শিরোনাম
প্রকাশ : ৭ মে, ২০২১ ১৯:১৯
প্রিন্ট করুন printer

তিনি ফিরে এসেছিলেন বলেই

ড. কাজী এরতেজা হাসান

তিনি ফিরে এসেছিলেন বলেই
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
Google News

৭ মে, ২০০৭। সময়টা ছিল বাংলাদেশের ইতিহাসের কলঙ্কিত এক সময়ের। তখন সারাদেশে অবৈধভাবে ক্ষমতায় থাকা মঈন ইউ আহমেদ এবং ফখরুদ্দিনের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অন্যায়ের নাগপাশ চারিদিকে। ২০০৭ সালের আজকের এই দিন গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে শেখ হাসিনার বাংলাদেশে ফিরে আসার দিন। 

২০০৭ সালের এ দিনে তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ঘোষিত জরুরি অবস্থার সময়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে চিকিৎসা শেষে শত প্রতিকূলতাকে উপেক্ষা করে অমিত সাহস দেখিয়ে বাংলাদেশে ফিরে আসেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। সেই থেকে পথ চলা শুরু। সেদিন তিনি ফিরে এসেছিলেন বলেই, বাংলাদেশ আজ বিশ্বের বুকে উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত হয়েছে। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা জননেত্রী ও বিশ্বনেত্রীতে পরিণত হয়েছেন। জাতির পিতার রেখে যাওয়া অসমাপ্ত কাজগুলোকে নিরবচ্ছিন্নভাবে শেষ করে স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে কাজ করে যাচ্ছেন নিরলসভাবে। 

একটু অতীতে ফিরে গেলেই দেখতে পাই: যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফেরার আগে, আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দেশে ফিরতে তদানীন্তন তত্ত্বাবধায়ক সরকার নিষেধাজ্ঞা জারি করে। কিন্তু তিনি নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে দেশে ফেরার ঘোষণা দেন। এই নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে বিশ্বব্যাপী। স্বদেশ প্রত্যাবর্তনে তার ঐকান্তিক দৃঢ়তা, সাহস ও গণতন্ত্রকামী দেশবাসীর চাপে তদানীন্তন তত্ত্বাবধায়ক সরকার নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে বাধ্য হন। পরবর্তী সময় ৭ মে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঢাকায় ফিরে এলে লাখো জনতা তাকে সাদর অভ্যর্থনা জানায়। ঢাকা বিমানবন্দর থেকে মিছিল শোভাযাত্রা সহকারে বঙ্গবন্ধু কন্যাকে ঐতিহাসিক বঙ্গবন্ধু ভবনে নিয়ে আসে। দেশে ফিরে জনগণের হারানো গণতান্ত্রিক অধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠায় শুরু করেন নবতর সংগ্রাম।

তত্ত্বাবধায়ক সরকার ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই শেখ হাসিনাকে সাজানো মামলায় গ্রেফতার করে। ২০০৮ সালের ১১ জুন প্যারোলে মুক্তি পাওয়ার আগ পর্যন্ত তাকে কারান্তরীণ রাখা হয়। প্যারোলে মুক্তি পেয়ে চিকিৎসার জন্য বিদেশ গমন এবং চিকিৎসা শেষে ৪ ডিসেম্বর দেশে ফিরে আসেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। অতঃপর তার সাহসী ও দূরদর্শী নেতৃত্বে ব্যাপক আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার হয়। আন্দোলনের মুখে জাতীয় সংসদ নির্বাচন দিতে বাধ্য হয় জোরপূর্বক রাষ্ট্র ক্ষমতায় চেপে বসা তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার। ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নবম জাতীয় সংসদের নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট।

শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের দিন ৭ মে উপলক্ষে প্রতিবছর আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত হয়। কিন্তু এ বছর বৈশ্বিক মহামারি করোনার কারণে সৃষ্ট সংকটে শেখ হাসিনার নির্দেশে সব ধরনের জনসমাগমপূর্ণ রাজনৈতিক কর্মসূচি পরিহার করে আসছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ।

দিনটি উপলক্ষে বাঙালির চিরঞ্জীব আশা ও অনন্ত অনুপ্রেরণার উৎস জননেত্রী শেখ হাসিনার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে ঘরে বসেই পরম করুণাময়ের নিকট বিশেষ দোয়া ও প্রার্থনা করার জন্য দলের ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী এবং দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে আওয়ামী লীগ। একই সাথে শেখ হাসিনার নির্দেশনা প্রতিপালনের মধ্য দিয়ে করোনা সংকট মোকাবিলায় চলমান কর্মোদ্যোগকে আরো গতিশীল করে প্রিয় নেত্রীর প্রতি ভালোবাসা ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে আওয়ামী লীগ। 

বাংলাদেশের রাজনীতির ইতিহাসে আজকের দিনটির গুরুত্ব একেবারেই আলাদা। করোনার অভিঘাত বাদ দিলে আজকের বদলে যাওয়া বাংলাদেশের যোগসূত্র আছে এই দিনটির সঙ্গে। আমরা একটু আজকের বাংলাদেশের দিকে তাকাই। অর্জনগুলো দেখি। স্বাধীনতা-পরবর্তী ৫০ বছরে বাংলাদেশের অর্জন তো কম নয়। মধ্যমআয়ের দেশটি পোশাকশিল্পে বিপ্লব ঘটিয়েছে।

শিক্ষা, জন্ম নিয়ন্ত্রণ ও শিশু-মাতৃ মৃত্যুর হার নিয়ন্ত্রণ, নারীর ক্ষমতায়ন, চিকিৎসা, খেলা, তথ্য-প্রযুক্তি, পাটের জিনতত্ত্ব আবিষ্কার ও কৃষি-মৎস্য উৎপাদনে পেয়েছে অনন্য সাফল্য। জন্মের ৫০ বছরেরও কম সময়ের মধ্যে দ্রুতগতিসম্পন্ন বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণের সফলতা দেখিয়েছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ এখন নিতে পারে মেগা প্রকল্পের দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা। অর্জন করেছে সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্য। এসডিজি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, লিঙ্গ সমতা, কৃষি, দারিদ্র্যসীমা হ্রাস-ইত্যাদি বিষয়ে কাজ হচ্ছে। বৃদ্ধি পেয়েছে আয়ু। রফতানিমুখী শিল্পায়ন বেড়েছে। ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল উন্নয়নে কাজ হচ্ছে। পদ্মাসেতু, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র, পায়রা গভীর সমুদ্র বন্দর, ঢাকা মেট্রোরেলসহ দেশের মেগা প্রকল্পসমূহ বাস্তবায়িত হলে বদলে যাবে দেশের চেহারা। 

ক্ষুদ্র আয়তনের একটি উন্নয়নশীল দেশ হয়েও বাংলাদেশ এরই মধ্যে সারা বিশ্বের কাছে প্রাকৃতিক দুর্যোগের নিবিড় সমন্বিত ব্যবস্থাপনা, ক্ষুদ্র ঋণের ব্যবহার এবং দারিদ্র্য দূরীকরণে তার ভূমিকা, জনবহুল দেশে নির্বাচন পরিচালনায় স্বচ্ছ ও সুষ্ঠুতা আনয়ন, বৃক্ষরোপণ, সামাজিক ও অর্থনৈতিক সূচকের ইতিবাচক পরিবর্তন প্রভৃতি ক্ষেত্রে অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত হয়ে দাঁড়িয়েছে। ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্নকে বাস্তবতায় রূপ দিতে বাংলাদেশ সরকার নিয়েছে যুগান্তকারী সব পদক্ষেপ। দেশের তৃণমূল পর্যায়ে প্রযুক্তির ব্যবহারের মাধ্যমে সরকারি সেবা পৌঁছে দেওয়ার অভিপ্রায়ে দেশের ৪৫৫০টি ইউনিয়ন পরিষদে স্থাপন করা হয়েছে ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার। তৈরি করা হয়েছে বিশ্বের অন্যতম বিশাল ন্যাশনাল ওয়েব পোর্টাল। কেন্দ্রীয় পর্যায় থেকে শুরু করে ইউনিয়ন পর্যায় পর্যন্ত এ পোর্টালের সংখ্যা প্রায় ২৫০০০। দেশের সব উপজেলাকে আনা হয়েছে ইন্টারনেটের আওতায়।

১৯৯০-৯১ অর্থ-বছরে যেখানে প্রবৃদ্ধির হার ছিল মাত্র ৩.৪ শতাংশ, ২০০৮-০৯ অর্থবছরে তা এসে দাঁড়িয়েছিল ৫.৭ শতাংশে। ২০১৮-১৯ অর্থ-বছরে সেটি দাঁড়িয়েছে ৮.১ শতাংশে। করোনাকালীন সময়েও বিশ্বের অনেক ধনী রাষ্ট্র যেখানে প্রবৃদ্ধি ইতিবাচক ধরে রাখতে পারেনি। সেখানে শেখ হাসিনার সরকার এখনো প্রবৃদ্ধি ইতিবাচক ধারায় রেখেছে। করোনাকালীন সময়ে জীবন-জীবিকা একসাথে চালিয়ে নিয়ে জনবসতিপূর্ণ এই বাংলাদেশের সক্ষমতা বিশ্বকেও অবাক করেছে।  ইতিমধ্যেই বাংলাদেশের প্রবাসী আয় ৪৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ছাড়িয়েছে। এসব অর্জনে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

আজ আমাদের কৃষিচিত্র হয়ে উঠেছে ঐশ্বর্যমণ্ডিত, গ্রামীণ জীবন হয়ে উঠেছে নানা বর্ণ-রেখায় উজ্জ্বল। মহান মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্ন ও অঙ্গীকার বাস্তবায়নে স্বাধীন জাতি হিসেবে আমাদের প্রচেষ্টায় আজ আমরা এই স্তরে উঠে এসেছি। এখন আমাদের মাথাপিছু চাষযোগ্য জমি কমে দাঁড়িয়েছে মাত্র দশমিক ৮ হেক্টরে। জনসংখ্যা হয়েছে ১৭ কোটির কাছাকাছি। এই অবস্থা সত্ত্বেও আমরা গত বছর প্রায় চার কোটি ৪৬ লাখ টন দানাজাতীয় খাদ্য উৎপাদন করেছি, যা পঞ্চাশ বছর আগের তুলনায় প্রায় সাড়ে তিনগুণ। আমাদের মোট জাতীয় আয় ১৯৭২ সালের তিন বিলিয়ন ডলার থেকে এ বছর ৩৩ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত হয়েছে, যার শতকরা ১৫ ভাগ এসেছে কৃষি থেকে। কৃষিতে বাংলাদেশের সাফল্য ঈর্ষণীয়। কৃষি বাংলাদেশের অর্থনীতির অন্যতম চালিকাশক্তি। জীবন-জীবিকার পাশাপাশি আমাদের সার্বিক উন্নয়নে কৃষি ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে। তাই কৃষির উন্নয়ন মানে দেশের সার্বিক উন্নয়ন। টেকসই কৃষি উন্নয়নে সরকারের প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। কৃষি ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সময়োপযোগী পদক্ষেপ এবং দিক-নির্দেশনায় খোরপোষের কৃষি আজ বাণিজ্যিক কৃষিতে রূপান্তরিত হয়েছে। খাদ্য-শস্য উৎপাদন, টেকসই খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ, কর্মসংসস্থান ও রফতানি বাণিজ্যে কৃষি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। জনসংখ্যা বৃদ্ধি, কৃষিজমি কমতে থাকাসহ জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বন্যা, খরা, লবণাক্ততা ও বৈরী প্রকৃতিতেও খাদ্যশস্য উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে উদাহরণ। ধান, গম ও ভুট্টা বিশ্বের গড় উৎপাদনকে পেছনে ফেলে ক্রমেই এগিয়ে চলছে বাংলাদেশ। সবজি উৎপাদনে তৃতীয় আর মাছ উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে চতুর্থ অবস্থানে। মোট দেশজ উৎপাদন তথা জিডিপি’তে কৃষি খাতের অবদান ১৩ দশমিক ৬ শতাংশ। বাংলাদেশি বিজ্ঞানীদের পাটের জিনোম সিকোয়েন্স উন্মোচনের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি মিলেছে।

আর এসব কিছুই সম্ভব হয়েছে যার নেতৃত্বে, তিনি বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। ২০০৭ সালের এই দিনে তিনি ফিরে এসেছিলেন প্রিয় পিতৃভূমিতে ওয়ান ইলেভেনের কুশীলবদের রক্তচুক্ষুকে উপক্ষো করেই। আর সেই থেকে তিনি অসহায় মানুষের ত্রাতা। তিনিই দিক-নির্দেশক, অর্থনৈতিক মুক্তির অগ্রযাত্রায় বিপ্লবের নেতৃত্ব দিয়েছেন তিনি। ভয়কে জয় করে সেদিন তিনি ফিরে এসেছিলেন বলেই বাংলাদেশ আজ এই করোনা সংকটেও মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে। 

বাংলাদেশের ইতিবাচক পরিবর্তনের অগ্রনায়ক তিনি। তাকে ঘিরেই সুন্দর আগামীর স্বপ্ন দেখে বাংলাদেশ। আমাদের অভিবাদন গ্রহণ করুন প্রিয় নেত্রী। তবে পরিশেষে একটি কথা বলতেই চাই, ওয়ান ইলেভনের দুঃসময়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের গুটি কয়েক নেতা বিপথে চলে গিয়েছিল। তাদের বিষয়েও আপনি হয়তো ক্ষমা করে দিয়েছেন। তবে তাদের ইতিহাস মনে রেখেছেন। দুঃসময়ে যারা আপনার পাশে ছিল তাদের মূল্যায়ণ জরুরি। এটাই প্রত্যাশা করি। জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু। বাংলাদেশ চিরজীবী হোক। 

লেখক: সম্পাদক ও প্রকাশক, দৈনিক ভোরের পাতা, দ্য পিপলস টাইম
সহ-সভাপতি, সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগ
সদস্য, কেন্দ্রীয় শিল্প-বাণিজ্য উপ-কমিটি, আওয়ামী লীগ
পরিচালক, এফবিসিসিআই
প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, ইরান-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ

বিডি প্রতিদিন/আরাফাত