শিরোনাম
প্রকাশ : ৩১ অক্টোবর, ২০২০ ১৮:২০

অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতিতে শের-ই-বাংলা মেডিকেলের ইন্টার্ন চিকিৎসকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল

অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতিতে শের-ই-বাংলা মেডিকেলের ইন্টার্ন চিকিৎসকরা

এবার ঘোষণা দিয়ে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি শুরু করেছে ইন্টার্ন ডক্টরস এসোসিয়েশন। ৩ দফা দাবিতে এসোসিয়েশনের প্যাডে হাসপাতালের পরিচালকের কাছে স্মারকলিপি ও কর্মবিরতিপত্র দিয়ে শনিবার দুপুর ২টা থেকে কর্মবিরতি শুরু করেন তারা।

ইন্টার্ন ডক্টরস এসোসিয়েশনের সভাপতি ডা. সজল পান্ডে এবং সাধারণ সম্পাদক ডা. তরিকুল ইসলামের স্বাক্ষরিত স্মারকলিপি ও কর্মবিরতি পত্রে উল্লেখ করা হয়, শনিবার দুপুর ২ টার মধ্যে তাদের তিন দফা দাবির যৌক্তিক সমাধান না হওয়ায় কর্মবিরতিতে যেতে বাধ্য হয়েছেন তারা।

দাবিগুলো হলো-ডা. মাসুদ খান কর্তৃক ইন্টার্ন চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত প্রহসনমূলক মিথ্যা মামলা ও বিভিন্ন মাধ্যম কর্তৃক হয়রানি অনতিবিলম্বে প্রত্যাহার, ডা. মাসুদ খানের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের সুষ্ঠু বিচার এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও গণমাধ্যমে ডা. মাসুদের প্রচারকৃত অসত্যের জন্য মানহানির বিচার করা। 

এর আগে ডাগায়গনস্টিক সেন্টারের কমিশন ভাগাভাগি নিয়ে গত ২০ অক্টোবর কর্মরত অবস্থায় হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের ইউনিট-৪ এর সহকারী রেজিস্ট্রার ডা. মো. মাসুদ খানকে মারধরের অভিযোগ ওঠে ইন্টার্ন চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় ইন্টার্ন ডক্টরস এসোসিয়েশনের সভাপতি ডা. সজল পান্ডে ও সাধারণ সম্পাদক ডা. তরিকুল ইসলামের নাম উল্লেখ করে আরো ৮/১০ জনের বিরুদ্ধে পরিচালকের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন ডা. মাসুদ। পরদিন ২২ অক্টোবর ইন্টার্ন চিকিৎসকরা ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে কমিশন আদায়, সিনিয়দের সাথে ঔদ্বত্য প্রদর্শন ও নারী সহকর্মীদের সাথে অশালীন আচরণের অভিযোগে ডা. মাসুদ খানের বিরুদ্ধে পরিচালকের কাছে স্মারকলিপি দেয় ইন্টার্ন চিকিৎসকরা। উভয় পক্ষের অভিযোগ তদন্তের জন্য ওইদিনই ৩ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেন হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. বাকির হোসেন।

ওই কমিটির রিপোর্ট দেয়ার আগেই গত ৩০ অক্টোবর ডা. মাসুদ খান তার উপর হামলার অভিযোগে ইন্টার্ন চিকিৎসক নেতাসহ কয়েক জনের বিরুদ্ধে কোতয়ালী মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়। মামলার আগাম খবর পেয়ে ২৯ অক্টোবর দিবাগত রাত ১২ টা ১ মিনিটে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা হাসপাতালের জরুরি বিভাগের গেটে তালা দিয়ে বিক্ষোভ করে। এরই ধারাবাহিকতায় ইন্টার্ন চিকিৎসকরা ঘোষণা দিয়ে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি শুরু করেন। 

হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. বাকির হোসেন জানান, দুই পক্ষকে নিয়ে আলোচনায় বসা হয়েছিল। কিন্তু কোনো পক্ষ তাদের নিজ নিজ অবস্থান থেকে ছাড় দিতে রাজি না হওয়ায় সমঝোতা হয়নি। সমস্যা সমাধানে চেষ্টা চালানো হচ্ছে বলে জানান পরিচালক। 

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর