শিরোনাম
রবিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০২৩ ০০:০০ টা

ফল ফসলে জেগে উঠেছে সম্ভাবনার পাহাড়

শিমুল মাহমুদ, পার্বত্যাঞ্চল থেকে ফিরে

ফল ফসলে জেগে উঠেছে সম্ভাবনার পাহাড়

খাগড়াছড়ির গুঁইমারা বাজারে ২৮ নভেম্বর সকালে পাহাড়ি ফল-ফসলের বিশাল আড়ত দেখে মনে হলো, এ যেন আরেক কারওয়ান বাজার। জায়গায় জায়গায় কলার কাদির বিশাল স্তূপ। পাকা কলা, কাঁচা (তরকারির) কলা। আনারস, পেঁপের বড় বড় স্তূপ। রয়েছে নানা রকমের সবজি। পাহাড়ি অঞ্চল থেকে কৃষকরা নিয়ে এসেছেন এই পাইকারি বাজারে। তিন পার্বত্য জেলার উন্নয়নে বিস্তৃত সড়ক নেটওয়ার্ক গড়ে তোলায় কৃষকরা এখন তাদের উৎপাদিত ফল-ফসলের ভালো দাম পাচ্ছেন। ফলে, এক সময়ের জুমনির্ভর কৃষি ব্যবস্থা পাল্টে উচ্চমূল্যের ফল-ফসলে মনোযোগী হচ্ছেন পাহাড়ের কৃষক। গড়ে উঠেছে মিশ্র ফল বাগান। ব্যাপক হারে চাষ হচ্ছে কাজুবাদাম। গড়ে উঠেছে কাজু প্রক্রিয়াজাত প্লান্ট। পার্বত্য শান্তিচুক্তি পরবর্তী আড়াই দশকে সরকারের পাহাড়কেন্দ্রিক উন্নয়নের ফলে বদলে গেছে পাহাড়ি মানুষের জনজীবন।

যোগাযোগ ব্যবস্থা আধুনিকায়নের কারণে এখন তিন পার্বত্য জেলার আর্থ-সামাজিক অবস্থা বদলে গেছে। পার্বত্যবাসী তাদের উৎপাদিত ফল-ফসলের ন্যায্যমূল্য পাচ্ছে। গত ২৬ বছরে তিন জেলায় প্রচুর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হয়েছে। স্থানীয়দের আয়বর্ধক বিভিন্ন কর্মসূচি চালু হয়েছে। পাহাড়ে এখন হাজার হাজার হেক্টর জমিতে মিশ্র ফলের বাগান হয়েছে। কফি ও কাজুবাদামের চাষ বাড়ছে। পাহাড় থেকে এখন প্রতিদিন শত শত ট্রাক মৌসুমি ফল ও সবজি আসছে সমতলে। দেশের মোট আয়তনের ১০ ভাগ নিয়ে তিন পার্বত্য জেলা এখন জাতীয় অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখতে শুরু করেছে। এর পরিমাণ বাড়তেই থাকবে।

পার্বত্য পথে চলাচলের সময় সড়কের পাশে কলার কাদি, পেঁপে, আনারস, আম, কাঁঠালের স্তূপ নিয়ে কৃষকদের ট্রাকের অপেক্ষায় থাকতে দেখা যায়। প্রতিদিন এসব ফল-ফসল সংগ্রহ করে শত শত ট্রাক পাহাড় থেকে সমতলে নেমে আসে। এক সময় পাহাড়ে ছিল না তেমন কোনো সড়ক নেটওয়ার্ক। বিদ্যুৎহীন অন্ধকারে নিমজ্জিত ছিল পাহাড়ের প্রত্যন্ত অঞ্চল। সেখানে এখন শান্তিচুক্তি পরবর্তী ২৬ বছরে বিস্তৃত সড়ক নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা হয়েছে। সীমান্তবর্তী দুর্গম পার্বত্য এলাকায় গড়ে তোলা হচ্ছে হাজার কিলোমিটারের বেশি সীমান্ত সড়ক। তিন জেলায় চুক্তি পার্বতী সময়ে ১ হাজার ২১২ কিলোমিটার পাকা সড়ক নির্মাণ করা হয়েছে। কাঁচা রাস্তা করা হয়েছে ৭০০ কিলোমিটার। সংস্কার করা হয়েছে ৬১৪ কিলোমিটার রাস্তা। এ সময় ৯ হাজার ৮৩৯টি ব্রিজ এবং ১৪১টি কালভার্ট তৈরি করা হয়েছে। এসব অবকাঠামো নির্মাণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। অভ্যন্তরীণ সড়ক নেটওয়ার্কের পাশাপাশি ২০৫ কিলোমিটার সীমান্ত সড়ক নির্মাণ করা হয়েছে সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে।

এর ফলে দুর্গম পার্বত্য এলাকাগুলো নিরাপত্তা বাহিনীর নজরদারির আওতায় চলে এসেছে। সহজ হয়েছে সাধারণ মানুষের চলাচল এবং তাদের উৎপাদিত ফল ফসলের পরিবহন। যোগাযোগ ব্যবস্থা নিশ্চিত হওয়ায় পাহাড়ে এখন বাণিজ্যিক ভিত্তিতে ফল-ফসলের চাষাবাদ বাড়ছে। স্থানীয় উদ্যোক্তারা কৃষি খাতে বিনিয়োগ বাড়িয়েছেন। পার্বত্য চুক্তিকে সামনে রেখে সম্প্রতি খাগড়াছড়ি এবং রাঙামাটির বিভিন্ন এলাকা ঘুরে বদলে যাওয়া পাহাড়ের দৃশ্যপট চোখে পড়ে। রাঙামাটি চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি মো. আবদুল ওয়াদুদ বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে ফল উৎপাদনের ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে, যা পুরোপুরি কাজে লাগানো যাচ্ছে না। চলতি মৌসুমে শুধু রাঙামাটি জেলাতেই আম, কলা, আনারস, লিচু ও কাঁঠাল উৎপাদিত হয়েছে ৪ লাখ ৭০ হাজার মেট্রিক টন। এ পাঁচ ফলের বাজারমূল্য ১ হাজার ২০০ কোটি টাকা। তিনি বলেন, শুধু মৌসুমি ফল চাষ করেই তিন জেলায় কয়েক হাজার কোটি টাকা আয় করা সম্ভব। এখানে ফল সংরক্ষণের ব্যবস্থা ও প্রক্রিয়াজাত করার কারখানা স্থাপনেরও সুযোগ রয়েছে।

উল্লেখ্য, ভারতের মিজোরাম ও ত্রিপুরা সীমান্তে সড়ক উন্নয়নের কাজ চলছে। সড়ক নির্মিত হলে উৎপাদিত কৃষিপণ্য সহজে বাজারজাত করা যাবে। একই সঙ্গে ভারতের মিজোরাম রাজ্যের সঙ্গে ঠেগামুখে স্থলবন্দর নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ পয়েন্টে স্থলবন্দর নির্মিত হলে তিন পার্বত্য জেলার সঙ্গে ব্যবসা-বাণিজ্য বিস্তৃত হবে। এদিকে ব্যাপক সম্ভাবনা সত্ত্বেও পার্বত্য অঞ্চলে বড় শিল্প কারখানা গড়ে ওঠেনি। এর মূল কারণ হিসাবে বলা হচ্ছে, ব্যাংক ঋণের সুবিধা না থাকা। সে জন্য বড় ধরনের ব্যবসা সেখানে হচ্ছে না। পার্বত্য চট্টগ্রামে ২ কোটি টাকার বেশি ব্যাংক ঋণ দেওয়া হয় না। তাতেও নানা শর্ত দেওয়া হয়। সারা দেশের মতো সহজ শর্তে ও বেশি ঋণ দেওয়া হলে অনেক উদ্যোক্তা সৃষ্টি হবে এবং স্থানীয় কর্মসংস্থান বাড়বে। একসময় পাহাড়িরা জুম চাষের ওপর নির্ভরশীল ছিল। এখন মানুষের আয়ের উৎস বাঁশ, গাছ, পর্যটন ও উৎপাদিত কৃষিপণ্য।

খাগড়াছড়ির জেলা প্রশাসক মো. সহিদুজ্জামান বলেন, পার্বত্য চুক্তির পর বাঙালি এবং পাহাড়িদের মধ্যে আস্থার পরিবেশ তৈরি হয়েছে। এখন পাহাড়ে শান্তির পরিবেশ ফিরে এসেছে। সরকারের ধারাবাহিক প্রচেষ্টায় স্বাস্থ্য, শিক্ষা, কৃষি, পর্যটন খাতে প্রভূত উন্নয়ন হয়েছে। ফলে পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর জীবনে সমৃদ্ধির ছোঁয়া লেগেছে। অর্থনীতিতে গতি সঞ্চার হয়েছে।

পার্বত্য অঞ্চল গবেষক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ কল্যাণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক ড. তৌহিদুল হক বলেন, দেশের পার্বত্য অঞ্চলে অপার সম্ভাবনা লুকিয়ে আছে। সেখানকার পর্যটন খাত, কৃষি ও ফলদ চাষাবাদ-উৎপাদনের ক্ষেত্রে নতুন নতুন সম্ভাবনা দেখা দিচ্ছে।

পাহাড়ি অঞ্চলে উৎকৃষ্টমানের ড্রাগন, কাজু বাদাম, কমলা-মাল্টা, আনারস, আম, কলাসহ নানা কৃষি ও ফল-ফলাদি উৎপাদন হতে শুরু করেছে। এমনকি সেখানে ভালো মানের কফি উৎপাদন শুরু হয়েছে। কৃষি সম্ভাবনার কারণে সেখানে অনেক প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে উঠতে পারে। এতে স্থানীয়দের কর্মসংস্থান বাড়বে, জাতীয় অর্থনীতিতেও এটা বড় ভূমিকা রাখবে।

সর্বশেষ খবর