শিরোনাম
প্রকাশ : ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৮:১৯
প্রিন্ট করুন printer

আপত্তিকর ছবি ফেসবুকে ভাইরাল, লজ্জায় আত্মহত্যা স্কুলছাত্রীর

মাদারীপুর প্রতিনিধি:

আপত্তিকর ছবি ফেসবুকে ভাইরাল, লজ্জায় আত্মহত্যা স্কুলছাত্রীর

ফেসবুকে আপত্তিকর ও অন্তরঙ্গ মুহূর্তের কিছু ছবি ভাইরাল হওয়ায় ক্ষোভে বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন মাদারীপুরের শিবচরে স্কুলছাত্রী লিপি আক্তার (১৭)। রবিবার দুপুরে মরদেহের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য মাদারীপুর মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

এলাকাবাসী ও পারিবারিক সূত্র জানায়, মাদারীপুরের শিবচরের উপজেলার কাদিরপুর গ্রামের যুবক রনি বেপারীর সাথে একই উপজেলার পাঁচ্চর ইউনিয়নের বালাকান্দি গ্রামের দুবাই প্রবাসীর মেয়ে স্কুলছাত্রী লিপি আক্তারের সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। ছেলে পক্ষের বিয়ের প্রস্তাব মেয়ের পক্ষ প্রত্যাখান করে। তারপর থেকেই বখাটে যুবক রনি বেপারী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে মেয়েটির কিছু অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবি আপলোড করে। এতে মেয়েটির বেশ কিছু ছবি ভাইরাল হয়। ওই ক্ষোভে গত ১৯ ফেব্রুয়ারী শুক্রবার সন্ধ্যায় মেয়েটি বিষপান করে। গুরুতর অসুস্থ লিপি আক্তারকে প্রথমে শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। সেখান থেকে প্রথমে ফরিদপুর এবং পরে ঢাকা নেয়ার পর রবিবার সকালে সে মারা যায়। 

এলাকার একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, বেনামে একটি আইডি  রনি বেপারী নামের এক যুবক পরিচালনা করতো। সে মেয়েটির বড় বোনের জামাইয়ের ছোট ভাই। যে কারণে পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় কোন অভিযোগ দায়ের করেনি। তবে খবর পেয়ে শিবচর থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে মৃতদেহ মাদারীপুর মর্গে পাঠায়। এই নিয়ে এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে। 

নিহতের চাচা ইউসুফ রাজি জানান, ‘আমার ভাতিজি লিপি আক্তারের ছবি ফেসবুকে ভাইরাল হওয়ার কারণে বিগত দুদিন আগে সে বিষাক্ত পদার্থ পান করে। রবিবার সকালে সে ঢাকায় মারা যায়।’

নিহতের মা হিরন বেগম জানান, ‘তার মেয়েকে এর আগে ওই বখাটে রনির পরিবার বিয়ের প্রস্তাব দেয়। আমার এক ভাগ্নিকে ওই বাড়িতে ওরই (রনি বেপারীর) চাচাতো ভাইয়ের কাছে বিবাহ দেওয়ায় আমরা সেখানে আত্মীয়তা করতে চাইনি। এ কারণে সে ক্ষিপ্ত হয়ে আমার মেয়ে কিছু ছবি ফেসবুকে ছেড়ে দেয় এবং ছবিসহ আরো ভিডিও ফেসবুকে ছাড়ার হুমকি দেয়।’

শিবচর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মিরাজ হোসেন জানান, লোক মারফত খবর পেয়ে সেখানে পুলিশ পাঠাই। ঘটনাস্থলে গিয়ে পুলিশ মরদেহের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে। লাশের ময়নাতদন্তে জন্য মাদারীপুর মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করা হয়েছে।  

এদিকে এই ঘটনার পর থেকে রনি বেপারীর পরিবারের কাউকে বাড়িতে পাওয়া যায়নি। বিভিন্ন মাধ্যমে যোগাযোগ করেও কাউকে পাওয়া যায়নি।


বিডি প্রতিদিন/হিমেল

এই বিভাগের আরও খবর