শিরোনাম
শনিবার, ৮ জুলাই, ২০২৩ ০০:০০ টা
একসঙ্গে জানাজা দাফন

মেয়ের কফিনের সামনেই মায়ের মৃত্যু

পাথরঘাটা (বরগুনা) প্রতিনিধি

মেয়ের মৃত্যুর খবর আগেই জেনেছিলেন মা। ঘরে বসে আহাজারি আর প্রার্থনা করছিলেন মেয়ের জন্য। কিছুক্ষণ পর একবার কলিজার টুকরা মেয়েটির মুখ দেখার জন্য স্বজনদের সহযোগিতায় ঘর থেকে উঠানে রাখা কফিনের পাশে আসেন মা। একপর্যায়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন মা তন্বী বেগম (২২)।

এমন মৃত্যু যেন কেউ মানতেই পারছেন না। পুরো এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। মর্মান্তিক এ ঘটনা বরগুনার পাথরঘাটায়। তিন মাস বয়সী কন্যা রাফিয়ার মৃত্যুর শোক সইতে না পেরে মা তন্নী বেগমের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে মা ও সন্তানের জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাদের দাফন করা হয়। এর আগে বুধবার রাত ৮টার দিকে রাফিয়ার এবং পরের দিন বৃহস্পতিবার সকালে মা তন্নী বেগমের মৃত্যু হয়। একই সঙ্গে মা-মেয়ের জানাজা আর দাফনে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। এ মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার কালমেঘা ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের উত্তর কুপধন এলাকায়। মৃত তন্নী বেগম একই এলাকার করম পহলানের ছেলে মো. রিয়াজের স্ত্রী। তাদের সংসারে রাফিয়া প্রথম সন্তান। রাফিয়ার বাবা মো. রিয়াজ পহলান জানান, ৪ জুলাই রাফিয়ার শরীরে জ্বর দেখে স্থানীয় ফার্মেসিতে নিলে সেখান থেকে শিশু চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয় রাফিয়ার বাবা রিয়াজকে। সেখান থেকে বরগুনার শিশু বিশেষজ্ঞ সোহরাব হোসেনের কাছে নিয়ে যান তারা। চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরলে রাফিয়া কিছুটা সুস্থ হয়। পরে আবারও তার জ্বর বেড়ে যায়। বুধবার সন্ধ্যার দিকে বেশি অসুস্থ হয়ে পড়লে দ্রুত পাথরঘাটা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়ার পথে রাফিয়ার মৃত্যু হয়। পরে লাশ বাড়িতে নিয়ে পরের দিন সকালে দাফনের জন্য রাখা হয়। সকালে মা তন্নী বেগম তার শ্বশুর করম পহলানকে তার জন্য দুই রাকাত নামাজ পড়ে দোয়া করার কথা বলে সন্তানের মুখটা শেষবারের মতো দেখতে লাশের কফিনের সামনে গিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। ঘটনাস্থলেই মা তন্নী বেগম মারা যান। ইউপি সদস্য গোলাম মোস্তফা জানান, ঘটনাটি মর্মান্তিক, শুনে খুবই খারাপ লেগেছে। এ শোক সইবার মতো নয়।

সর্বশেষ খবর