Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৭ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৬ এপ্রিল, ২০১৮ ২৩:৪১

আরাম চেয়ারে স্বাস্থ্যঝুঁকি

জয়শ্রী ভাদুড়ী

আরাম চেয়ারে স্বাস্থ্যঝুঁকি

দীর্ঘ সময় আরাম চেয়ারে বসে থাকায় শরীরে বাসা বাঁধতে পারে উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, মেদস্থূলতাসহ বিভিন্ন রকমের জটিল রোগ। শীর্ষ নির্বাহী এবং মিড লেভেলের লাখ লাখ কর্মকর্তা আরাম চেয়ারের ফাঁদে পড়ে অসুস্থ জীবনযাপন করছেন

 

বেসরকারি একটি প্রতিষ্ঠানের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা ফারহান রহমান। তার বিলাসবহুল আরাম চেয়ারে পিঠের অংশে পুরোটাজুড়ে লাগানো রয়েছে কাঠ। নরম ফোমের চেয়ারে কাঠ কেন জানতে চাইলে বলেন, লো ব্যাক পেইন, অর্থাৎ কোমর ব্যথা উপশমে চিকিৎসকের এটাই পরামর্শ। দীর্ঘ ৮-১০ ঘণ্টা চেয়ারে বসে কাজ করে তৈরি হয়েছে এ রোগ। বিছানায়ও ফোম বাদ দিয়ে কাঠের ওপর হালকা তোষকে ঘুমান বলে জানান তিনি।

শুধু ফারহান রহমানই নন, অসংখ্য কর্মজীবী মানুষ রয়েছেন যাদের দিনের অধিকাংশ সময় চেয়ারে বসে কাজ করতে হয়। তারা ভুগছেন এই রোগে। কোমরে ব্যথা উপলক্ষ মাত্র। দীর্ঘ সময় আরাম চেয়ারে বসে থাকায় শরীরে বাসা বাঁধতে পারে উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, মেদস্থূলতাসহ বিভিন্ন রকমের জটিল রোগ।

২০১০ সালে চিকিৎসা সাময়িকী ‘সার্কুলেশন’ এ প্রকাশিত এক রিপোর্টে বলা হয়, সাত বছর ধরে ৮ হাজার ৮০ জনের ওপর জরিপ চালানো হয়েছে। এতে দেখা গেছে, এদের মধ্যে যারা দিনে চার ঘণ্টা বা আরও বেশি সময় বসে কাটান তাদের মৃত্যুঝুঁকি ৪৬ শতাংশ বেশি, যারা এর চেয়ে কম সময় বসে থাকেন তাদের চেয়ে। দিনের অর্ধেক সময় বসে কাটালে হৃদরোগ ও ডায়াবেটিসঝুঁকি তুলনামূলক দ্বিগুণ। সবমিলিয়ে মৃত্যুঝুঁকি বাড়ে শতকরা ৫০ ভাগ। এই রোগের ঝুঁকির পরিমাণ দেখে বলা যায়, চেয়ার তো নয় যেন মৃত্যুফাঁদ। চেয়ারে দীর্ঘ সময় বসে থাকায় কোমর বা মেরুদণ্ডের হাড়ও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। মানুষের মেরুদণ্ডের হার মাথার নিচ থেকে পায়ুপথ পর্যন্ত বিস্তৃত। এখানে ৩৩টা ভারটিব্রা আছে। লাম্বার ভারটিব্রা থেকে পায়ুপথের কক্সিক ভারটিব্রা পর্যন্ত এই অংশকে আমরা লো ব্যাক বলি। সাধারণভাবে কোমর ব্যথা বলতে এই ব্যথা বুঝানো হয়। বিশেষজ্ঞরা বলেন, কোমর ব্যথার ৯০ ভাগ হচ্ছে মেকানিক্যাল সমস্যা। মেকানিক্যাল সমস্যা বলতে মেরুদণ্ডের মাংসপেশি, লিগামেন্ট মচকানো, আংশিক ছিঁড়ে যাওয়া, দুই কশেরুকার মধ্যবর্তী ডিস্ক সমস্যা, কশেরুকার অবস্থানের পরিবর্তন ও মেরুদণ্ডের নির্দিষ্ট বক্রতার পরিবর্তনকে বোঝায়। চলাফেরা, জীবিকার ধরন, খুব বেশি ওজন বহন, মেরুদণ্ডের অতিরিক্ত নড়াচড়া, একটানা বসে বা দাঁড়িয়ে কোনো কাজ করাও ঝুঁকিপূর্ণ।

লো ব্যাক পেইন (এলবিপি) মেরুদণ্ডের নিচের অংশের বা কোমর ব্যথা যা সাধারণত হাড় ও মাংসপেশির ক্ষয় হলে হয়। তবে কম্পিউটারে দীর্ঘক্ষণ একই ভঙ্গিতে বসে কাজ করতে গিয়ে অনেকে লো ব্যাক পেইন বা এলবিপিতে ভুগছেন। দ্রুত শিল্পায়ন ও ব্যবসা-বাণিজ্যের বিকাশে বাংলাদেশে অসংখ্য প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে, যাদের শীর্ষ নির্বাহী এবং মিড লেভেলের লাখ লাখ কর্মকর্তা আরাম চেয়ারের ফাঁদে পড়ে অসুস্থ জীবনযাপন করছেন। সিটি হাসপাতালের হাড়, ট্রমা ও জোড়া বিশেষজ্ঞ এবং আর্থ্রোস্কোপিক সার্জন ডা. জিএম জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, যারা দীর্ঘক্ষণ বা কোনো বিরতি ছাড়াই চেয়ারে বসে পিসিতে বা ল্যাপটপে কাজ করেন তাদের এ সমস্যাটা হতে পারে। এ ব্যথা থেকে আরোগ্য পেতে করণীয় হিসেবে তিনি বলেন, মেরুদণ্ড সোজা করে চেয়ারে বসতে হবে। বিশেষ করে মাথা সোজা রেখে কোমরের স্বাভাবিক বাঁক ঠিক রেখে এমনভাবে বসা যাতে দেহের ভার কোমরে সমানভাবে পড়ে। এ ছাড়া সামনে ঝুঁকে দীর্ঘক্ষণ কাজ না করা। পেট ও পিঠের মাংসপেশি মজবুত রাখতে ব্যায়াম করা। হাঁটা বা বসার সময় শরীর সোজা রাখা। মাঝে মাঝে শক্ত বিছানায় বা মেঝেতে টান টান হয়ে শুয়ে থাকা। ব্যথা বেশি হলে থেরাপি নেওয়া, ব্যায়াম করা বা বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেওয়ার বিষয়ে বলেন তিনি।

কর্মীদের স্বাস্থ্যঝুঁকি কমাতে পাশ্চাত্যে ট্রেডমিল ডেস্ক ভীষণ জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। যার ওপর দাঁড়িয়ে কাজ করা সম্ভব। চাইলে ধীরলয়ে হেঁটে ডেস্ক জব বা অফিসের কাজকর্ম করা যায় নিশ্চিন্তে। এমনকি স্কুলেও চালু হয়েছে এ ট্রেডমিল পদ্ধতি। স্কুলে শিক্ষার্থীরা গণিত আর বানানের ক্লাস করছে চেয়ারবিহীন ক্লাসে। কোনো কোনো শহর কর্তৃপক্ষ স্বল্প দূরুত্বে গাড়ি ব্যবহার না করার পরামর্শ দিচ্ছেন নাগরিকদের।


আপনার মন্তব্য