শিরোনাম
১৮ জানুয়ারি, ২০২২ ১৯:২২

একদফায় অনড় শাবি শিক্ষার্থীরা

দুই মন্ত্রীর বার্তা পৌঁছে দিলেন আওয়ামী লীগ নেতারা

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট ও শাবি প্রতিনিধি

একদফায় অনড় শাবি শিক্ষার্থীরা

উপাচার্যের পদত্যাগের একদফা দাবিতে আন্দোলনে অনড় অবস্থানে রয়েছেন সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

মঙ্গলবার টানা পঞ্চমদিনের মতো আন্দোলন কর্মসূচি চালিয়ে যান তারা। এর মধ্যে শিক্ষামন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বার্তা নিয়ে আওয়ামী লীগ নেতারা ক্যাম্পাসে যান। তাঁরা উপাচার্য ও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পৃথকভাবে কথা বলেন। তবে আওয়ামী লীগ নেতাদের কাছ থেকে দাবি বাস্তবায়নে সুনির্দিষ্ট বক্তব্য না পেয়ে আন্দোলন থেকে সরার কোনো লক্ষণ দেখা যায়নি শিক্ষার্থীদের মধ্যে। তারা উপাচার্যের অপসারণ চেয়ে গণসাক্ষর সংগ্রহ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ বরাবরে চিঠি পাঠিয়েছে। 

এদিকে, গত রবিবার পুলিশ-শিক্ষার্থী সংঘর্ষের ঘটনায় দুই থেকে তিনশ’ অজ্ঞাত শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে মামলা করেছে পুলিশ। মামলার এজাহারে পুলিশ লিখেছে, সেদিন শিক্ষার্থীরা পুলিশের ওপর গুলিও ছুঁড়েছিল। এ মামলা প্রত্যাহারে আলটিমেটাম দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।

জানা গেছে, শাবির বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী হলের প্রভোস্টের অসদাচরণের প্রতিবাদে গত বৃহস্পতিবার রাতে ওই হলের ছাত্রীদের মাধ্যমে সূচিত হয় আন্দোলন। গত শনিবার আন্দোলনরতদের ওপর ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা হামলা চালায় বলে অভিযোগ ওঠে। এতে নতুন মাত্রা পায় আন্দোলন। হলের প্রভোস্টের অপসারণ, অব্যবস্থপনা দূর, ছাত্রলীগের হামলার বিচার চেয়ে পরদিন রবিবার সকল শিক্ষার্থী আন্দোলনে সামিল হন। সেদিন উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করেন শিক্ষার্থীরা। তাকে মুক্ত করতে অ্যাকশনে যায় পুলিশ, শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বাধে সংঘর্ষ। এতে শিক্ষার্থীসহ অর্ধশতাধিক আহত হন। পরে উত্তুঙ্গে ওঠে আন্দোলন।

আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবারও শাবি ক্যাম্পাস ছিল উত্তাল। আজ সকাল থেকে ক্যাম্পাসের গোলচত্বরে অবস্থান নিয়ে দফায় দফায় বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা। উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদের অপসারণ, প্রক্টর ও ছাত্রকল্যাণ উপদেষ্টার পদত্যাগের দাবিতে বিভিন্ন ধরনের স্লোগানে দিনভর মুখর ছিল ক্যাম্পাস। এ সময় কিছু সংখ্যক পুলিশ সদস্যকে সতর্ক অবস্থানে দেখা যায়। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ক্যাম্পাসে যান আওয়ামী লীগ নেতারা। 

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম নাদেলের সাথে ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আশফাক আহমদ, মহানগরের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন, যুগ্ম সম্পাদক বিধান কুমার সাহা ও সিসিক কাউন্সিলর ইলিয়াসুর রহমান। ক্যাম্পাসের গোলচত্বরে অবস্থান করা শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন আওয়ামী লীগ নেতারা। 

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও সিলেট-১ আসনের সাংসদ ড. এ কে আব্দুল মোমেনের বার্তা পৌঁছে দেন তাঁরা। শফিউল আলম নাদেল বলেন, ‘শিক্ষামন্ত্রীর নির্দেশে আমি ঢাকা থেকে এসেছি। আমাদের দল ও সরকার আপনাদের পাশে আছে। আমরা প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলে এই সংকট থেকে বের হয়ে আসার একটি পথ খুঁজে বের করার চেষ্টা করবো।’ 

তিনি বলেন, ‘আমি আপনাদের দাবির প্রতি একমত। আপনাদের প্রাথমিক দাবিগুলো যাতে দ্রুত বাস্তবায়ন হয় সে চেষ্টা করবো। তবে আমাদের একটু সময় দিতে হবে। যাতে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার পরিবেশ ফিরে আসে সে চেষ্টা চালাবো।’ 

নাদেল বলেন, ‘আমি শুধু আজকে এটুকু বলতে চাই, আমরা আপনাদের পাশে আছি, পাশে থাকব। আপনাদের আন্দোলনে যাতে কোনো সুযোগসন্ধানী গোষ্ঠী ঢুকে না পড়ে সে ব্যাপারে আপনাদের সজাগ থাকতে হবে।’ 

এ সময় মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা জাকির হোসেন বলেন, ‘পররাষ্ট্রমন্ত্রীর নির্দেশে ক্যাম্পাস থেকে এরই মধ্যে অতিরিক্ত পুলিশসহ সাঁজোয়াযান সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। আপনারা যাতে সন্তোষজনক সমাধান পান আমরা সে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ বা অবরুদ্ধ রাখার জন্য নয়, এখানে শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে হবে।’ 

আওয়ামী লীগ নেতাদের বক্তব্য শেষে শিক্ষার্থীরা উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে স্লোগান দেন। তারা উপাচার্যের বিষয়ে সুস্পষ্ট বক্তব্য চান। পরে আওয়ামী লীগ নেতারা উপাচার্যের বাসভবনে গিয়ে তাঁর সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে ক্যাম্পাস ত্যাগ করেন।

আচার্য বরাবরে শিক্ষার্থীদের চিঠি: আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদের অপসারণ ও শিক্ষার্থীবান্ধব উপাচার্য নিয়োগ দিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ বরাবরে চিঠি দিয়েছেন। বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থীর গণসাক্ষর সংগ্রহ করে আজ দুপুরের পর ডাকযোগে চিঠিটি পাঠানো হয়। চিঠিতে উল্লেখ রয়েছে, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে পুলিশ ডেকে এনে শিক্ষার্থীদের ওপর এমন নৃশংস হামলার ঘটনা স্বাধীন বাংলাদেশের ইতিহাসে নজিরবিহীন। দাবি না মেনে পুলিশি হামলায় শিক্ষার্থীদের মৃত্যু ঝুঁকিতে ফেলায় শাবিপ্রবি উপাচার্য যেভাবে মূল কুশীলবের ভূমিকা পালন করেছেন, তা সরাসরি সংবিধানবিরোধী এবং আপনার কর্তৃক ফরিদ উদ্দিন আহমেদের উপর অর্পিত দায়িত্বের বরখেলাপ।’ 

শিক্ষার্থীরা লিখেছেন, ‘এটা পরিষ্কার যে আপনার প্রতিনিধিরূপে ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব পালনের সকল যৌক্তিক, নৈতিক ও সাংবিধানিক যোগ্যতা হারিয়েছেন। এই ঘটনা আমাদের দৃঢপ্রতিজ্ঞ করেছে যে এই অথর্ব, অযোগ্য ও স্বৈরাচারী ব্যক্তিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাহী ক্ষমতায় বহাল রাখা বিশ্ববিদ্যালয়ের মূলমন্ত্রের পরিপন্থী।’

শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে পুলিশের মামলা: গত রবিবার বিকালে পুলিশ-শিক্ষার্থী সংঘর্ষের ঘটনায় মামলা করেছে পুলিশ। সিলেট মহানগর পুলিশের (এসএমপি) জালালাবাদ থানার এসআই মোহাম্মদ আব্দুল হান্নান বাদী হয়ে দুই থেকে তিনশ’ অজ্ঞাতনামা শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে এই মামলা করেছেন। গত সোমবার দায়েরকৃত মামলায় পুলিশ দাবি করেছে, সেদিন শিক্ষার্থীরা শুধু ইটপাটকেলই নয়, আগ্নেয়াস্ত্র থেকে গুলিও ছুঁড়েছিল।

মামলার এজাহারে লিখা হয়েছে, রবিবার বিকাল সোয়া ৩টায় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে ভিসিকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে। তারা ড. এমএ ওয়াজদ আলী আইসিটি ভবনে তালা দিয়ে ভিসিকে অবরুদ্ধ করে রাখে। বিকাল ৩টা ৪০ মিনিটে এসএমপির উপ-কমিশনার (উত্তর) আজবাহার আলী শেখ ওই ভবনে ঢুকে শিক্ষকদের সাথে শিক্ষর্থীদের দাবি নিয়ে কথা বলে বিষয়টি সমাধানের অনুরোধ জানান। তিনি ভিসিকে ভবন থেকে বের করার চেষ্টা করেন। শিক্ষার্থীরা কারো কথা না শুনে স্লোগান অব্যাহত রাখে। একপর্যায়ে বিকাল সাড়ে ৫টায় আন্দোলনরত ২-৩শ’ উচ্ছৃঙ্খল শিক্ষার্থী কর্তব্যরত পুলিশের ওপর চড়াও হয়। তারা সরকারি আগ্নোয়াস্ত্র ধরে টানাটাানি করে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। চারদিক থেকে বৃষ্টির মতো ইটপাটকেল নিক্ষেপসহ আগ্নেয়াস্ত্র থেকে গুলি ছুঁড়ে। এ ছাড়াও পুলিশের ওপর ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ক্যাম্পাসে আতঙ্ক সৃষ্টি করে। ঘটনায় জড়িত শিক্ষার্থীরা সেদিন সোয়া ৩টা থেকে রাত সাড়ে ১১টা অবধি ক্যাম্পাসে অবস্থান করে থেম থেমে পুলিশের ওপর আক্রমণ অব্যাহত রাখে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ, জানমাল, আগ্নেয়াস্ত্র ও সরকারি সম্পত্তি রক্ষায় ৩১ রাউন্ড শটগানের গুলি ছুঁড়ে এবং সিআরটি ২১টি সাউন্ড গ্রেনেড নিক্ষেপ করে। শিক্ষার্থীদের ছোঁড়া গুলিতে কনস্টেবল সাবিনা আক্তারের বাম পায়ে জখম হয় বলে দাবি করেছে পুলিশ। এ ছাড়া ইটপাটকেলে আরও কয়েকজন আহত হওয়ার কথা এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে।

শিক্ষার্থীদের আলটিমেটাম: পুলিশের দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহারে আলটিমেটাম দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। আজ সন্ধ্যা সাড়ে ৫টায় আন্দোলনরতরা আলটিমেটাম দিয়ে বলেন, মঙ্গলবার রাত ১০টার মধ্যে মামলা প্রত্যাহার না হলে আরও কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী: শাবিতে অচল অবস্থা, ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, শিক্ষার্থী, শিক্ষক, কর্মচারী এবং পুলিশ সদস্য আহত হবার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও সিলেট ১ আসনের সাংসদ ড. এ কে আব্দুল মোমেন। গত সোমবার রাতে তিনি প্রতিনিধি পাঠিয়ে আন্দোলনরতদের সঙ্গে কথা বলেন। মন্ত্রীর নির্দেশে ক্যাম্পাস থেকে জলকামান, রায়টকার ও অতিরিক্ত পুলিশ সদস্যদের সরিয়ে নেওয়া হয়। গত রবিবারের ঘটনায় যারা আহত হয়েছেন, তাদের চিকিৎসার দায়িত্ব গ্রহণ করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি শিক্ষার্থীদের শৃঙ্খলা বজায় রাখার আহবান জানান। এদিকে, মন্ত্রীর পক্ষ থেকে তাঁর প্রতিনিধি ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি থাকা আহতদের দেখতে যান। এ ছাড়া ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের সাধারণ শিক্ষার্থীদের বিপক্ষে অবস্থান না নিতেও নির্দেশ দিয়েছেন ড. মোমেন।

এদিকে, গত সোমবার রাতে আহতদের দেখতে হাসপাতালে যান জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শফিকুর রহমান চৌধুরী ও মহানগরের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন। ওই সময় ফোনে আহত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক।

বিএনপির নিন্দা: শাবিতে শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশি হামলার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে মহানগর বিএনপি। মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক আব্দুল কাইয়ুম জালালী পংকী এক বিবৃতিতে বলেন, ‘শাবি মেধাবীদের তীর্থস্থান। যে প্রতিষ্ঠানকে নিয়ে আমরা সিলেটবাসীরা গর্ববোধ করি। কিন্তু সেই প্রতিষ্ঠানের ঐতিহ্য ও ভাবমূর্তিতে কলংকের লেপন এঁকে দিয়েছে ব্যর্থ উপাচার্য ও অদক্ষ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। তাদের অদক্ষতা ও ব্যর্থতায় নিরীহ শিক্ষার্থীদের উপর এমন ন্যক্কারজনক হামলা আমাকে বিস্মিত করেছে।’ 

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর