শিরোনাম
প্রকাশ : ১৯ মে, ২০২১ ১৭:১২
প্রিন্ট করুন printer

এবার রাবির ৫০৩ তম সিন্ডিকেটের নিয়োগ নিয়ে প্রশ্ন

রাবি প্রতিনিধি:

এবার রাবির ৫০৩ তম সিন্ডিকেটের নিয়োগ নিয়ে প্রশ্ন
Google News

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে গত বছরের ১০ ডিসেম্বর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ৫০৩ তম সিন্ডিকেটে ৩ জন কর্মকর্তাকে স্থায়ীভাবে নিয়োগ দেয়া হয়। সেই নিয়োগপ্রাপ্ত ৩ কর্মকর্তার চাকরি যদি বৈধ হয়, তাহলে গত ৬ মে নিয়োগপ্রাপ্তদের চাকরি কেন বৈধ হবে না- মর্মে প্রশ্ন তুলেছেন চাকরিপ্রাপ্তরা।

বুধবার দুপুর একটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের পিছনে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব বিষয় নিয়ে কথা বলেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে তারা দাবি করেন, গত ১০ ডিসেম্বর-২০২০ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নিষেধাজ্ঞার পরও ১২ ডিসেম্বর ৩ জনকে স্থায়ী ও  গত ১১ জানুয়ারি এই বিশ্ববিদ্যালয়ে সেকশন অফিসার পদে  একজনকে এডহক ভিত্তিতে মানবিক কারণে নিয়ােগ দেওয়া হয়েছে। এসব নিয়োগ যদি বৈধ হয়, তাহলে আমাদের নিয়োগ কেন অবৈধ হবে। এছাড়া এডহক নিয়ােগ বন্ধ রাখতে ২০০৯ সালেও একই রকম নিষেধাজ্ঞা মন্ত্রণালয় থেকে এসেছিলাে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রয়ােজনে নিজ অধ্যাদেশ বলে এডহক নিয়ােগ প্রক্রিয়া চলমান বলেও দাবি করেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আবদুল্লাহ আল মাসুদ বলেন,  রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীর সাত শতাধিক পদ দীর্ঘ দিন যাবত শূন্য রয়েছে। আমরা উক্ত শূন্য পদের বিপরীতে নিয়ােগের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সাথে যোগাযােগ করে জীবন বৃত্তান্ত জমা দেই। কিন্তু বিশ্বব্যাপী মহামারী করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন নিয়ােগ প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখতে পারেননি। এমতাবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সদ্য সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ড. এম আব্দুস সােবহান স্যার গত ০৫/০৫/২০২১ তারিখে ১৯৭৩ সালের বাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাদেশ এর ১২(৫) ধারায় অর্পিত ক্ষমতাবলে শূন্য পদের বিপরীতে আমাদেরকে এডহক ভিত্তিতে ছয় মাসের জন্য স্থায়ীভাবে নিয়োগ প্রদান করেন। আমরা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের নিকট থেকে প্রাপ্ত নিয়োগপত্রের আলােকে ০৬/০৫/২০২১ তারিখে যােগদান করি।

তিনি আরো বলেন, 'গত ০৬/০৫/২০২১ তারিখে আমাদের যােগদান প্রক্রিয়া চলাকালে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ এক প্রজ্ঞাপনে চার সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন এবং আমাদের নিয়ােগকে অবৈধ ও বিধিবহির্ভূত, আখ্যায়িত করে। যদিও ১৯৭৩ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাদেশ এর ১২(৫) ধারা মােতাবেক, এই নিয়ােগকে অবৈধ বলার কোনাে সুযােগ নেই। নিয়মানুযায়ী, এই নিয়ােগকে অবৈধ ঘােষণার আগে,৭৩ এর অধ্যাদেশ-এর উপরিউক্ত ধারা বাতিল করা উচিত ছিল বলে আমরা মনে করি।'

এছাড়াও সংবাদ সম্মেলনে তিনি দাবি করেন, 'দৈনন্দিন রুটিন দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্য প্রফেসর ড. আনন্দ কুমার সাহা স্যার চুক্তিভিত্তিক নিয়োগপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার প্রফেসর মাে. আব্দুস সালাম স্যারকে দিয়ে আমাদের যােগদানের চলমান প্রক্রিয়া গত ০৮/০৫/২০২১ তারিখে স্থগিত ঘােষণা করে বিজ্ঞপ্তি জারি করেন। আমাদের জানামতে, নিয়মিত উপাচার্যের প্রদানকৃত নিয়ােগ, দৈনন্দিন রুটিন দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্য স্থগিত করতে পারেন না।'

সংবাদ সম্মেলনে চাকরিপ্রাপ্ত ছাত্রলীগ ও যুবলীগের প্রায় ৩৫ জন নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

বিডি প্রতিদিন/হিমেল

এই বিভাগের আরও খবর