শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ৫ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৪ মে, ২০২১ ২৩:২৮

বসুন্ধরা ও শেখ রাসেলের জয়

ক্রীড়া প্রতিবেদক

বসুন্ধরা ও শেখ রাসেলের জয়
ছবি : রোহেত রাজীব

এএফসি ক্লাব কাপে নামার অপেক্ষায় বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা কিংস। মালদ্বীপে ওড়ার আগে নিজেদের ভালোভাবে ঝালাই করে নিচ্ছেন অস্কারের শিষ্যরা। পেশাদার ফুটবল লিগে দ্বিতীয় লেগে প্রথম ম্যাচেই উত্তর বারিধারাকে ৬-০ গোলে বিধ্বস্ত করে বুঝিয়ে দিয়েছে তারা কতটা প্রস্তুত। গতকাল বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ১৪তম ম্যাচে পুলিশের মুখোমুখি হয়েছিল তারা। দুর্বল প্রতিপক্ষ হলেও প্রথম লেগে পুলিশকে হারাতে ঘাম ঝরাতে হয়েছিল কিংসের। তারপর আবার দ্বিতীয় লেগের শুরুতেই ফেবারিট আবাহনী হোঁচট খেয়েছিল তাদের কাছে।

শক্ত অবস্থানে থেকে প্রথম পর্ব শেষ করলেও বসুন্ধরা কিংস সভাপতি ইমরুল হাসান বলেছেন, শিরোপার পথ এখনো দূরে। দ্বিতীয় লেগে প্রতিটি ম্যাচই আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। সতর্ক হয়েই খেলতে হবে। ১৩ ম্যাচে ৩৭ পয়েন্ট নিয়ে মাঠে নেমেছিল। তবু পুলিশকে যোগ্য প্রতিপক্ষ ভেবেই লড়েছে। ফলও পেয়েছে তারা। জয়ের ধারাবাহিকতা ধরে রেখে শিরোপা অটুট রাখার পথে আরেক ধাপ এগিয়ে গেছে কিংস। পুলিশকে ২-০ গোলে হারিয়ে ১৪ ম্যাচে ৪০ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে অবস্থান করছে ফুটবল কিং বসুন্ধরা কিংস।

বসুন্ধরা এমনিতেই সেরা দল গড়েছে। ড্যানিয়েল কলিনড্রেস বা বখতিয়ার না থাকলেও কিংসের চেহারা আগের চেয়ে আরও ভয়ঙ্কর। বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ব্রাজিলের রবিনহো, ফার্নান্দেজ সেই সঙ্গে আর্জেন্টিনার রাউলকে নিয়ে বসুন্ধরা সত্যিই অধরা। ডিফেন্সে ইরানের খালিদ শাফিই যেন চীনের প্রাচীর। স্থানীয়রাও তাল মিলিয়ে খেলছে। কোচ অস্কার শিষ্যদের কৌশল এঁকে দিচ্ছেন। শিষ্যরা তা ঠিকমতো কাজে লাগিয়ে প্রতিপক্ষকে মাত করছে। ঢাকা আবাহনীও গতকাল ৫-২ গোলে ব্রাদার্স ইউনিয়নকে হারায়। বিজয়ী দলের সানডে, নাসির, জুয়েল, বেলফোর্ট ও রুবেল গোল করেন। ব্রাদার্সের জোড়া গোল করেন উগুচুকু। কিন্তু সমান ম্যাচে কিংসের সঙ্গে তাদের পয়েন্ট ব্যবধান এগারো। শেখ জামাল এক ম্যাচ কম খেলে আট পয়েন্টে পিছিয়ে।

ফেবারিটের তালিকায় ৫/৬ দল ছিল। কিন্তু এখন তো তিন দল ছাড়া শিরোপা রেসে আসার সম্ভাবনা অন্যদের নেই। বসুন্ধরা তো চেনাপথেই হাঁটছে। ১১ জন খেলোয়াড় নিয়েই দল। কিংসের আলোচনায় রবিনহো ও রাউলের নামটিই সবার মুখে মুখে। হবেই না কেন? তারাই জয়ের পেছনে মুখ্য ভূমিকা রাখছেন। নিজেদের মধ্যে যেন অঘোষিত প্রতিযোগিতা চলছে। কে গোলে এগিয়ে যাবে সেটাই দেখার বিষয়।

গতকাল জয় পেলেও প্রথমার্ধে কোনো গোল পায়নি বসুন্ধরা কিংস। ১৬ মিনিটে পেনাল্টি মিস করেন রবিনহো। প্রতিপক্ষের গোলরক্ষক হিমেল দৃঢ়তার সঙ্গে তার শট রুখে দেন। ৫৮ মিনিটে রবিনহোর পাস থেকে তৌহিদুল আলম সবুজ হেডে গোল করলে বসুন্ধরার শিবিরে স্বস্তি ফিরে। ৬২ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন অধিনায়ক তপু বর্মণ।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে দারুণ জয় পেয়েছে শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রও। তারা ৩-০ গোলে হারিয়েছে রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডস সোসাইটিকে। ম্যাচের তৃতীয় মিনিটেই শেখ রাসেলকে এগিয়ে দেন আসররভ। এরপর ৩৫ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করে ব্যবধান বাড়ান বখতিয়ার। ৭০ মিনিটে রদ্রিগেজের গোলে দারুণ জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে শেখ রাসেল। এ জয়ে লিগে ১৪ ম্যাচে ২৬ পয়েন্ট নিয়ে চার নম্বরে অবস্থান করছে তারা।