালানো হয়েছে।’ জানা যায়, চট্টগ্রাম নগরের ষোলশহর চশমা হিল এলাকায় গত ৩০ জুন অটোরিকশা খালে পড়ে তিনজন নিখোঁজ হন। পরে চালকসহ দুইজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। গত ১৯ জুন চান্দগাঁও বি-ব্লক এলাকায় জলাবদ্ধ সড়কে অটোরিকশায় তিন নারী যাচ্ছিলেন কর্মস্থলে। থইথই পানিতে চালক সড়ক আর নালা চিহ্নিত করতে না পারায় অটোরিকশাটি পড়ে যায়। পথচারীদের সহায়তায় তিনজনকে জীবিত উদ্ধার করা গেলেও তারা আহত হন। এভাবে নগরের নালা-নর্দমা এবং সড়কের পাশে থাকা খালগুলো এখন মৃত্যুফাঁদে পরিণত হয়েছে। বৃষ্টি হলেই ডুবে যায় নগর। পানিতে একাকার হয়ে যায় সড়ক-নালা-নর্দমা ও ছোট ছোট খাল। এসব খাল-নালায় রিকশা, অটোরিকশা, ভ্যান উল্টে হতাহতের ঘটনা ঘটছে। পথচারী ও যানবাহন পড়ে ঘটছে দুর্ঘটনা।