শিরোনাম
প্রকাশ : ১৭ জুন, ২০২১ ২০:১৯
প্রিন্ট করুন printer

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন

স্কুলভিত্তিক রচনা প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের পুরষ্কার বিতরণ

গাজীপুর প্রতিনিধি

স্কুলভিত্তিক রচনা প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের পুরষ্কার বিতরণ
Google News

“জীবন ও স্বাস্থ্য সুরক্ষায় সকলের জন্য নিরাপদ খাদ্য” ও ছাত্র সমাজের ভূমিকা শীর্ষক স্কুলভিত্তিক রচনা প্রতিযোগিতার ফলাফল ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। রচনা প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়া ৫টি স্কুলের ৫০ জন শিক্ষার্থীকে পুরস্কৃত করেন গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম।

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের আয়োজনে ও C4C-JICA প্রকল্পের সহযোগিতায় বৃহস্পতিবার নগর ভবন সভাকক্ষে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আমিনুল ইসলামের (যুগ্ম সচিব) সভাপতিত্বে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় জুম অ্যাপ্সের মাধ্যমে বক্তব্য রাখেন সিফোরসি জাইকা প্রকল্পের টিম লিডার নাউকো আনজাই, জাইকা বাংলাদেশ অফিসের সিনিয়র প্রোগ্রাম অফিসার সানজিদা হক, যুক্ত ছিলেন ডেপুটি টিম লিডার টাইসুকে টকোকা, জাইকার অ্যাডভাইজার (লোকাল গর্ভনেন্স) কইহে ইয়ামামোতে মামুন। 

উপস্থিত ছিলেন গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের সচিব মো. মোস্তাফিজুর রহমান, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মো. আকবর হোসেন, ২০ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. শহিদুল ইসলাম, প্রধান সমাজকল্যাণ কর্মকর্তা মোছা. শিরিন সুলতানা, প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা নমিতা দে, আইন কর্মকর্তা জান্নাতুল ফেরদৌস, ফুড এন্ড স্যানিটেশন অফিসার মলয় কুমার দাস, বস্তি উন্নয়ন কর্মকর্তা ও জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. আব্দুল হামিদ সরকার।

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনে নাগরিকদের নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতকরণে বিভিন্ন সচেতনতা বৃদ্ধিমূলক কার্যক্রমের অংশ হিসাবে ছাত্র-ছাত্রীদের স্বাস্থ্য সচেতনতা ও নিরাপদ খাদ্য সম্পর্কে সম্যক ধারনা বৃদ্ধিকল্পে স্কুলভিত্তিক রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। সিটি মেয়রের অনুমোদনক্রমে প্রাথমিকভাবে ১০টি স্কুল নির্বাচন করা হয় এবং পর্যায়ক্রমে ছাত্র-ছাত্রীদের এ বিষয়ে ওরিয়েন্টশন প্রদান করা হয়। কিন্তু করোনা মহামারীর কারণে ৫টি স্কুলের রচনা প্রতিযোগিতার সার্বিক কার্যক্রম সম্পন্ন হয়। 

যে ৫টি স্কুলের রচনা প্রতিযোগিতার সকল কার্যক্রম সমাপ্ত হয়েছিল তাদের মধ্যে বিজয়ীদের পুরস্কৃত করা হয়। স্কুলগুলো হচ্ছে- চান্দনা উচ্চ বিদ্যালয়, নীলেরপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়, ছোটদেওড়া অগ্রণী উচ্চ বিদ্যালয়, মজলিশপুর উচ্চ বিদ্যালয় ও জাপান ইন্টারন্যাশনাল ড্রিম স্কুল। নবম ও দশম শ্রেণির ৩৭২ জন শিক্ষার্থী প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছিল। তার মধ্যে প্রতিটি স্কুলের ১০ জন সেরা ছাত্র-ছাত্রীকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। ৫টি স্কুলের মোট ৫০ জনকে এ পুরস্কার প্রদান করা হয়।

অনুষ্ঠানে জাপানে অনুষ্ঠিত জাপানী ছাত্র-ছাত্রীদের কর বিষয়ক রচনার অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন সিফরসি জাইকা প্রকল্পের সিটি গর্ভানেন্স স্পেশালিষ্ট ব্রজ কিশোর ত্রিপুরা। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন সংশ্লিষ্ট স্কুলের সম্মানিত শিক্ষক শিক্ষিকা, ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকবৃন্দ।

বিডি প্রতিদিন/আবু জাফর

এই বিভাগের আরও খবর