শিরোনাম
বুধবার, ১৯ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ টা

টিনের ভাঙা ঘরে শিক্ষা কার্যক্রম

কুমিল্লা প্রতিনিধি

টিনের ভাঙা ঘরে শিক্ষা কার্যক্রম

কুমিল্লার সদর দক্ষিণ উপজেলার কুন্দারঘোড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন নির্মাণলভঁ বন্ধ রয়েছে। এ অবস্থায় ভাঙা টিনের ঘরে চলছে শিক্ষার্থীদের পাঠদান। ব্যাহত হচ্ছে শিক্ষা কার্যক্রম। বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী কমে যাচ্ছে। স্কুল ভবনের নির্মাণকাজ দ্রুত সম্পন্ন করার দাবি জানিয়েছেন অভিভাবকরা।

জানা যায়, ২০১৫ সাল থেকে কুন্দারঘোড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পুরনো ভবনটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ে। তখন শিক্ষার্থীরা খোলা আকাশের নিচে ও গাছতলায় লেখাপড়া করত। এরপর টিনের ছাউনি দিয়ে শ্রেণি কার্যক্রম চালানো হয়। স্থানীয়দের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৯ সালে নতুন ভবনের কাজ শুরু হয়। দ্বিতল ভবনটির কাঠামো গড়ে উঠলেও কয়েক দফা কাজ বন্ধ থাকে। সম্প্রতি কাজ বন্ধ হয়ে যায়। করোনার পর স্কুল খুললেও শিক্ষার্থীরা ক্লাস করার সুযোগ পাচ্ছে না। বৃষ্টি হলে টিনের চালা দিয়ে পানি পড়ে। ভাঙা ঘরে অনেক শিক্ষার্থী আসতে চায় না। দুই বছর আগে স্কুলটিতে ১৩০ জন শিক্ষার্থী ছিল। বর্তমানে আছে ৭০ জন। একজন অভিভাবক জানান, নির্মাণাধীন ভবনটি দীর্ঘদিন ধরে পড়ে আছে। কেন যে কাজ শেষ হচ্ছে না জানি না। ভাঙা ঘরে শিশুরা আসতে চায় না। প্রধান শিক্ষিক রহিমা আক্তার বলেন, আমরা দীর্ঘদিন ধরে নতুন ভবনের অপেক্ষায় আছি। পাঠদানে খুব সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। এ বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি। সদর দক্ষিণ উপজেলার প্রকৌশলী মেহেদী হাসান বলেন, আমরা ঠিকাদারকে বার বার তাগাদা দিয়েছি। এবার নোটিস দেব। সময়মতো কাজ শেষ না করলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুল মান্নান বলেন, কুন্দারঘোড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনের কাজ দীর্ঘদিন আটকে আছে। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট দফতরে আমরা কথা বলেছি।

সর্বশেষ খবর