শিরোনাম
প্রকাশ : ১৭ জানুয়ারি, ২০২০ ১৯:৫৭

তুলে ধরলেন এক বছরের উন্নয়ন ফিরিস্তি

'উন্নত-আলোকিত' সিলেট গড়ার প্রত্যয় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট

'উন্নত-আলোকিত' সিলেট গড়ার প্রত্যয় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

গত ৭ জানুয়ারি পূর্ণ হয়েছে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন সরকারের তৃতীয় মেয়াদের এক বছর। এই এক বছরে সিলেট-১ আসনভূক্ত (সিটি করপোরেশন ও সদর উপজেলা) এলাকায় করা উন্নয়ন কাজের ফিরিস্তি দিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও ওই আসনের সংসদ সদস্য ড. এ কে আবদুল মোমেন। 

আজ শুক্রবার বিকেলে সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে তিনি বাস্তবায়িত ও চলমান উন্নয়ন কাজগুলো তুলে ধরেন। একই সাথে তিনি সিলেটের উন্নয়নে গৃহিত বেশ কিছু মেঘা প্রকল্পের বর্ণনা দেন। গৃহিত এসব প্রকল্প বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে তিনি 'উন্নত-আলোকিত' সিলেট গড়ার মাধ্যমে নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নেরও অঙ্গিকার ব্যক্ত করেন। 

এসময় মন্ত্রী জানান, বাংলাদেশের মধ্যে সর্বপ্রথম সিলেটকে তারবিহীন নগরী গড়ার কাজ শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে পাইলট প্রকল্পের একাংশের কাজ সফলভাবে সম্পন্ন করে ভূগর্ভ দিয়ে বিদ্যুৎ সঞ্চালন শুরু হয়েছে। নির্বাচনী প্রতিশ্রুতির অংশ হিসেবে দেশের মধ্যে প্রথম ডিজিটাল শহরও হতে যাচ্ছে সিলেট। 

সিলেট নগরীকে সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, এতে নগরবাসীর নিরাপত্তা বৃদ্ধি পেয়েছে। কমেছে অপরাধপ্রবণতা। নাগরিক সেবার মান বৃদ্ধি করতে চালু করা হয়েছে '৩৩৩' হেল্পলাইন সার্ভিস। '৩৩৩' নাম্বারে ফোন দিয়ে মানুষ এখন ঘরে বসে ৫২টি সেবা পাচ্ছে। 

সিলেটের চিকিৎসা সেবার উন্নয়নে ব্যাপক কর্মযজ্ঞ হাতে নেওয়া হয়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ইতোমধ্যে ৩১ শয্যাবিশিষ্ট খাদিমপাড়া হাসপাতালের আউটডোর চালু করা হয়েছে। পূর্ণাঙ্গ চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে জনবল নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। ওসমানী হাসপাতালে রোগীর চাপ কমাতে নগরীর চৌহাট্টায় ২৫০ শয্যার হাসপাতাল নির্মাণ কাজ এগিয়ে চলছে। ওসমানী হাসপাতালে সেবার মান বাড়াতে বহুতল নতুন ভবন নির্মাণ, নতুন আইসিইউ ইউনিট চালু ও শিশুদের জন্য এনআইসিইউ চালুসহ বিপুল পরিমাণ যন্ত্রপাতি সরবরাহ করা হয়েছে। এছাড়া সিলেট মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের জায়গা নির্ধারণ করে অধিগ্রহণ কাজ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। 

সিলেটকে পর্যটন নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে সুরমা নদীর তীর উদ্ধার করে ওয়াকওয়ে নির্মাণ, ট্রাক ও বাস টার্মিনালগুলোকে আধুনিকায়ন করা, শাহপরাণ দরগা এলাকার সৌন্দর্য্যবৃদ্ধিসহ নগরীকে দৃষ্টিনন্দন করতে গৃহিত ও বাস্তবায়িত প্রকল্পগুলো তুলে ধরেন ড. মোমেন। এসময় সুরমা নদী ও তীর ঘিরে 'দৃষ্টিনন্দন সিলেট' গড়ার নানা প্রকল্প সম্পর্কেও সাংবাদিকদের অবগত করেন মন্ত্রী।
  
শিক্ষার উন্নয়নে গত এক বছরে অনেকগুলো প্রকল্প বাস্তবায়ন হয়েছে জানিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সিলেট-১ আসনের ৬০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নতুন ভবন দেওয়া হয়েছে। এছাড়া ১২৮টি কলেজে আড়াই কোটি থেকে ৮ কোটি টাকা পর্যন্ত বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। যানজট নিরসনে সিলেটে দুটি রিং রোড নির্মানেরও পরিকল্পনার কথা জানান তিনি। 

যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে গৃহিত মেগা প্রকল্পগুলো তুলে ধরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আগ্রহে সিলেট-ঢাকা মহাসড়ক ৬ লেন হচ্ছে। এই মহাসড়ক নির্মাণের অর্থ বরাদ্দ দিচ্ছে এডিবি। মহাসড়ক ৬ লেন হলে তিন থেকে সাড়ে তিন ঘন্টায় সিলেট থেকে ঢাকায় যাওয়া যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। 

এছাড়া সিলেট-আখাউড়া রেলপথ ডাবল গেজ করার পরিকল্পনার কথা জানান মন্ত্রী। রেলপথ সংস্কার ও আধুনিকায়নের পাশাপাশি সিলেট রুটে চলাচলকারী ট্রেনে নতুন বগি সংযোজন ও নতুন ট্রেন চালুর কথাও জানান তিনি। ওসমানী বিমানবন্দর থেকে শিগগিরই সরাসরি আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালুর কথা জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, বিমানবন্দরটিকে যুগোপযোগী ও আধুনিকায়ন করতে প্রায় তিন হাজার কোটি টাকার প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। 

 

বিডি-প্রতিদিন/ সিফাত আব্দুল্লাহ


আপনার মন্তব্য