শিরোনাম
প্রকাশ : ১ ডিসেম্বর, ২০২০ ২০:২০
প্রিন্ট করুন printer

চট্টগ্রাম এইডস প্রতিরোধে সম্মিলিত কর্মসূচি চলছে

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম

চট্টগ্রাম এইডস প্রতিরোধে সম্মিলিত কর্মসূচি চলছে

‘চট্টগ্রামে মা হতে শিশুতে এইচআইভি সংক্রমণ প্রতিরোধে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতাল, জেনারেল হাসপাতাল ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন মেমন মাতৃসদন হাসপাতালে সম্মিলিতভাবে সেবা দেওয়া হচ্ছে।

এ তিন কেন্দ্রে সেবা নিতে আসা সকল গর্ভবতী এবং প্রসূতি মহিলাদের কাউন্সেলিং ও এইচআইভি পরীক্ষা করা হচ্ছে। তাছাড়া এইচআইভি আক্রান্ত গর্ভবতী মহিলাদের প্রসবপূর্ব সেবা, নিরাপদ প্রসব, প্রসবোত্তর চিকিৎসা সেবা, মায়ের ও নবজাতকের এআরভি প্রফাইলাক্সিস, শিশুদের বুকের দুধ খাওয়ানো সম্পর্কিত কাউন্সেলিংসহ নানা কার্যক্রম যথাসময়ে পালনের মাধ্যমে নবজাতকের মাঝে এইচআইভি সংক্রমণের হার উল্লেখযোগ্যভাবে কমিয়ে আনা এবং প্রতিরোধ করা সম্ভব।’ 

আজ মঙ্গলবার সকালে ‘সারা বিশ্বের ঐক্য, এইডস প্রতিরোধে সবাই নিব দায়িত্ব’ শীর্ষক প্রতিপাদ্য নিয়ে বিশ্ব এইডস দিবসের র‌্যালি পূর্ব বক্তব্যে বক্তারা এসব কথা বলেন। র‌্যালি উদ্বোধন করেন চমকের অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ডা. নাসির উদ্দিন মাহমুদ ও চমেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এস এম হুমায়ুন কবীর।    

গত এক বছরে চমেক হাসপাতালে নতুন করে এইচআইভি শনাক্ত হয় মোট ৩৯ জন। এর মধ্যে পুরুষ ২২ জন, মহিলা ১৩ জন, শিশু ১ জন এবং হিজড়া ৩ জন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় ১ জন। প্রিভেনশন অব মাদার টু চাইল্ড ট্রান্সমিশন (পিএমটিসিটি) প্রকল্পের আওতায় চমেক হাসপাতাল, জেনারেল হাসপাতাল ও মেমন মাতৃসদন হাসপাতালে এইডস আক্রান্ত মায়েদের বিনামূল্যে সেবা দেওয়া হয়।  

প্রকল্পের ব্যবস্থাপক মো. আলী হোসেন বলেন, ‘২০১৩ সাল থেকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অধীনে জাতীয় এইডস/এসটিডি প্রোগ্রামের আওতায় ইউনিসেফ বাংলাদেশের সহায়তায় মা হতে শিশুর শরীরে এইচআইভি সংক্রমণ প্রতিরোধের লক্ষ্যে চট্টগ্রামে পিএমটিসিটি প্রকল্পটি চালু হয়। চালুর পর থেকে থেকে গত অক্টোবর পর্যন্ত এ কর্মসূচির আওতায় ৯৮ লাখ ৩৭৮ জন গর্ভবতী মহিলার এইচআইভি কাউন্সেলিং এবং ৯৫ লাখ ৭১৮ জনের এইচআইভি টেস্ট করা হয়।’   

বিডি প্রতিদিন/আবু জাফর


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর