শিরোনাম
১ মার্চ, ২০২৪ ২১:৩২

বরিশালে বুয়েট শিক্ষার্থী নাহিয়ানের দাফন সম্পন্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল

বরিশালে বুয়েট শিক্ষার্থী নাহিয়ানের
দাফন সম্পন্ন

নাহিয়ান আমিনের নামাজে জানাজা এবং দাফন সম্পন্ন হয়েছে

ঢাকার বেইলি রোডের কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে অগ্নিকাণ্ডে মারা যাওয়া বরিশালের মেধাবী শিক্ষার্থী নাহিয়ান আমিনের নামাজে জানাজা এবং দাফন সম্পন্ন হয়েছে। শুক্রবার বাদ আছর নগরীর পলিটেকনিট ইন্সটিটিউট মসজিদের সামনে তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। পরে তার মরদেহ মুসলিম গোরস্থানে দাফন করা হয়। জানাজা এবং দাফনে স্থানীয় ১৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর সামজিদুল কবির বাবু, নিহতের স্বজন ও সহপাঠীসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার কয়েকশ মানুষ অংশগ্রহণ করেন। 

বরিশাল নগরীর ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের পলিটেকনিক রোডের বাসিন্দা বাক প্রতিবন্ধী রিয়াজুল আমিন বাবুর একমাত্র ছেলে নাহিয়ান আমিন বুয়েটের ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। ২০২০ সালে বরিশাল জিলা স্কুল থেকে এসএসসি পাশ করেন। ২০২২ সালে ঢাকা নটরডেম থেকে এইচএসসি পাশ করার পর বুয়েটে ভর্তি হন নাহিয়ান। তার একমাত্র বোন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী। 

এর আগে দুপুর আড়াইটার দিকে নাহিয়ানের মরদেহবাহী গাড়ি বরিশালে আসে। প্রথমে তার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় জিলা স্কুলের পিছনে কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজের সামনে। সেখানে জিলা স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, সাবেক সহপাঠী ও প্রতিবেশিরা নাহিয়ানের মরদেহ একনজর দেখতে ভিড় করে। এরপর লাশবাহী গাড়ি নিয়ে যাওয়া হয় নাহিয়ানের বাসভবন পলিটেকনিক রোডে। বাসভবনের সামনে লাশবাহী গাড়ি পৌঁছার পর নাহিয়ানের বাবা-মা বোন এবং স্বজনরাও কান্নায় ভেঙে পড়েন। এ সময় সেখানে হৃদয় বিদারক পরিবেশের সৃষ্টি হয়। 

নাহিয়ানের ফুফাতো ভাই বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন ইউনিটের সহকারী রেজিস্ট্রার ডা. নাভিদ নূর বলেন, ওকে হারানো শুধু পরিবারের লস না, দেশের লস। বরিশাল জেলার লস। 

ডা. নাভিদ আরও জানান, নাহিয়ানের শরীরে কোন বার্ন (দ্বগ্ধ) নেই। ধারণা করা হচ্ছে কার্বন মনোঅক্সাইডের কারণে (অতিরিক্ত ধোঁয়া) সে মারা গেছে। শোকে পাথর হয়ে যাওয়ায় নাহিয়ানের বাবা-মা ও বোনের কোন মন্তব্য পাওয়া যায়নি। 

বিডি প্রতিদিন/এএ

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর