শিরোনাম
প্রকাশ : ২২ জানুয়ারি, ২০২১ ১৮:০৫
আপডেট : ২২ জানুয়ারি, ২০২১ ২১:৪৭
প্রিন্ট করুন printer

ভোটের মাঠে জনতার প্রিন্স

আহমেদ আল আমীন

ভোটের মাঠে জনতার প্রিন্স
লুৎফুল কবির প্রিন্স

প্রার্থী ও ভোটারের সরব পদচারণায় জমে উঠেছে ঝালকাঠির নলছিটি পৌরসভার নির্বাচন। পোস্টারিং ও লিফলেট বিতরণ এবং উঠোন বৈঠকের মতো বিভিন্ন মাধ্যমে প্রচার-প্রচারণা ও গণসংযোগে এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন প্রার্থীরা। প্রচণ্ড শীতকে উপেক্ষা করে যাচ্ছেন ভোটারের দ্বারে দ্বারে। ৩০ জানুয়ারি এই পৌরসভার নির্বাচনে ভোট গ্রহণের কথা রয়েছে। 

তবে অনেক প্রার্থীর মাঝে একজন বিশেষভাবে সবার নজরে এসেছেন। সবার আগ্রহের কেন্দ্রে উঠে এসেছেন এই প্রার্থী। তিনি লুৎফুল কবির প্রিন্স, ডালিম প্রতীকে ২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী। সমাজসেবক, দানবীর ও শিক্ষানুরাগী হিসেবে স্থানীয় পর্যায়ে তার বিশেষ পরিচিতি রয়েছে।     

ঝালকাঠি সরকারি কলেজ থেকে প্রাতিষ্ঠানিক পড়াশোনা শেষ করে সক্রিয় রাজনীতির মাঠে নামেন লুৎফুল কবির প্রিন্স। নলছিটি পৌর এলাকাস্থ নাঙ্গুলির বিখ্যাত মুন্সি বাড়ির সন্তান প্রিন্সের আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে পরিচয় ও সখ্যতা মূলত পারিবারিকভাবেই। প্রায় তিন যুগের সামাজিক ও রাজনৈতিক কর্মতৎপরতায় তিনি এখন স্থানীয়দের কাছে আস্থা ও বিশ্বাসের একটি নাম। তাই ভোটাররাও জবাব দিচ্ছেন ব্যালটে।  

বর্তমানে তিনি নলছিটি পৌর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। দীর্ঘ রাজনৈতিক ক্যারিয়ারে এলাকায় বিভিন্ন অবকাঠামোগত উন্নয়ন, ধর্মীয় ও সামাজিক কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ করেছেন লুৎফুল কবির প্রিন্স। এলাকায় শিক্ষা বিস্তার, মাদক ও দারিদ্র্যমুক্ত সমাজ গঠনেও তার বিশেষ ভূমিকা রয়েছে। স্থানীয় দরিদ্র মানুষের চিকিৎসার খরচ মেটানোর ক্ষেত্রে ভরসার একটি নাম প্রিন্স। গরীব শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার ক্ষেত্রে তিনি আর্থিক সহযোগিতা করেন। প্রায় এক দশক ধরে নাঙ্গুলি মাটিভাঙ্গা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি হিসেবে তিনি দায়িত্ব পালন করছেন। 

এ সময়ে স্কুলের জন্য আধুনিক লাইব্রেরি ভবন ও শিক্ষক মিলনায়তন এবং স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা নির্মাণসহ স্কুলের শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন। স্কুল পরিচালনায় তার এই সফলতায় ভরসা পেয়ে পার্শ্ববর্তী ১ নম্বর ওয়ার্ডের নিজামিয়া দাখিল মাদরাসার পরিচালনা পর্ষদেরও সভাপতি পদে দায়িত্ব দেওয়া হয় তাকে। এই দুটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সফলভাবে দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে তিনি শিক্ষানুরাগী হিসেবেও এলাকায় সমাদৃত। এছাড়া প্রিন্স নলছিটি সরকারি ডিগ্রি কলেজের গভর্নিং বডিরও সদস্য।

দুর্নীতির বিরুদ্ধে বলিষ্ঠ অবস্থান ও ক্লিন ইমেজের রাজনীতি চর্চার জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্য আমির হোসেন আমুর একান্ত আস্থা ও স্নেহভাজন তিনি। 

এর আগেও কাউন্সিলর হিসেবে দুবার দায়িত্ব পালন করেছেন প্রিন্স। এ সময়ে তার গৃহীত বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের মধ্যে রয়েছে আখরপাড়া থেকে তালুকদার বাজার পর্যন্ত দক্ষিণ নাঙ্গুলিতে আড়াই কিলোমিটার কাঁচা রাস্তা পাকা। এছাড়া মল্লিক বাড়ি থেকে ছয় ঘরের রাস্তা পর্যন্ত প্রায় তিন কিলোমিটার কাঁচা রাস্তা পাকা। কাউন্সিলর হিসেবে তার আমলে এলাকায় প্রায় ২০টি কালভার্ট নির্মাণ করা হয়েছে। 

নাঙ্গুলির স্থানীয় বাসিন্দা ফয়সাল মাহমুদ বলেন, প্রিন্স এরই মধ্যে প্রমাণ করেছেন তিনি জনগণের নেতা। তিনি শুধু নির্বাচনের আগেই ভোটারের কাছে আসেন না, ভোটের পরেও তাকে পাওয়া যায়। এর আগেও তিনি নির্বাচিত হয়ে এলাকায় ব্যাপক উন্নয়নমূলক কাজ করেছেন। অসমাপ্ত কাজের সমাপ্তি ও উন্নয়নের ধারাবাহিকতার জন্য এবারও তাকে সবার ভোট দেওয়া উচিত। 

এবারের নির্বাচনে এই ওয়ার্ডে আড়াই হাজারের বেশি ভোটার। প্রার্থী আছেন আরো তিনজন। তারা হলেন আবদুল কুদ্দুস তালুকদার, গোলাম রাব্বী ও নুরে আলম হাওলাদার। তবে রাজনৈতিক তৎপরতা, উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড ও বলিষ্ঠ ভূমিকাসহ বিভিন্ন কারণে ভোটাররা প্রার্থী হিসেবে প্রিন্সকেই এগিয়ে রাখছেন। 

বিডি প্রতিদিন/আল আমীন


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর