Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শুক্রবার, ১০ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৯ জুন, ২০১৬ ২৩:১৫
বিশ্বজুড়ে ধর্মীয় পবিত্র স্থান
তানভীর আহমেদ
বিশ্বজুড়ে ধর্মীয় পবিত্র স্থান
মসজিদ আল হারাম। ছবিটি ২০০৭ সালে পবিত্র হজ চলাকালীন।

মসজিদ আল হারাম

মসজিদ আল হারাম ইসলামের সবচেয়ে পবিত্র স্থান, যা কাবাকে ঘিরে অবস্থিত। সৌদি আরবের মক্কা শহরে এর অবস্থান। মুসলিমরা নামাজের সময় কাবার দিকে মুখ করে দাঁড়ান। হজ ও ওমরাহর জন্যও মসজিদুল হারামে যেতে হয়। ভিতরে ও বাইরে নামাজের স্থান মিলে মসজিদের বর্তমান কাঠামো প্রায় ৮৮.২ একর। এখানে একসঙ্গে ৯ লাখ মানুষ নামাজ আদায় করতে পারেন। হজের সময় প্রায় ৪০ লাখ মানুষ এখানে উপস্থিত হন। এই মসজিদ সব সময় খোলা থাকে। পবিত্র কোরআনে বর্ণিত রয়েছে যে, ইব্রাহিম (আ.) ও ইসমাইল (আ.) দুজন একত্রে কাবা নির্মাণ করেন। মক্কায় যেসব গোষ্ঠী বা সম্প্রদায় মর্যাদাবান ছিল, তাদের দায়িত্ব থাকত কাবা শরিফ রক্ষণাবেক্ষণের। এ দায়িত্ব পালনকে তারা সম্মানিত ও গর্বের মনে করত। মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) নবুয়ত প্রাপ্তির পাঁচ বছর আগে কাবাঘর সংস্কার করে মক্কার বিখ্যাত কোরাইশ বংশ। এই গৃহে পরবর্তী সময়ে হজরে আসওয়াদ নামক পাথর স্থাপন করা হয়। কাবা নিকটবর্তী পাহাড় থেকে আহরিত গ্রানাইট পাথর দ্বারা নির্মিত। এর ভিত্তিভূমি মার্বেল পাথরের তৈরি। এর অভ্যন্তর ভাগের  মেঝে মার্বেল পাথর ও চুনাপাথরে তৈরি। দেয়ালের অর্ধেকটা দামি মার্বেল পাথরে  মোড়া। জমজম কুয়া মসজিদুল হারামের মধ্যে অবস্থিত। আগে মাতাফের ওপর জমজমের অংশ ছিল। পরে তা ভূগর্ভস্থ করে ফেলা হয় এবং পাম্পের সাহায্যে পানি উত্তোলনের ব্যবস্থা করা হয়।

 

মসজিদ আল নববী

মসজিদ আল নববী মুহাম্মদ (সা.) কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত মসজিদ। এটি সৌদি আরবের মদিনায় অবস্থিত। মুহাম্মদ (সা.) হিজরত করে মদিনায় আসার পর এই মসজিদ নির্মিত হয়। মসজিদটি দিন-রাত সব সময় খোলা থাকে। মুহাম্মদ (সা.) এর বাসগৃহের পাশে এই মসজিদ নির্মিত হয়েছিল। তিনি নিজে ব্যক্তিগতভাবে মসজিদের নির্মাণ কাজে অংশ নিয়েছিলেন। পরবর্তীকালের মুসলিম শাসকরা মসজিদ সম্প্রসারণ ও  সৌন্দর্যবর্ধন করেছেন। এখানে একসঙ্গে ৬ লাখ মানুষ নামাজ আদায় করতে পারেন। হজের সময় এই সংখ্যা গিয়ে দাঁড়ায় ১০ লাখে। ১৯০৯ খ্রিস্টাব্দে আরব উপদ্বীপের মধ্যে এখানেই সর্বপ্রথম বৈদ্যুতিক বাতি জ্বালানো হয়। মসজিদ খাদেমুল হারামাইন শরিফাইনের নিয়ন্ত্রণে থাকে। মসজিদটি মদিনার কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত। মসজিদে নববী অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ধর্মীয় স্থান বিধায় হজের সময় আগত হাজীরা হজের আগে বা পরে মদিনায় অবস্থান করেন। মসজিদের মধ্যে ছোট কিন্তু বিশেষ এলাকা রয়েছে যা রিয়াদুল জান্নাহ বা জান্নাতের বাগান বলে পরিচিত। এটি মুহাম্মদ (সা.) এর রওজা  থেকে তার মিম্বর পর্যন্ত বিস্তৃত। রওজা মসজিদের সঙ্গে অবস্থিত। এখানে মুহাম্মদ (সা.) এবং প্রথম দুই খলিফা আবু বকর ও উমরের কবর রয়েছে। এর পাশে একটি কবরের জন্য জায়গা খালি রয়েছে। বিশ্বাস করা হয়, ঈসা (আ.) আবার পৃথিবীতে ফিরে আসবেন এবং এরপর তিনি মারা যাওয়ার পরে তাকে এখানে দাফন করা হবে।

 

মসজিদ আল আকসা

আল আকসা মসজিদ বাইতুল মুকাদ্দাস বলেও পরিচিত। এটি ইসলামের তৃতীয় পবিত্রতম মসজিদ। জেরুজালেমের পুরনো শহরে এর অবস্থান। মসজিদের সঙ্গে একই প্রাঙ্গণে কুব্বাত আস সাখরা অবস্থিত। এই পুরো স্থানকে হারাম আল শরিফ বলা হয়। ইসলামের বর্ণনা অনুযায়ী মুহাম্মদ (সা.) মিরাজের রাতে মসজিদুল হারাম থেকে আল আকসা মসজিদে এসেছিলেন এবং এখান থেকে তিনি ঊর্ধ্বাকাশের দিকে যাত্রা করেন।

খলিফা ওমর বর্তমান মসজিদের স্থানে একটি মসজিদ নির্মাণ করেছিলেন। পরবর্তীতে উমাইয়া খলিফা আবদুল মালিকের যুগে মসজিদ পুনর্নির্মিত ও সম্প্রসারিত হয়। এই সংস্কার ৭০৫ খ্রিস্টাব্দে তার পুত্র খলিফা প্রথম আল ওয়ালিদের শাসনামলে শেষ হয়। এরপর বিভিন্ন সময় এটি সংস্কার করা হয়।

বিভিন্ন শাসকের সময় মসজিদে অতিরিক্ত অংশ  যোগ করা হয়। এর মধ্যে রয়েছে গম্বুজ, আঙিনা, মিম্বর, মিহরাব, অভ্যন্তরীণ কাঠামো। ১০৯৯ খ্রিস্টাব্দে ক্রুসেডাররা জেরুজালেম দখল করার পর তারা মসজিদকে একটি প্রাসাদ এবং একই প্রাঙ্গণে অবস্থিত কুব্বাত আস সাখরাকে গির্জা হিসেবে ব্যবহার করত। সুলতান সালাহউদ্দিন জেরুজালেম পুনরায় জয় করার পর মসজিদ হিসেবে এর ব্যবহার শুরু হয়। মসজিদের অভ্যন্তর ভাগে ৪৫টি স্তম্ভ রয়েছে। এগুলোর মধ্যে ৩৩টি সাদা মার্বেল এবং ১২টি পাথরের তৈরি। এখানে একসঙ্গে ৫ হাজারেরও বেশি মানুষ নামাজ আদায় করতে পারেন।

 

কাশী

কাশীর গঙ্গাতীর। গঙ্গা নদীর এই তীর হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের কাছে বিশেষ মর্যাদাপূর্ণ। শিব দেবতার পূজা-অর্চনার সঙ্গে এই তীর্থস্থান জড়িত। নাসি গঙ্গাতীরে হওয়ায় প্রতি বছর এখানে অসংখ্য হিন্দু ধর্মাবলম্বী জড়ো হন। দিল্লি থেকে ৪৫০ মাইল দক্ষিণে এই গঙ্গাতীর অবস্থিত। এই অঞ্চল অনেকের কাছে বেনারাস বা কাশি নামেও পরিচিত। শুধু ভারতবর্ষেই নয় কাশিকে বলা হয় বিশ্বের অন্যতম প্রাচীন শহরগুলোর একটি। ভারতের সাতটি প্রাচীন শহরের একটি এটি। ভারতীয় পুরাণেও এই শহরের নাম পাওয়া যায়, এমনটি হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা মানেন। শিবের শহর বলেও একে পরিচয় দেওয়া হয়। এখানেই রয়েছে হিন্দুদের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ মন্দির। এই মন্দিরকে ডাকা হয় স্বর্ণমন্দির নামে। এটি একটি শিবমন্দির। আত্মিক পুণ্যের জন্য হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা এই মন্দিরে পূজা-অর্চনা করতে আসেন। এই মন্দিরের পাশেই রয়েছে সিমেন্ট মোড়া ঘাট। গঙ্গা নদীর এই ঘাটে স্নান করেন তীর্থযাত্রীরা। অনেকে তাদের পরিবারের সদস্য ও প্রিয়জনের ছাই নিয়ে আসেন গঙ্গাতীরে ভাসানোর জন্য।

 

ভ্যাটিকান সিটি

ভ্যাটিকান। খ্রিস্টধর্ম প্রবর্তনের আগে থেকেই এই রাজ্যের স্থানটুকুকে পবিত্র বলে গণ্য করা হতো। রোমের এই অংশটুকুতে এর আগে কখনই বসতি গড়ে ওঠেনি বা কেউ এখানে বসতি স্থাপন করতে চায়নি। রোমান সাম্রাজ্যের সময় এই স্থানে ফ্রিজিয়ান দেবী সিবেল এবং তার স্বামী আটিসের উপাসনা করা হতো। বর্তমানে ভ্যাটিকান সিটি ইতালির রোম শহরের ভিতরে অবস্থিত স্বাধীন রাষ্ট্র। পোপ এখানকার রাষ্ট্রনেতা। এটি রোমান ক্যাথলিক গির্জার বিশ্ব সদর দফতর হিসেবে কাজ করে। ভ্যাটিকান শহর মধ্যযুগ ও রেনেসাঁর সময়ে নির্মিত প্রাচীর দিয়ে রোম শহর থেকে বিচ্ছিন্ন। প্রাচীরের ভিতরে আছে উদ্যান, বাহারি দালান ও চত্বরের সমাবেশ। সবচেয়ে বড় দালানটি হলো সেন্ট পিটারের ব্যাসিলিকা, যা রোমান ক্যাথলিকদের প্রধান গির্জা। ভ্যাটিকান সিটিতে রয়েছে একটি মহাকাশ অবজারভেটরি, লাইব্রেরি ভ্যাটিকানা। ভ্যাটিকান সিটি শেষ পোপীয় রাষ্ট্র। ক্যাথলিক গির্জা বহু শতাব্দী ধরে মধ্য ইতালির বেশকিছু এলাকাতে এই রাষ্ট্রগুলো স্থাপন করেছিল, যার শাসনকর্তা ছিলেন পোপ।

 

সোনালি প্যাগোডা

শুদ্ধগন প্যাগোডা রয়েছে মিয়ানমারে। এটি  বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের পবিত্র তীর্থস্থান। অনেকে এই প্যাগোডাকে গ্রেট ড্রাগন প্যাগোডা বা গোল্ডেন প্যাগোডা বলেও পরিচয় দিয়ে থাকেন। মিয়ানমারের ইয়াঙ্গুনে প্রতি বছর অসংখ্য মানুষ এই প্যাগোডায় পর্যটনে আসেন। এ ছাড়া বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরাও এই তীর্থে আসেন। এই প্যাগোডার শীর্ষ প্রায় ৩২৫ ফুট উঁচুতে। সিংগুত্তারা পাহাড়ের ওপর অবস্থিত এই প্যাগোডা শত মাইল দূর থেকেও চোখে পড়ে। সূর্যের আলোতে সোনালি আভা ছড়ায় এটি।

এই প্যাগোডার পাশেই রয়েছে কান্দাগি লেক।

স্বচ্ছজলের এই লেকের পানিতে তীর্থযাত্রীরা স্নান করে থাকেন। এটি ঐতিহাসিকভাবেও সম্মানীয়। অনেক পর্যটক এটি মেনে নিয়েছেন প্রাচীন আমলের বিশ্ব আশ্চর্যের এটি একটি। চোখধাঁধানো শৈল্পিক কাঠামো এই প্যাগোডাকে সবকিছুর চেয়ে আলাদা করেছে। সোনালি আভা ছড়ানোর কারণে প্রাচীন আমল থেকেই এই প্যাগোডার আলাদা গুরুত্ব ছিল। রাতে এই প্যাগোডা নান্দনিক সৌন্দর্য ধরা দেয়। বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা এটি সম্মানের চোখে দেখেন।

 

বেথলেহাম

ইতিহাস ঐতিহ্যে মর্যাদা লাভ করেছে বেথলেহাম। প্যালেস্টাইনের এই শহরটি জেরুজালেম থেকে মাত্র ১০ কিলোমিটার দক্ষিণে। এখানে প্রায় ২৫ হাজার মানুষ বসবাস করে। বেথলেহাম বর্তমানে মুসলিম অধ্যুষিত। কিন্তু প্যালেস্টাইনি খ্রিস্টানদের কাছে এটি আলাদা গুরুত্ব বহন করে। শুধু তাই নয়, পুরো বিশ্বের খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের কাছেই বেথলেহামের আলাদা মর্যাদা রয়েছে। খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের মতে, বেথলেহাম যিশু খ্রিস্টের জন্মস্থান। চার্চ অব নেটিভিটিতে প্রতি বছরই অসংখ্য খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বী ধর্মীয় আচার পালন করতে ছুটে আসেন। বেথলেহামের অর্থনীতি অনেকটাই এই তীর্থযাত্রীদের মাধ্যমে আয় হয়ে থাকে। বেথলেহাম প্রায় ২ হাজার বছর ধরে খ্রিস্টানদের কাছে সমানভাবে সম্মানীয়। বেথলেহামের গুরুত্বপূর্ণ চার্চটি ৫২৯ খ্রিস্টাব্দে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। বেথলেহাম বার বার ক্ষমতা বদলের মাধ্যমে নতুন নতুন শাসকের হাতে পড়েছিল। প্রাচীন শহর হিসেবে বেথলেহাম বিভিন্ন সময় মুসলিম, ইহুদি ও খ্রিস্টানদের কাছে গুরুত্ব বহন করে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow