Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৬:১৪
আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৭:২৪

রংপুরে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর মনোনয়ন প্রত্যাহার, নেতাকর্মীদের বিক্ষোভ

রংপুর প্রতিনিধি:

রংপুরে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর মনোনয়ন প্রত্যাহার, নেতাকর্মীদের বিক্ষোভ

রংপুর সদর আসনের উপ-নির্বাচন থেকে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম মনোনয়ন প্রত্যাহার করেছেন। সোমবার বিকেলে রংপুর আঞ্চলিক নির্বাচন কার্যালয়ের এসে তিনি মনোনয়ন প্রত্যাহার করেন। 

এদিকে মনোনয়ন প্রত্যাহারের পর রংপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে নৌকার প্রার্থীকে বহাল রাখার দাবিতে নেতাকর্মীরা ঘণ্টাব্যাপী সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ মিছিল প্রদর্শন করেন।
 
আওয়ামী লীগের কেন্দ্রী কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক মহাজোটের দিকে বিবেচনা করে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম রাজু মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেন। এরপর থেকে রংপুর নগরীতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বহাল রাখার দাবিতে ঘণ্টাব্যাপী সড়ক অবরোধ করে ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

রংপুর মহানগর যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কামরুজ্জামান শাহীন বলেন, আমরা রাজনীতি করে আজ হতাশ। রাজনীতি থেকে সরে দাঁড়ানো ছাড়া উপায় নেই।

রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক নোবেল শেখ বলেন, রংপুর-৩ আসনটি সবার জন্য উন্মুক্ত ঘোষণা করে দেওয়ার জন্য দেশ নেত্রী ও প্রধানমন্ত্রীর আশুদৃষ্টি কামনা করছি।

আওয়ামী লীগের প্রার্থী ও রংপুর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাক অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম রাজু কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কথায় আমি মনোনয়ন প্রত্যাহার করছি।

রংপুর আঞ্চলিক নির্বাচন কার্যালয়ের কনফারেন্স রুমে রিটার্নিং কর্মকর্তা জি. এম সাহাতাব উদ্দিন আওয়ামী লীগের প্রার্থী অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম রাজুর মনোনয়ন প্রত্যাহারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। 

এর আগে, গত ৭ সেপ্টেম্বর গণভবনে রংপুর উপ নির্বাচনের মনোনয়ন বাছাই বোর্ডের সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলীয় প্রার্থী দিয়েছিলেন রেজাউল করিম রাজুকে। তবে সেদিন প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, গঠনতন্ত্র অনুযায়ী বৃহৎ দল হিসেবে আমাদের প্রার্থী দিতে হয়, তাই দিলাম। আবার যেহেতু জাতীয় পার্টি (জাপা) আমাদের মহাজোটের অংশ, তাই এই প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নেওয়া হবে। আমরা জোটগত নির্বাচন করবো।

জাপার প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদের প্রতি সম্মান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী এই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন বলে জানান তিনি। এদিকে, বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা ক্ষোভ প্রকাশ করছেন।

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য