শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২৫ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৪ মার্চ, ২০১৯ ২৩:৪৫

সম্মাননাপ্রাপ্তদের অনুভূতি

দশম বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে পাঁচজন গুণী ব্যক্তিকে সম্মাননা প্রদান করেছে বাংলাদেশ প্রতিদিন। তাদের অনুভূতি নিম্নে তুলে ধরা হলো-

সম্মাননাপ্রাপ্তদের অনুভূতি

কবি শামসুর রাহমানের পক্ষে পুত্রবধূ টিয়া রাহমান

প্রয়াত কবি শামসুর রাহমানকে দেওয়া মরণোত্তর সম্মাননা গ্রহণ করেন তার পুত্রবধূ টিয়া রাহমান। তিনি অবশ্য কোনো বক্তব্য রাখেননি।

সাবিনা ইয়াসমিন

আমি প্রতিদিন অনেকগুলো পত্রিকা নিই এবং পড়ি। কিন্তু সারা দিনে বাংলাদেশ প্রতিদিন না পড়লে মনে হয় কিছু একটা বাদ পড়েছে। শুধু দেশে নয়, ইউরোপ-আমেরিকাতেও বাংলাদেশ প্রতিদিন ভীষণ জনপ্রিয়। আমি আনন্দিত এবং গর্বিত যে, দেশের সর্বাধিক প্রচারিত দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন আমাকে সম্মাননা দিচ্ছে।

সারাহ্ বেগম কবরী

জনপ্রিয় এই পত্রিকাকে অভিনন্দন জানাই।’ বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহানকে ধন্যবাদ জানাই। তিনি শিল্প-সংস্কৃতির বিকাশে অনেক উদ্যোগ নিয়েছেন, সাংস্কৃতিক জগতের মানুষকে মূল্যায়ন করেছেন।’ বসুন্ধরা গ্রুপ চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহানকে উদ্দেশ করে সারাহ্ বেগম কবরী বলেন, ‘চলচ্চিত্র শিল্পকে এগিয়ে নিতে আপনার কাছে প্রত্যাশা, সিনেপ্লেক্স তৈরিতে সরকারের সঙ্গে আপনিও আমাদের সহযোগিতা করবেন। সিনেমা বানানোর জন্য আপনার সহযোগিতা চাই। এ স্মৃতি আপনাকে সম্মান, প্রশান্তি এবং ভালোবাসা দেবে।

ববিতার পক্ষে চম্পা

অভিনেত্রী ববিতার পক্ষে তার বোন অভিনেত্রী চম্পা বলেন, একটি সেমিনারে অংশগ্রহণ করতে ববিতা এখন আমেরিকায় অবস্থান করছেন। তিনি সম্মাননার প্রতিক্রিয়া বার্তায় বলেছেন, ‘আমাকে বিশেষ সম্মাননা প্রদান করায় আমি গভীরভাবে বাংলাদেশ প্রতিদিনের প্রতি কৃতজ্ঞ। জীবনের এই ছোট্ট আঁকাবাঁকা পথে দর্শকদের অকৃত্রিম ভালোবাসা আমাকে সিক্ত করেছে বারবার। বাংলাদেশ প্রতিদিন ভাষার কথা বলে হয়ে উঠেছে একটি প্রতিষ্ঠান। দেশের সীমানা অতিক্রম করে ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বব্যাপী। আমি এ পত্রিকার একজন গর্বিত পাঠক।’

হানিফ সংকেত

আমি আনন্দিত, উৎফুল্ল, উচ্ছ্বসিত এবং উদ্দীপ্ত। পুরস্কার পেলে মানুষ বলে, এই অর্জন আমার দায়িত্ব বাড়িয়ে দিয়েছে। প্রথমটির সঙ্গে আমি একমত হলেও দ্বিতীয়টির সঙ্গে দ্বিমত। পুরস্কার আমার দায়িত্ব বাড়ায়নি। দায়িত্ববান মানুষ কাজ করে বলেই পুরস্কৃত হয়। আমরা সবাই যে যার দায়বদ্ধতার জায়গা থেকে কাজ করি। সেটা পুরস্কারের জন্য নয়।’  জনগণের পক্ষে কথাটি বাংলাদেশ প্রতিদিন যথার্থভাবে বজায় রেখেছে। সাধারণ মানুষ এ পত্রিকাটি পড়ে। জাতীয় সংসদে সর্বাধিক সাংবাদিকের কাজই বিশ্বাস এবং সত্যের সঙ্গে। বাংলাদেশ প্রতিদিন মানুষের সেই বিশ্বাস ধরে রেখেছে।


আপনার মন্তব্য