শিরোনাম
প্রকাশ : ২৫ এপ্রিল, ২০১৯ ১৬:৫৫

রংপুর বিভাগে চলছে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট

নিজস্ব প্রতিবেদক, রংপুর

রংপুর বিভাগে চলছে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট
প্রতীকী ছবি

সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের ডাকে পুরো রংপুর বিভাগের ৮ জেলায় অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট  চলছে। চট্টগ্রামে গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পরিচয়ে জালাল উদ্দিন নামে এক বাস চালককে পিটিয়ে হত্যার প্রতিবাদে এ পরিবহন ধর্মঘট পালন করছে শ্রমিকরা।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে অভ্যন্তরীণ ও দূরপাল্লার যাত্রীবাহী কোনো বাস না ছাড়ায় চরম দুর্ভোগে পড়েছে যাত্রীরা। এ কারণে রংপুর মহানগরীর কামারপাড়া ঢাকা কোচ স্ট্যান্ড থেকে অনেক যাত্রীই হতাশ হয়ে ফিরে গেছে।

স্থানীয় শ্রমিক নেতারা জানায়, চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার শান্তিরহাট এলাকায় গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সদস্য পরিচয় দিয়ে জালাল উদ্দিন নামে শ্যামলী পরিবহনের এক বাস চালককে মারধর করে হত্যা করা হয়। এ ঘটনার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা থেকে রংপুর বিভাগের পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর, নীলফামারী, রংপুর, লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম ও গাইবান্ধা জেলায় অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দেন সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের রংপুর বিভাগীয় সভাপতি আকতার হোসেন বাদল।

অন্যদিকে ফেডারেশনের রংপুর বিভাগীয় সাধারণ সম্পাদক এম এ মজিদ বলেন, আমরা প্রথমে রংপুর বিভাগের চার জেলায় কর্মসূচি দিয়েছিলাম। কিন্তু বৃহস্পতিবার দুপুরে শ্রমিকদের চাপে পুরো বিভাগেই এই ধর্মঘট পালনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এদিকে সকালে সরেজমিনে রংপুর মহানগরীর কামারপাড়া ঢাকা বাসস্ট্যান্ড, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, মডার্ন মোড় বাসস্ট্যান্ড, মেডিকেল মোড় বাসস্ট্যান্ড, কুড়িগ্রাম লোকাল বাসস্ট্যান্ডসহ বিভিন্ন পয়েন্ট ঘুরে দেখা গেছে দূরপাল্লার কোনো বাস ছাড়েনি। কাউন্টার থেকে ফেরত পাঠানো হচ্ছে বাসের জন্য অপেক্ষায় থাকা যাত্রীদের। এতে করে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে সাধারণ যাত্রীরা।

মডার্ন মোড় এলাকায় বাসের জন্য অপেক্ষায় থাকা সুমন মিয়া নামে এক যাত্রী বলেন, আমি ঢাকায় যেতে সকালে বাড়ি থেকে বের হয়েছি। শুক্রবার আমার পরীক্ষা আছে। কিন্তু এখন শুনছি পরিবহন ধর্মঘট চলছে। বুঝতেছি না কী করব।’

কামারপাড়া কোচ স্ট্যান্ডের কলার বয় হোসেন আলী বলেন, ‘আমাদের ওস্তাদকে পিটিয়ে হত্যা করেছে পুলিশ। আমরা এর সঠিক বিচার চাই। বিচার না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।’

উল্লেখ্য, সোমবার (২২ এপ্রিল) রাত সাড়ে ১১টায় চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার শান্তিরহাট এলাকায় ডিবি পুলিশ পরিচয়ে শ্যামলী পরিবহনে ইয়াবা তল্লাশির নামে চালক জালাল উদ্দিনকে বাস থেকে নামিয়ে বেধড়ক মারধর করা হয়। এরপর গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

পরে বুধবার (২৪ এপ্রিল) রাতে জালালের মরদেহ নিজ বাড়ি দিনাজপুরে নিয়ে যাওয়া হয়। নিহত জালাল উদ্দিন দিনাজপুরের দশমাইল এলাকার আফজাল হোসেনের ছেলে। তার তিন ছেলে সন্তান ও স্ত্রী রয়েছেন।


বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য