শিরোনাম
প্রকাশ : ১৫ জুলাই, ২০২০ ১৭:৫৬
আপডেট : ১৫ জুলাই, ২০২০ ১৭:৫৭

সুনামগঞ্জে বন্যায় বিশুদ্ধ পানির তীব্র সংকট

সিলেট ব্যুরো

সুনামগঞ্জে বন্যায় বিশুদ্ধ পানির তীব্র সংকট
সংগৃহীত ছবি

সুরমা নদীর পানি কমতে শুরু করায় সুনামগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে। কিন্তু দুর্ভোগ কমেনি সুনামগঞ্জের বানভাসি মানুষের। পানিবন্দী রয়েছেন জেলা শহর সহ ১১ উপজেলার কয়েক লাখ মানুষ।

বন্যায় বসত বাড়িসহ টিউবওয়েল ডুবে যাওয়ায় বিশুদ্ধ পানির সংকট দেখা দিয়েছে। ফলে ডায়রিয়া ও পানি বাহিত রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিতে পারে বলে মনে করছেন সচেতন মহল। তবে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে বলে জানিয়েছে সুনামগঞ্জ জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর। সুনামগঞ্জ পৌর এলাকা ও প্রতি উপজেলায় পানি বিশুদ্ধিকরণ ট্যাবলেট দেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, পাহাড়ি ঢল ও টানাবৃষ্টিতে সৃষ্ট বন্যায় বসতভিটায় পানি উঠায় জেলার ১১ উপজেলার ৩৫২টি আশ্রয় কেন্দ্র ও বিভিন্ন উঁচু স্থানে অবস্থান করছেন বানবাসী মানুষ। আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে একই সাথে অনেক মানুষ অবস্থান করায় খাবার, বিশুদ্ধ পানি ও স্যানিটেশন সমস্যায় ভোগছেন বন্যার্তরা। এছাড়াও অনেক পরিবার নিরুপায় হয়ে মাচাই বেঁধে অবস্থান করছেন।

আয় রোজগার না থাকায় খাদ্যাভাবের সাথে সাথে ভোগছেন নিরাপদ পানি সংকটে। আশ্রয় কেন্দ্র ও বন্যা কবলিত এলাকায় পানিবাহিত বিভিন্ন রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। বিশুদ্ধ পানি সরবরাহসহ রোগা আক্রান্ত মানুষদের চিকিৎসা প্রয়োজন হলেও তা পাচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন বানবাসী মানুষ।  

সদর উপজেলার বড়পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অবস্থান করছেন ৪০টি পরিবার। এই আশ্রয় কেন্দ্রটিতে বিশুদ্ধ পানিসহ স্যানিটেশন ব্যবস্থার অভাব রয়েছে। ফলে আশ্রয় নেয়া মানুষগুলো রয়েছেন বিপাকে।

রহিমা নামে এক নারী জানান, আমার বাড়ি পানিতে তলিয়ে গেছে। তিনদিন ধরে স্কুলে অবস্থান করছি। স্কুলে প্রসাব পায়খানা করার সু-ব্যবস্থা নেই। ছোট ছোট বাচ্চা নিয়ে আমার মতো অনেকেই বিপাকে পড়েছেন। এখানে রয়েছে নিরাপদ পানির অভাব।

শহরের জামতলা এলাকার আশরাফুল ইসলাম সুমন বলেন, আমাদের টিউবওয়েল পানির নিচে। জমানো কিছু পানি ছিল সেটা দিয়েই চলছে। সবকিছু নিয়ে বড় বিপদে আছি।

সুনামগঞ্জ জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী আবুল কাশেম বলেন, যেখানে টিউবওয়েলের ব্যবস্থা নেই সেখানে আমরা অস্থায়ী টিউবওয়েল স্থাপনের ব্যবস্থা করার পরিকল্পনা করছি। পানি সংক্রান্ত যে কোনো অসুবিধায় জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরে যোগাযোগ করা হলে তাৎক্ষণিক সমাধানের চেষ্টা করা হবে।

সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক আব্দুল আহাদ জানান, বন্যায় দুর্গতদের জন্য প্রয়োজনীয় শুকনো খাবার, পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট, নগদ অর্থসহ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া প্রতিটি উপজেলায় আশ্রয় কেন্দ্রে সেবা প্রদান করা হচ্ছে।

বিডি প্রতিদিন/আরাফাত


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর