শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৬ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৫ মে, ২০২১ ২৩:১৭

সংক্ষিপ্ত

Google News

কৃষিজমিতে বালু ফেলার প্রতিবাদ

পশুর নদী ড্রেজিংয়ের বালু ফেলে কৃষিজমির ক্ষতিসহ জমি মালিকদের ভয়ভীতি প্রদর্শনের প্রতিবাদে মোংলা উপজেলার চিলা ইউনিয়নের সাত গ্রামের জমি মালিকরা মানববন্ধন ও সংবাদ সম্মেলন করেছেন। বাগেরহাট প্রেস ক্লাবের সামনে গতকাল মানববন্ধন শেষে প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন ক্ষতিগ্রস্তরা। মানববন্ধন চলাকালে বক্তারা বলেন, কৃষকরা দীর্ঘদিন থেকে বংশ পরম্পরায় সুন্দুরতলা, তেলিখালী, আমতলা, গাববুনিয়া, কলাতলা, কেয়াবুনিয়া ও চিলা গ্রামের অন্তর্গত পশুর নদীর পাড়ের কৃষি জমিতে ফসল ও মাছ চাষ করে আসছেন। সাম্প্রতি পশুর নদী ড্রেজিং প্রকল্পের আওতায় নদী ড্রেজিং করে বালু তাদের কৃষি জমিতে ফেলার সিদ্ধান্ত হয়েছে। তাদের ৭০০ একর জমিতে এই বালু ফেলা হবে। জমির মালিকদের কোনো ক্ষতিপূরণ না দিয়ে ড্রেজিং শুরু করেছে। গ্রামবাসী কৃষিজমি ও কৃষকদের জীবিকা রক্ষায় যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ, সরকার ও প্রশাসনের প্রতি দাবি জানান। -বাগেরহাট প্রতিনিধি

 

মুক্তিযোদ্ধাকে হয়রানি

কুমিল্লার মেঘনা উপজেলার সত্তরঊর্ধ্ব বয়স্ক দুই বীর মুক্তিযোদ্ধাকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছেন বলে গণমাধ্যমের কাছে অভিযোগ করেছেন তারা। তারা বলেন, উপজেলার চরপাতালিয়া মৌজায় জমি সংক্রান্ত ঘটনায় প্রতিপক্ষ শরীফ হোসেন একটি মামলা করেন। ওই মামলার বীর মুক্তিযোদ্ধা এ. কে. এম শহিদুল্লাহ যিনি কিডনি রোগী ডায়ালাইসিসের চিকিৎসায় বেঁচে আছেন। অপর বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. আবুবকর যিনি জটিল রোগের কারণে চলাফেরা করতে পারেন না। মামলার এজাহারে নাম না থাকলেও অজ্ঞাত কারণে আসামিদের তালিকায় তাদের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। তারপরও শরীফ হোসেন অজ্ঞাত কারণে আমাদের মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছেন। -দাউদকান্দি (কুমিল্লা) প্রতিনিধি

 

প্রতিবাদ করায় ইউনিয়ন পরিষদে হামলা

জামালপুরের বকশীগঞ্জে যৌন উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় ইউনিয়ন পরিষদে হামলা ও প্রধানমন্ত্রীর মানবিক সহায়তা কার্যক্রমের নগদ টাকা লুটের ঘটনা ঘটেছে। বকশীগঞ্জ উপজেলার সাধুরপাড়া ইউনিয়ন পরিষদে গতকাল দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। ইউএনও মুন মুন জাহান লিজা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বকশীগঞ্জ উপজেলা সমাজসেবা অফিসের আওতায় বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতার উপকারভোগীদের ‘নগদ’ অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য সাধুরপাড়া ইউনিয়ন পরিষদে কাজ করছিলেন এক নারী কর্মী। স্থানীয় খানপাড়ার মিনাল নামে এক ব্যক্তি তখন ইউপি ভবনে ঢুকে ওই নারীকে উত্ত্যক্ত করেন। ভিকটিম পরিষদে থাকা ইউপি চেয়ারম্যান মাহমুদুল আলম বাবুকে বিষয়টি জানালে তিনি মিনালকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। -জামালপুর প্রতিনিধি

 

তরুণী অন্তঃসত্ত্বার ঘটনায় মামলা

ফরিদপুরের সালথায় বিয়ের আশ্বাসে একাধিকবার ধর্ষণে ২০ বছরের এক তরুণী অন্তঃসত্ত্বার ঘটনায় মামলা হয়েছে। ধর্ষক ফেলা মাতুব্বরকে প্রধান আসামি করে ১০ জনের নামে এ মামলা করেছেন ধর্ষিতা ওই তরুণী। এ ঘটনায় মনোয়ার হোসেন নান্নু নামে এক আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।  সালথা থানার ওসি মো. আশিকুজ্জামান বলেন, ধর্ষিত তরুণীর বাবা-মা মারা যাওয়ার পর গত ৫-৬ বছর ধরে তিনি উপজেলার ভাওয়াল ইউনিয়নের নারানদিয়া গ্রামে তার বোনের বাড়িতে থাকতেন। সেখানে থাকাকালীন প্রতিবেশী ফেলা মাতুব্বরের সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। পরে বিয়ের প্রলোভনে তাকে একাধিকবার ধর্ষণ করেন ফেলা। এতে ওই তরুণী অন্তঃসত্ত্বা হলে ধর্ষক ফেলা কয়েক মাস আগে বিদেশে চলে যান। বর্তমানে ওই তরুণী আট মাসের অন্তঃসত্ত্বা বলে জানা গেছে। ঘটনাটি স্থানীয় মাতুব্বররা ২ লাখ টাকার বিনিময়ে মীমাংসা করে দেন। -ফরিদপুর প্রতিনিধি

এই বিভাগের আরও খবর