শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১০ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৯ এপ্রিল, ২০২১ ২৩:৪১

রাজশাহীতে ৪০ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পাচ্ছে আইসিইউ

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী

Google News

করোনা রোগীর চিকিৎসায় আইসিইউ বেড দেওয়া হচ্ছে রাজশাহী বিভাগের ছয় জেলার ৪০ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। করোনার ভয়াবহ পরিস্থিতি মোকাবিলায় সরকার এই উদ্যোগ নিয়েছে। বগুড়ার ১১ এবং পাবনার ৮ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ছাড়া বাকি ছয় জেলার ৪০টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অন্তত একটি করে আইসিইউ বেড দেওয়া হবে। জেলার সদর হাসপাতালগুলোতেও যাবে আইসিইউ বেড। যেসব হাসপাতালে আইসিইউ সুবিধা আছে, সেগুলোতে বাড়বে সংখ্যা। বিভাগীয় স্বাস্থ্য দফতর এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

বর্তমানে করোনা চিকিৎসায় চারটি হাসপাতালে জরুরি আইসিইউ বেড রয়েছে ৫১টি। এর মধ্যে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে ১৩টি, মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে ৮টি ও টিএমএসএম হাসপাতালে ১০টি আইসিইউ বেড রয়েছে। এর বাইরে রাজশাহী মেডিকেলে ২০টি আইসিইউ বেড আছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জেলা-উপজেলা পর্যায়ের হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালের জন্য আরও ১২৪টি আইসিইউ বেডের চাহিদা পাঠিয়েছে বিভাগীয় স্বাস্থ্য দফতর। এর বাইরেও শজিমেক হাসপাতালের জন্য ২০টি এবং রাজশাহী মেডিকেলের জন্য ১০টি আইসিইউ বেডের চাহিদা পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া রাজশাহীর ৯ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জন্য ১০টি, চাঁপাইনবাবগঞ্জের আধুনিক সদর হাসপাতালের জন্য ১০টি, সেখানকার চার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জন্য চারটি, নওগাঁ সদর হাসপাতালের জন্য ১০টি, জেলার ১০ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জন্য ২০টি, পাবনা জেনারেল হাসপাতালের জন্য ৫টি, সিরাজগঞ্জের বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালের জন্য ১০টি, জেলার আরও আট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জন্য ১০টি, বগুড়ার মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের জন্য দুটি এবং জয়পুরহাট আধুনিক সদর হাসপাতালের জন্য ১০টি মনিটরসহ আইসিইউ বেডের চাহিদা পাঠানো হয়েছে।

পরিস্থিতির অবনতি হওয়ার আগেই হাসপাতালগুলোর সক্ষমতা ও চিকিৎসা সরঞ্জামের মজুদ বাড়ানোর তাগিদ দিয়েছেন রাজশাহী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. নওশাদ আলী। তিনি বলেন, করোনা রোগীর জন্য বেড, অক্সিজেন সিলিন্ডার, হাই-ফ্লো নেজাল ক্যানুলা, ভেন্টিলেটর ও অক্সিজেন কনসেনট্রেটরসহ চিকিৎসা সরঞ্জাম বাড়াতে হবে।

বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. হাবিবুল আহসান তালুকদার বলেন, কয়েক দিন ধরেই তারা বিভাগের জেলা পর্যায়ের হাসপাতালগুলো ঘুরে দেখেছেন। বর্তমান করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় ৬ মাসের একটি চিকিৎসা পরিকল্পনা নিয়ে চাহিদাপত্র পাঠানো হয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর