২৪ মে, ২০২২ ১০:০০

ফজলি আম তুমি কার?

জিআই স্বত্ব নিয়ে রাজশাহী-চাঁপাইয়ের টানাটানি

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী


ফজলি আম তুমি কার?

ফজলি আম রাজশাহীর নাকি চাঁপাইনবাবগঞ্জের- এ নিয়ে টানাটানি শুরু হয়েছে। রাজশাহী ফল গবেষণা কেন্দ্র ফজলি আমের জিআই স্বত্ব দাবি করার পর পাল্টা দাবি জানায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ। আজ এ নিয়ে ঢাকায় শুনানি হবে। এরপর সিদ্ধান্ত হবে ফজলি আমের জিআই সনদ পাচ্ছে কোন জেলা। রাজশাহী ফল গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. আলীম উদ্দিন জানান, শুনানিতে অংশ নিতে তিনি ঢাকায় অবস্থান করছেন। সেখানে তিনি তথ্য-উপাত্ত তুলে ধরবেন।

বহুকাল আগে রাজশাহীর বাঘা থেকে প্রচুর আম যেত কলকাতা। এ আমের ছবিই পোড়ামাটির টেরাকোটায় ফুটিয়ে তোলা হয়েছে ১৫২৩ সালে নির্মিত বাঘা শাহি মসজিদে। এ আমটিই এখন পরিচিত ‘ফজলি আম’ হিসেবে। গত বছর এ আমকে রাজশাহীর ভৌগোলিক নির্দেশক বা জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে জার্নাল প্রকাশ করে পেটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেড মার্কস অধিদফতর। কিন্তু এতে আপত্তি জানিয়েছে পাশের জেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জ। রাজশাহীকে এ আমের স্বত্ব দেওয়ার নারাজি দিয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষি অ্যাসোসিয়েশন দাবি করে, এ আম চাঁপাইনবাবগঞ্জের। তবে গবেষকরা বলছেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা হিসেবেই প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ১৯৮৪ সালে। তার আগে ওই এলাকা ছিল বৃহত্তর রাজশাহীরই অন্তর্গত। তাই অতি পুরনো ‘ফজলি আম’ নিয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জের আলাদা স্বত্ব দাবি করা একেবারেই ঠিক হয়নি। আর চাঁপাইনবাবগঞ্জের ফজলি ও রাজশাহীর ফজলি আমের মধ্যে আছে পার্থক্যও।

জানা গেছে, ২০১৭ সালের শুরু দিকে বাঘার ‘ফজলি আম’ রাজশাহীর জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃতির জন্য আবেদন করে রাজশাহী ফল গবেষণা কেন্দ্র। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে যাচাই-বাছাই হয়। সবকিছু ঠিকঠাক থাকায় ২০২১ সালের ৬ অক্টোবর বাঘার ফজলি আমকে রাজশাহীর নিজস্ব পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে জার্নাল প্রকাশ করে পেটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেড মার্কস অধিদফতর। কিন্তু চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষি অ্যাসোসিয়েশনের আপত্তিতে জিআই সনদ আটকে যায় রাজশাহীর ফজলি আমের। আজ শুনানির মধ্য দিয়ে বিষয়টি নিষ্পত্তি করতে চায় সংশ্লিষ্ট অধিদফতর। আজই সিদ্ধান্ত হবে ফজলি কোথাকার।

বাঘার ফজলি আমের ইতিহাস খুঁজে পাওয়া যায় ১৯১২ থেকে ১৯২২ সাল পর্যন্ত করা সার্ভে অ্যান্ড সেটেলমেন্ট অপারেশন্স ইন দ্য ডিস্ট্রিক্ট অব রাজশাহীর চূড়ান্ত প্রতিবেদনে। প্রতিবেদনের ১৬ নম্বর পৃষ্ঠায় ইংরেজিতে স্পষ্টভাবে ‘দ্য বাঘা ম্যাঙ্গো’ বা বাঘার আম, যা কলকাতায় বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে বলে উল্লেখ রয়েছে।

শুধু তাই নয়, গবেষক ও হেরিটেজ রাজশাহীর সভাপতি মাহবুব সিদ্দিকীর ‘আম’ বইটির অষ্টম অধ্যায়ে আমের জাত বিভাগে ৯৭ পৃষ্ঠার তথ্যানুযায়ী বাঘার ফজলির পরিচিতি অন্তত ২০০ বছরের বলে উল্লেখ করা হয়েছে। এ ছাড়া প্রায় ৫০০ বছর আগে নির্মিত ঐতিহাসিক বাঘা শাহি মসজিদের টেরাকোটার কারুকাজেও দেখা মেলে এ আমের ছবির। গবেষকরা বলছেন, কারুকাজ করা এ আম ফজলি আমের প্রতিচ্ছবি। জনপ্রিয়তার কারণেই আমটি মসজিদে স্থান পায়।

রাজশাহী ফল গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. আলীম উদ্দিন বলেন, ‘শুনানিতে জিততে দালিলিক প্রমাণপত্রের পাশাপাশি বাঘা ফজলির ভৌগোলিক পরিচয় নিশ্চিত করতে ডিএনএ পরীক্ষাও করা হয়েছে। রাজশাহীর ফজলি যে চাঁপাইনবাবগঞ্জের বা ভারতের মালদার ফজলির চেয়ে আলাদা, তা আমরা প্রমাণ করতে পারব। তাই আশা করছি বাঘার ফজলিই “রাজশাহীর ফজলি আম” ভৌগোলিক নির্দেশক বা জিআই পণ্যের স্বীকৃতি পাবে।’

এই রকম আরও টপিক

সর্বশেষ খবর