Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১৯ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৮ অক্টোবর, ২০১৯ ২১:৫০

বিশ্বের প্রভাবশালী নারীর তালিকায় রোহিঙ্গা তরুণী জেসমিন

সাইফ ইমন

বিশ্বের প্রভাবশালী নারীর তালিকায় রোহিঙ্গা তরুণী জেসমিন

জেসমিন একজন রোহিঙ্গা নারী। তার জন্ম বাংলাদেশের একটি শরণার্থী শিবিরে। জন্মের কিছু দিন আগেই তার বাবা মারা যান। একসময়  শরণার্থী হিসেবে ব্রিটেনে যান তিনি। ব্রিটেনে যাওয়ার পর ক্রিকেট খেলায় বিশেষ পারদর্শিতা দেখান জেসমিন। ব্র্যাডফোর্ড শহরে জেসমিন ও তার বন্ধুরা মিলে শুধু এশীয় বংশোদ্ভূত মেয়েদের একটি ক্রিকেট দল গড়ে তোলেন। এ বছর প্রথম স্ট্রিট চাইল্ড ক্রিকেট ওয়ার্ল্ড কাপ নামে একটি ক্রিকেট টুর্নামেন্ট হয়। সেবামূলক উদ্দেশ্যে চালু করা এই টুর্নামেন্টে যুক্তরাজ্যের দলের খেলোয়াড় হিসেবে মনোনীত হন জেসমিন। সেখানে তিনি  দেশের প্রতিনিধিত্ব করেন।

সংবাদ মাধ্যমে জেসমিন আখতার বলেন, মুক্ত মানুষ হিসেবে প্রতিটি নিঃশ্বাস আপনাকে আরও বেশি আনন্দ দেয়। সেই অনুভূতি কেমন তা আমি জানি। এদিকে এ বছর বিশ্বে অনুপ্রেরণাদায়ী ও প্রভাবশালী ১০০ নারীর তালিকা তৈরি করেছে ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসি। আর এতে স্থান পেয়েছেন মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা পরিবারের সন্তান এই জেসমিন আখতার। পরিবেশ, জ্ঞান, নেতৃত্ব, সৃষ্টিশীলতা, খেলাধুলা ও পরিচিতি- এমন ছয়টি ক্যাটাগরিতে প্রভাবশালী নারীদের তালিকা প্রকাশ করে বিবিবি।

বিবিসি তাদের তালিকা প্রকাশ করে বলেছে, এ বছর চূড়ান্ত তালিকা করার ক্ষেত্রে তাদের বিবেচ্য বিষয় ছিল ভবিষ্যতের নারী। এই নারীরা সমাজ বদলে দিচ্ছেন নিজ নিজ জায়গা থেকে। ১০০ জনের তালিকা কয়েকটি ভাগে ভাগ করে উপস্থাপন করেছে বিবিসি। এর মধ্যে পরিবেশে ১৪ জন শিক্ষায় ১৮ জন নেতৃত্বে ১৯ জন, সৃজনশীলতায় ১৭ জন, খেলায় ১৩ জন ও মানবাধিকারে ১৯ জন। এ তালিকায় আরও স্থান পেয়েছেন ভারতশাসিত কাশ্মীরের মানবাধিকার কর্মী পারভীনা আহাঙ্গার, ইরানের অ্যাথলেট কিমিয়া আলিজাদেহ, সুইডেনের জলবায়ু পরিবর্তন বিরোধী আন্দোলনকারী গ্রেটা থানবার্গ, রাশিয়ার দুর্নীতিবিরোধী কর্মী লিউবভ সোবোল।

জন্ম বাংলাদেশে জেসমিনের। বর্তমানে ১৮ বছর বয়সের এই তরুণী বড় হয়েছেন বাংলাদেশের শরণার্থী শিবিরে। ছোটবেলা থেকেই ক্রিকেটের প্রতি একটা আগ্রহ তৈরি হয়েছিল তার। জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা ও যুক্তরাজ্যের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি কর্মসূচির আওতায় ১০ বছর আগে শরণার্থী হিসেবে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে যুক্তরাজ্যে যান তিনি। তখন তার বয়স আট বছর। যুক্তরাজ্যে যাওয়ার পর ব্র্যাডফোর্ড শহরের অল-এশিয়ান গার্লস ক্রিকেট দলে খেলে নিজেকে ক্রীড়াবিদ হিসেবে মেলে ধরেন জেসমিন। এমনকি এ বছর প্রথমবারের মতো আয়োজিত পথশিশুদের বিশ্বকাপ ক্রিকেটে তিনি ইংল্যান্ড দলের হয়ে অংশ নেন। দুর্দান্ত খেলে সবার নজরে আসেন এই আলোচিত জেসমিন আখতার।   

এর আগে যুক্তরাজ্যে আসার পর টিকে থাকা অনেক কঠিন হয়ে পড়েছিল জেসমিনের পরিবারের জন্য। বাবা ছাড়া শুধু মায়ের একক প্রচেষ্টায় ৫ ভাই-বোনকে নিয়ে বেঁচে থাকার লড়াইটা করতে হয়েছে তাদের। শরণার্থী হিসেবে যুক্তরাজ্যে আসার পরও এই সংগ্রামটা চলমান ছিল। ১৩ বছর বয়সে খুব বাজেভাবে অ্যাকসিডেন্ট করেছিল জেসমিনের মা। জীবন অনেক কঠিনভাবেই এসে ধরা দেয় তখন। সেই দুর্বিষহ অবস্থার কথা মনে করতে গিয়ে সংবাদ মাধ্যমে আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়েন জেসমিন আখতার। সে সময় ক্রিকেট থেকে অনেক দূরে সরে যেতে হয়েছিল জেসমিন আখতারকে। তিনি বলেন, সে সময় আমি খুব অসহায় হয়ে পড়েছিলাম। নিজের প্রতি আস্থা হারিয়ে ফেলেছিলাম। একেবারে কথা বন্ধ করে দিয়েছিলাম। স্কুলে কিংবা বাসায় কারও সঙ্গেই কথা বলতাম না। এভাবেই চলছিল। একদিন এক বন্ধু আমাকে স্কুল শেষে এক ক্লাবে নিয়ে যায়। সেখানে এক কোচ আমাকে ক্রিকেটের প্রতি আগ্রহী হতে উৎসাহ দেয়। আমিও ক্রিকেটের প্রতি আবারো ঝুঁকে পড়ি। কয়েক মাস আবারো মাঠে প্র্যাকটিস শুরু করি এবং একটা সময় নিজেকে আবিষ্কার করি ইয়র্ক শায়ার দলের ক্যাপটেন হিসেবে।

শুরুতে মেয়ে হিসেবে ক্রিকেট খেলা নিয়ে অনেক কটু কথা শুনতে হয়েছে সবখানে। কিন্তু নিজের মেধা আর যোগ্যতার প্রমাণ খেলার মাঠে দিয়ে সমালোচকদের মুখ বন্ধ করে দিয়েছে জেসমিন। স্ট্রিট চাইল্ড ক্রিকেট ওয়ার্ল্ড কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল ছিল দারুণ নাটকীয়। ইন্ডিয়া সাউথের বিপরীতে ছিল ফাইনাল। জেসমিন ভবিষ্যতে নিজেকে খেলোয়াড় হিসেবেই প্রতিষ্ঠিত করতে চান। জেসমিন ছাড়াও খেলোয়াড় প্রভাবশালী নারীদের একজন হয়েছেন ইরানের কিমিয়া আলিজাদেহ। তিনিই প্রথম অলিম্পিক পদকজয়ী ইরানি নারী। ইরান ১৯৪৮ সাল থেকে অলিম্পিক গেমসে অংশ নিচ্ছে, কিন্তু তায়কোয়ান্দোতে কিমিয়া পদক জেতার আগে দেশটির কোনো নারী অ্যাথলেটিকসে পদক জেতেননি। এদিকে পরিবেশ সচেতনতায় কাজ করে তালিকায় ভারত থেকে স্থান পেয়েছেন প্রখ্যাত পরিবেশবাদী বন্দনা শিবা। প্রভাবশালী নেতৃত্বদানকারী নারী হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের আলোচিত কংগ্রেস সদস্য আলেকজান্দ্রিয়া ওকাসিও-কর্তেজের নাম রয়েছে তালিকায়। বর্তমান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমালোচনা করে তুমুল আলোচনায় তিনি। আফগানিস্তানের প্রথম নারী মেয়র জারিফা গাফারির নাম রয়েছে ওই তালিকায়।


আপনার মন্তব্য