শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২৮ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৭ অক্টোবর, ২০১৯ ২৩:৪০

শাবি শিক্ষার্থী প্রতীকের মৃত্যু নিয়ে গোলকধাঁধা

মাহবুব মমতাজী ও শাহ দিদার আলম নবেল

শাবি শিক্ষার্থী প্রতীকের মৃত্যু নিয়ে গোলকধাঁধা

হজরত শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) শিক্ষার্থী তাইফুর রহমান প্রতীকের মৃত্যু নিয়ে এখনো চলছে নানা গোলকধাঁধা। প্রতীক আত্মহত্যা করেছেন- সব তদন্তে এটিই প্রমাণিত হয়েছে। তবে আত্মহত্যার প্ররোচনাকারীকে খুঁজে বের করা হয়নি। এদিকে প্রতীকের পরিবারের দাবি, প্রতীক আত্মহত্যা করেনি, তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড বায়োটেকনোলজি (জিইবি) বিভাগের ২০১১-১২ সেশনের শিক্ষার্থী ছিলেন প্রতীক।

গত ১৪ জানুয়ারি সিলেটের কোতোয়ালি থানার পশ্চিম কাজলশাহে ১১৭ নম্বর ভাড়া বাসা থেকে তার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়। পরদিন কোতোয়ালি মডেল থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়। পরে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠানো হয়। এ ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রতীকের মৃত্যুর জন্য শাবির জিইবি বিভাগের শিক্ষকদের দায়ী করেন তার বড় বোন ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কমিউনিকেশন ডিসঅর্ডার বিভাগের শিক্ষক শান্তা তাওহিদা। অনার্সে প্রথম শ্রেণিতে প্রথম হওয়া সত্ত্বেও প্রতীককে মাস্টার্সে সুপারভাইজার না দেওয়া এবং বিভিন্ন কোর্সে কম নম্বর দেওয়ার অভিযোগ করেন তিনি।

প্রতীক আত্মহত্যা করেছেন উল্লেখ করে গত ১২ মার্চ আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশের এসআই আকবর হোসাইন ভূঁইয়া। এর আগে গত ২২ জানুয়ারি ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক ডা. রাহিমিন নওরোজ এ খোদা তার রিপোর্ট দিয়ে দেন। ময়নাতদন্তের ওই রিপোর্টে তিনি উল্লেখ করেছেন, শরীরে আঘাতের কোনো চিহ্ন ছিল না। পুলিশের সুরতহালের রিপোর্ট এবং ময়নাতদন্তে সংগ্রহ করা আলামত থেকে পাওয়া তথ্যে দেখা যায়- প্রতীক গলায় ফাঁস নিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। 

এ বিষয়ে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. শামসুল ইসলাম বাংলাদেশ প্রতিদিনকে জানান, আত্মহত্যা দুই ধরনের হয়ে থাকে। পারসিয়াল আর ইমপারসিয়াল। শরীরের কোনো অংশ যদি মাটি, দেয়াল কিংবা অন্য কোনো বস্তুর সঙ্গে লেগে থাকে তাহলে সেটি পারসিয়াল সুইসাইড। প্রতীকের ক্ষেত্রে যেটি হয়েছে সেটি পারসিয়াল সুইসাইড। সবদিক বিশদভাবে বিশ্লেষণ করে ময়নাতদন্তের রিপোর্টে প্রতীক আত্মহত্যা করেছে বলে আমরা মতামত দিয়েছি। এরপরও পরিবারের আপত্তি থাকলে তারা আদালতে নারাজি দিতে পারে এবং আদালত চাইলে পুনরায় ময়নাতদন্ত হবে।

তদন্ত কর্মকর্তা আকবর হোসাইন ভূঁইয়া জানান, প্রতীক ছিল অত্যন্ত মেধাবী। নানা কারণে তিনি হতাশাগ্রস্ত হয়ে আত্মহত্যা করেছেন। ঘটনার দিন প্রতীকের বান্ধবী তাসনিম নূশা তার ড্রাইভারসহ ঘটনাস্থলে গিয়ে বাসার দরজা ধাক্কাধাক্কি করেন। ভিতর থেকে কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে বাসার দারোয়ানসহ মই দিয়ে দরজার ওপরের ভেন্টিলেটর দিয়ে দেখতে পান প্রতীক সিলিং ফ্যানের সঙ্গে গলায় ফাঁস নিয়ে ঝুলে আছে। সুরতহাল করার সময় যেসব উপসর্গ দেখা গেছে তাতে মনে হয়েছে ঘটনাটি আত্মহত্যার। এরপর চিকিৎসকও ময়নাতদন্ত করে আত্মহত্যা পেয়েছেন। আর ডিপার্টমেন্ট, বান্ধবী ও পরিবারের সঙ্গে দূরত্ব এবং মানসিক দুরবস্থার বিষয়গুলোকে গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করা হয়। যখন সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করা হয় তখন প্রতীকের বান্ধবী নাফিসা তাসনিম নূশা এবং নূশার বাবা সিদ্দিকুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। যদি প্রতীকের আত্মহত্যারই প্রমাণ পাওয়া যায় তাহলে আত্মহত্যার প্ররোচনাকারীকে চিহ্নিত করতে পেরেছেন কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ঘটনার দিন প্রতীকের পরিবার সে ধরনের কোনো অভিযোগ করেনি- তাই তদন্ত সেদিকে নেওয়া হয়নি। এজন্য মোবাইল ফোন পরীক্ষা-নিরীক্ষা এবং কললিস্টও যাচাই-বাছাই করা হয়নি। তবে প্রতীকের বান্ধবীকে বিভিন্নভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে, বিভিন্ন প্রশ্ন করা হয়েছে।

এদিকে প্রতীকের মৃত্যুর ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। ঘটনার ৯ মাসও তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে পারেনি গঠিত কমিটি। বিশ্ববিদ্যালয়ের এগ্রিকালচার অ্যান্ড মিনারেল সায়েন্স অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ বেলাল উদ্দীনকে প্রধান করে তদন্ত কমিটি করা হয়। কমিটির অপর সদস্যরা হলেন- গণিত বিভাগের অধ্যাপক ড. আনোয়ারুল ইসলাম ও সহকারী প্রক্টর সামিউল ইসলাম।

প্রতীকের বাবা মো. তৌহিদুজ্জামান বলেন, ওই ঘটনার দিক থেকে নূশার আচরণ রহস্যজনক। পুলিশও সঠিকভাবে তদন্ত করেনি। প্রতীক আত্মহত্যা করেনি, তাকে হত্যা করা হয়েছে। নূশা লাশ উদ্ধারের পর থেকে প্রতীকের মায়ের কোনো ফোন আর রিসিভ করেনি। কোনো কথাও বলেনি। শুধু একবার নূশার বাবার সঙ্গে কথা হয়েছিল। তিনি ছেলের মৃত্যুর ঘটনাটি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) মাধ্যমে পুনরায় তদন্তের দাবি করেন। 

এদিকে তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়ার দাখিল করা চূড়ান্ত প্রতিবেদনের ওপর গত ১১ সেপ্টেম্বর সিলেটের অতিরিক্ত জেলা হাকিম আদালতে নারাজি আবেদন দিয়েছেন তৌহিদুজ্জামান। ওই আবেদনে তিনি তদন্ত কর্মকর্তার চূড়ান্ত প্রতিবেদনের একাধিক বিষয়ে আপত্তি তুলেছেন। এর মধ্যে- একাধিক স্থানে সময়ের উল্লেখ সম্পর্কে বিভ্রান্তি, দরজা ভাঙার বিস্তারিত বর্ণনা না থাকা, প্রতীককে মৃত ঘোষণাকারী চিকিৎসকের কথা উল্লেখ না থাকা, প্রতীকের লাশ নামানোর বিষয়েও প্রশ্ন তুলেছেন। এ ছাড়া ঝুলন্ত লাশের তোলা ছবিতে আত্মহত্যার আলামত না থাকারও দাবি করেছেন। তিনি অভিযোগ করেছেন, ওই তদন্ত প্রতিবেদনে সিসিটিভি ফুটেজ পরীক্ষা-নিরীক্ষার কথা উল্লেখ করা হয়নি, কল রেকর্ড পরীক্ষার ব্যবস্থা করেনি, কিছু কিছু বিষয়ে অসম্পূর্ণ ও মনগড়াভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর