শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ৮ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ৮ এপ্রিল, ২০২০ ০০:২৭

চট্টগ্রামে অস্বাভাবিকভাবে বাড়ছে ফলের দাম

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম

চট্টগ্রামে অস্বাভাবিকভাবে বাড়ছে ফলের দাম

করোনাভাইরাসের কারণে দেশের প্রায় সবখানে লকডাউনের পাশাপাশি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানও। রয়েছে প্রশাসনের কড়া নজরদারিও। এতে চট্টগ্রামের সবচেয়ে বৃহৎ বিআরটিসি ফলমন্ডির পাইকারি বাজারে ভিটামিন সি-সমৃদ্ধ ফলের দাম বেড়েছে অস্বাভাবিক। এক সপ্তাহ ধরে বাজারটিতে ঊর্ধ্বমুখী রয়েছে আমদানিকৃত ভিটামিন সি-সমৃদ্ধ ফল মাল্টা, কমলা ও ক্যানুলার। এর আগে প্রায় দুই সপ্তাহের বেশি সময় থেকে অস্বাভাবিক বেড়ে রয়েছে দেশি ফল লেবুর দামও। আন্তর্জাতিক বাজারে বুকিং দর বেড়ে যাওয়ায় দেশি বাজারেও ভিটামিন সি-সমৃদ্ধ আমদানিকৃত সব ফলের অস্বাভাবিক দাম বেড়েছে বলে মন্তব্য আমদানিকারকদের। তবে এসব বাজারের একটি চক্র নানা কৌশলে দাম বাড়ানোর অভিযোগ উঠলেও প্রশাসন কড়া নজরদারিতে রেখেছেন বলেও জানান প্রশাসনের দায়িত্বশীলরা।

সাবেক কাউন্সিলর ও সংগঠক জামাল হোসেন বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে ভিটামিন সি-সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণের পরামর্শ দিচ্ছেন। ভিটামিন সি-যুক্ত খাবার গ্রহণেও আগ্রহ বেড়েছে মানুষের। দু-তিন সপ্তাহ থেকে প্রায় সব ধরনের অরেঞ্জের (মাল্টা, কমলা ও ক্যানুলা) দাম অতিরিক্ত বেড়েছে। তবে ব্যবসায়ী একটি সিন্ডিকেট এসব দাম বাড়িয়ে নানা কৌশলে অতিরিক্ত লাভও করতে পারে বলে জানান তিনি। একই কথা বললেন এনজিও কর্মকর্তা মো. শহিদুল ইসলামও। পাইকারি বাজার থেকে কিনে খুচরা বিক্রেতা সুন্নিয়া মাদ্রাসা এলাকার কালাম বলেন, পাইকারি বাজারের প্রভাবে খুচরা বাজারে ফলের দাম প্রচুর বেড়েছে। আগে প্রতি কেজি মাল্টা বিক্রি হতো ৯০-১১০ টাকার মধ্যে। দুই সপ্তাহ ধরে দফায় দফায় বেড়ে একই মাল্টা কেজিপ্রতি ১৩০-১৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। আগে প্রতি ডজন কমলা বিক্রি হতো ১৫০-১৮০ টাকায়; যা এখন ২০০-২২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। একইভাবে ক্যানুলাসহ প্রায় সব ফলের দাম ধীরে ধীরে বাড়ছে বলে জানান তিনি। ফলমন্ডির পাইকারি ব্যবসায়ী আলমগীরসহ একাধিক ব্যবসায়ী বলেন, ১৫ দিন ধরে আপেলের বাজার অনেকটা স্থির। এতে আন্তর্জাতিক বাজারে ক্রমাগত দাম বৃদ্ধির ফলে আপেলের দামও বৃদ্ধি পেতে পারে বলে আশঙ্কা ব্যবসায়ীদের। চট্টগ্রাম ফল ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আবদুল মালেক খান বলেন, করোনায় চাহিদা বৃদ্ধিতে আন্তর্জাতিক বাজারে অরেঞ্জ-জাতীয় ফলের বুকিং দর আগের যে কোনো রেকর্ড ছাড়িয়েছে। এতে দেশি বাজারে ফলের দাম বেড়েছে। গত কয়েক দিনে বন্দরে পণ্যের জট লেগে আছে। তা ছাড়া আমদানি পণ্যের ডেলিভারি ব্যাহত হওয়ায় ফলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় বহু পণ্যের দাম অস্বাভাবিক বেড়েছে। তবে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের খালাসে অগ্রাধিকার দেওয়ার দাবি জানান তিনি।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর