Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:১০

বাংলাদেশে সংযোজন বিএমডব্লিউ-মার্সিডিজ

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশে সংযোজন বিএমডব্লিউ-মার্সিডিজ

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, বিএমডব্লিউ ও মার্সিডিজ বেঞ্জ গাড়ি বাংলাদেশে সংযোজনের (অ্যাসেম্বল) প্রস্তাব দিয়েছে জার্মানি। দেশটি থাইল্যান্ডে যেভাবে প্রগতিশীল উৎপাদন ব্যবস্থার মাধ্যমে অ্যাসেম্বল করে, সেভাবেই এখানেও করতে চায়। অর্থাৎ তারা বিএমডব্লিউ ও মার্সিডিজ বেঞ্জের কিছু পার্টস এখানেই তৈরি করবে এবং কিছু পার্টস বিদেশ থেকে নিয়ে আসবে। পরে এটা এখানে অ্যাসেম্বলি করবে। বিষয়টি নিয়ে তারা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করবেন এবং সে আলোচনার পরে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। ঢাকায় নিযুক্ত জার্মানির রাষ্ট্রদূত পিটার ফারেনহোল্টজের নেতৃত্বে সফররত জার্মানির একটি ব্যবসায়ী প্রতিনিধি দল গতকাল অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে তার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের কার্যালয়ে বৈঠককালে এ আগ্রহের কথা জানিয়েছেন। পরে অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

অর্থমন্ত্রী বলেন, এটি খুবই উত্তম প্রস্তাব। কেননা তাহলে আমাদের আর ব্যয়বহুল গাড়ি আমদানি করতে হবে না। আরেকটি অত্যন্ত ভালো প্রস্তাব হচ্ছে, তারা প্রতিশ্রুতি দিয়েছে যে আমাদের জিএসপি সুবিধা যেন বাতিল হয়ে না যায় এ বিষয়ে তারা সর্বোতভাবে আমাদের সহায়তা করবেন। ব্যবসা-বাণিজ্যের সম্ভাবনা খতিয়ে  দেখতে জার্মানির উচ্চপর্যায়ের ব্যবসায়ী প্রতিনিধি দল পাঁচ দিনের সফরে বর্তমানে ঢাকায় অবস্থান করছে। অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, জার্মানের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক অত্যন্ত সুপ্রাচীন। অনেক আগে থেকেই তারা আমাদের দেশে বিনিয়োগ করে আসছে। এই মুহূর্তে তারা আমাদের প্রস্তাব দিচ্ছেন যে, তারা বড় আকারে আমাদের পাটশিল্পকে ব্যবহার করতে চান। আমাদের এক সময়ের প্রধান রপ্তানি আয়ের সোনালি আঁশ পাটশিল্প ব্যবস্থাপনা করা আমাদের জন্য অত্যন্ত কঠিন হয়ে পড়েছে, তাই এটিও একটি উত্তম প্রস্তাব। আর মার্সিডিজের ভিতরে পাটের অনেক ব্যবহার রয়েছে। জার্মানির যত গাড়ি আছে, প্রায় সব গাড়ির ভিতরে পাটের অনেক ব্যবহার হয়ে থাকে। অ্যাসোসিয়েশন অব জার্মান চেম্বারস অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিকে সঙ্গে নিয়ে জার্মান এশিয়া-প্যাসিফিক বিজনেস অ্যাসোসিয়েশন জার্মান ব্যবসায়ী প্রতিনিধি দলের এ সফরের আয়োজন করেছে। এই দলে বস্ত্র, আসবাবপত্র, জাহাজ, পরিবেশ-প্রযুক্তি, ব্যাংকিং ও পর্যটন খাতের সঙ্গে জড়িত ব্যবসায়ী প্রতিনিধিরা রয়েছেন।


আপনার মন্তব্য