শিরোনাম
প্রকাশ : ২ জুলাই, ২০২১ ০৯:০৭
আপডেট : ২ জুলাই, ২০২১ ১০:৫৫
প্রিন্ট করুন printer

আসা-যাওয়ার পথের ধারে

হোসেন আবদুল মান্নান

আসা-যাওয়ার পথের ধারে
হোসেন আবদুল মান্নান
Google News

চলন্ত গাড়িতে বসে বাইরে অপলক তাকিয়ে থাকার অভ্যেস আমার দীর্ঘদিনের। মানুষ, বৃক্ষ, লতাপাতা এমনকি গবাদি পশুর দুশ্চিন্তাহীন অবাধ বিচরণের ভেতরও যে এক অপার সৌন্দর্য আছে তা আমাকে সর্বদায় মুগ্ধতা দেয়। আমার দু'চোখ ভরে তন্দ্রা না নেমে বরং ক্রমেই দৃষ্টির সীমানা প্রসারিত হতে থাকে। কেন জানি এমন হয়, গাড়িতে গান শুনে শুনে আমি যেন পথের সাথী তৃণকেও দেখতে চাই। বলা যায়, 'আমার এই পথ চাওয়াতেই আনন্দ'। গাড়িতে সারাক্ষণ আমার এমন সজাগ দৃষ্টিপাত কখনো বা চালককেও ভাবিয়ে তোলে। কেননা বেশিরভাগ মানুষ গাড়িতে খানিকটা আয়েশি প্রহর কাটাতে চায়। যা আমি পারি না। আমার হয় না। 

২) বেশ কয়েক বছর আগে একবার সকাল বেলা ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া যাচ্ছি। ভূলতা, নরসিংদী হয়ে, ভৈরব বাজার পেছনে ফেলে মেঘনা ব্রিজে উঠতেই দু'দিকের বিস্তীর্ণ জলরাশির ওপর আমার চোখ পড়ে। মৃদু তরঙ্গের সাথে সূর্যালোকের ঝিলিক দেয়া রৌদ্র-ছায়ায় আমি চকিত হয়ে ভাবি, এই তো আমার সোনার বাংলা। আমার জন্ম-জন্মান্তরের ঠিকানা, পদ্মা মেঘনা যমুনা। এ দৃশ্যপট যেন মুহূর্তে আমাকে নস্টালজিক করে তুলে। অল্প সামনেই আশুগঞ্জ শিল্পাঞ্চল। গাড়ি এগিয়ে যাচ্ছে বিশ্বরোড বরাবর। ডানদিকে স্থির তাকিয়ে আমি। হঠাৎ চোখ যায়, চাতাল মিলের দিঘল আঙিনায় মেয়েদের ধান শুকানোর কাজে। একটি বস্ত্রহীন ছোট্ট শিশু মা'র আঁচল টেনে ধরে প্রচণ্ড রোদে গরম ধানের ওপর দিয়ে পিছু পিছু দৌড়াচ্ছে। মা চাতাল শ্রমিক। তার চার-পাঁচ বছর বয়সী শিশুটিকে কোন ক্রমেই বিচ্ছিন্ন করে কোথাও বসাতে পারছে না। মাথায় ধানের খাঁচা মুখে তার বিরক্তিকর অভিব্যক্তি। শিশুটিও মা'কে ছাড়বে না চিৎকার করে কাঁদছে সে। অবস্থাটি এমন যে, মালিকের সিদ্ধ ধান শুকানো নারী শ্রমিকের কাছে এক দিকে তার সন্তান অন্যদিকে শ্রমবিক্রি। কোন দিক সামলাবে সে, সন্তানের জীবন না নিজের জীবীকা? গাড়িতে বসে ভাবছিলাম, এ জেলার জেলা প্রশাসক হিসেবে এ শিশুদের জন্য আমরা কি কিছু করতে পারি না? এখানকার মহাসড়কের দু'পাশে শত শত চাতালকলে এমন অসংখ্য নারী শ্রমিক কাজ করছে। তাদের সন্তানদেরও একই অবস্থা। যেন দেখার কেউ নেই। নেই এ শিশুদের ভূত-ভবিষ্যৎ। কী হবে এদের বেড়ে ওঠা শৈশব, কৈশোর বা কর্মজীবনের? ওরাও যে আমাদের ভবিষ্যতের বাংলাদেশ। 

৩) মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছিলো। কিছু একটা করে ফেলার প্রবল ইচ্ছে শক্তিও আছে। পরবর্তী মাসিক সমন্বয় সভায় আলোকপাত করা হল। সিদ্ধান্ত নেই আশুগঞ্জ এলাকায় গিয়ে চাতাল কল মালিক, জনপ্রতিনিধি এবং স্থানীয় বিত্তশালীদের সাথে সভা করা হবে। এবং সবার সার্বিক সহযোগিতা নেয়া হবে। 
২০১১ সালের শেষ দিকে আকস্মিক ভাবে ডাক আসে MAAT ট্রেনিং এ অংশ নিতে। দেশে ও সিঙ্গাপুরে মাসদেড়েকের প্রশিক্ষণ শেষ করে যথারীতি কর্মস্থলে ফিরি। আবার কাজ শুরু করি। উদ্দেশ্য চাতালের মিলে বসবাসকারী নারী শ্রমিকদের ছোট্ট সোনামনিদের জন্য দিবাযত্ন কেন্দ্র ও প্রাক-প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন করা। (Day-care centre cum Pre-primary school) । সভা হল, স্থানীয় উপজেলা প্রশাসন /পরিষদসহ সকলই সম্মতির আশ্বাস বাণী শুনালেন। এখন জমি বা স্থান নির্বাচনের পালা। চাতালকলগুলো সবই রাস্তার পাশে বিধায় কেন্দ্রও রাস্তাসংলগ্ন করতে হবে। আর রাস্তার দু'পাশ মানে সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধীন। সড়ক বিভাগের সম্মতিতে আশুগঞ্জ পুলিশ স্টেশনের নিকটবর্তী এক খণ্ড পতিত জমিতে এ সেন্টারের কাজ শুরু করি। প্রাথমিক পর্যায়ে উপজেলা পরিষদ থেকে সামান্য জনবল এনে চালু করা হল 'শিশু দিবাযত্ন কেন্দ্র'। সকলের স্বতঃস্ফূর্ত অবদানের মূল্যে দ্রুত গড়ে উঠে একাধিক কক্ষ বিশিষ্ট টিনশেড ভবন। সন্মুখে এক চিলতে সবুজ। দেয়ালের বেষ্টনী ও নানন্দিক গেইট। সাড়া পড়ে যায়, চাতাল মিলের শ্রমজীবী নারীদের মাঝে। তাদের চোখের কোণে আনন্দাশ্রু। সাথে যোগ করে দেওয়া হল 'মিড ডে মিল '। ফলে রাতারাতি শিশুদের আগ্রহ দ্বিগুণ হয়ে উঠে। 

৪) আসা যাওয়ার পথে আমি নিজেই আকস্মিক ঢুকে পড়ি এ কেন্দ্রে। শ্রেণি কক্ষে প্রবেশ করে এদের পড়াই, পড়ি, আনন্দ পাই, আনন্দ দেই। আমার আন্তরিকতার ঘাটতি নেই, উদ্যোগ, উৎসাহ সীমাহীন। এসব প্রায় ছিন্নমূল শিশুদের মধ্যে সহসা প্রাণের স্পন্দন যেন প্রথম আমাকেই  স্পন্দিত করে তুলে। তখন আমি ঢাকায় যোগাযোগ করি। সবার আগে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী শিরিন শারমীন চৌধুরী'র নিকট আবেদন করি। আমাদের স্ব-উদ্যোগ এবং স্বোপার্জিত প্রতিষ্ঠানটি তিনি যেন গিয়ে সদয় উদ্বোধন করে দেন। আমি বিস্মিত হই। সহাস্যে সম্মতি দিলেন তিনি। এবং ২০১২ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি অপরাহ্নে আমাদের উচ্চ শিক্ষিত, বনেদি ও বিনয়ী মহান জাতীয় সংসদের আজকের মাননীয় স্পীকার স্বয়ং আশুগঞ্জে উপস্থিত হয়ে এক মনোরম আনুষ্ঠানিকতার মধ্যদিয়ে এ 'শিশু দিবাযত্ন কেন্দ্র এবং প্রাক-প্রাথমিক বিদ্যালয়ে'র শুভ সূচনা করেন। তিনি এমন কর্ম ও আয়োজনের প্রশংসাও করেন। এমনকি এ জাতীয় প্রতিষ্ঠান ব্যক্তিগত প্রয়াসে আরও যাতে গড়ে তোলা হয় সে দিকেও উপস্থিত সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। 

হ্যাঁ , এ ধরনের শিশুবান্ধব কার্যক্রম দেশের সর্বত্র চাতাল শিল্প এলাকায় জনপ্রশাসনের উদ্যােগেও গ্রহন করা যায়। বিশেষ করে উত্তরাঞ্চলের দিনাজপুর, নওগাঁ, জয়পুরহাট ইত্যাদি জেলায় ছড়িয়ে দেয়া যায়। এতে শ্রমজীবী নারীরা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলে তাদের জীবীকার সঠিক ঠিকানা পেতে পারে। রাষ্ট্রও সকল নাগরিকের প্রতি সমান সুযোগের সাংবিধানিক দায়ভার কিছুটা লাঘব করতে পারেন। প্রয়োজন একে ধরে রাখা (sustainable) এবং ছড়িয়ে দেয়ার (replicable) কাজ করা। 

৫) আমার হৃদয় আন্দোলিত হয়ে উঠে, যখন শুনি এবং দেখি স্কুলটি গত ছয়বছর যাবৎ আমাকে স্মরণ করে ভালভাবেই টিকে আছে। ইতোমধ্যে কয়েক হাজার শিশু শিক্ষার প্রাথমিক পাঠ বা হাতেকড়ি নিয়ে ছড়িয়ে পড়েছে অন্যত্র বৃহত্তর অঙ্গনে। পুলকিত বোধ করি, যখন একাধিকবার নানা গণমাধ্যমে এমন কার্যক্রমের নন্দিত প্রচার দেখি। সত্যি হল, মানুষ এখনও জনহিতৈষী এবং জনবান্ধব। ভাল কাজের সুনাম ও মন্দের নিন্দা করে। আর দিনশেষে আমাদের সকলের আশ্রয় যে শুধুই মানুষ। বহুদিন হয়েছে, সরকারি কাজে দক্ষিণ কোরিয়ায় গিয়েছিলাম। রাস্তা- ঘাটে যত্রতত্র পোস্টার, ব্যানার, দেয়াল লিখন ইত্যাদি দেখি নি বরং সবুজ নগরের বিপুল আয়োজনই চোখে পড়েছিল। তবে লিফটের ভেতরে সুন্দর সুন্দর অনেক শিক্ষণীয় কথা পড়েছিলাম। একটা লেখা ছিল 'inspite of everything men are still good at heart'। কাজেই মানুষকে মূল্য দিয়েই আমাদের সকলের আশা আকাঙ্ক্ষা ডানা মেলে উড়ুক। অন্যথায় স্থায়ীত্ব পাবে নিতান্তই কম। 

৬) চাকরিতে বদলি হতে হয় বলে তখন আশুগঞ্জের চাতালপুরে আর নতুন কিছু করা হয়ে উঠেনি। তবে পরবর্তীকালে বিভাগীয় কমিশনার চট্টগ্রাম পদে আসীন হলে আমার প্রশাসনিক অধিক্ষেত্র হিসেবে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জের চাতালকল এলাকা পরিদর্শন করে আরও একটি প্রাক-প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ গ্রহন করি। এবার আমার স্নেহ- ভাজনেষু সহকর্মী জেলা প্রশাসক হায়াৎ উদ দৌলা খান নিজে এসবের সামাজিক মূল্য ও প্রভাব উপলব্ধি করে আমার সমান্তরালে এগিয়ে আসেন। অসাধারণ মননশীলতা, দেশপ্রেমবোধ, সততা ও সৃজনশীলতা ছাড়া কে চায় এসবে বৃথাই শ্রম এবং সময় বিলিয়ে দিতে? এবার আমি স্থান নির্বাচন করে দেই। রাস্তার নিকটে প্রয়োজনীয় খাস জমিও পাওয়া গেল। খরিয়ালা গ্রামে ধীরে ধীরে গড়ে তোলা হল দ্বিতীয় কেন্দ্র। শতাধিক শিশু তথা ছেলে মেয়ের উপস্থিতিতে বিগত ১৩ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৭ জুন ২০১৯ খ্রিঃ উদ্বোধন করা হয় প্রতিষ্ঠানটি। পাথরের গায়ে লেখা হল, "চাতালকল নারী শ্রমিকের সন্তানদের জন্য প্রতিষ্ঠিত ২য় দিবা যত্ন কেন্দ্র ও প্রাক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নব নির্মিত শ্রেণি কক্ষের উদ্বোধন"। 

৭) মনে আছে, করোনার অব্যবহিত পূর্বেও শিশুদের মাঝে নানা সময়ে নতুন বই, জামা কাপড়, খাদ্য, টিফিন বক্স, ব্যাগ ইত্যাদি বিতরণ করেছি। তাদের চোখে-মুখে আনন্দ আর হাসির জোয়ার দেখেছি। এই তো সেদিন, করোনার ঝুঁকিতেও সীমিত পরিসরে শিশুদের কাছে গিয়ে জেলা প্রশাসনের খাদ্য বিতরণ কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে আসি। বিদ্যালয়ও দেখে আসি। এতে যেন আমি স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলে বাঁচি। এ যেন আমার নিয়ত ভাল লাগার এক অবিচ্ছিন্ন অনুসঙ্গে পরিণত হয়েছে। 

বলা বাহুল্য, মধ্যে ক'বছর আমি ঢাকায় বাংলাদেশ সচিবালয়ে কর্মরত ছিলাম, কিন্তু যখনই সস্ত্রীক কিশোরগঞ্জের গ্রামের বাড়িতে গিয়েছি পথে ভৈরব ব্রীজ পেরিয়ে চাতালকল নারী শ্রমিকের অবুঝ শিশুদের জন্য প্রতিষ্ঠিত আমার বিদ্যালয় ও শিশুদের দেখে যেতে ভুলিনি। এতে আমার প্রয়াত স্ত্রী জেবুর উৎসাহ যথেষ্ট প্রণিধানযোগ্য এবং স্মরণীয়। কেননা সে আমাকে কখনও নিরুৎসাহিত করেনি। আমার চোখের সামনে এদের বেড়ে ওঠা এবং ক্রমপরিবর্তন দেখার অদ্ভুত এক নেশায় আমি বুদ হয়ে থাকি। 

১৭ আষাঢ় ১৪২৮ বঙ্গাব্দ 
০১ জুলাই ২০২১ খ্রিঃ।

লেখক: সচিব, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়।

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন