শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ৩১ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩০ জানুয়ারি, ২০২১ ২৩:৩২

কুয়েতে পাপুলের সাজা দেশের জন্য লজ্জার

--------- পররাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রতিদিন ডেস্ক

মানব পাচারের দায়ে কুয়েতে লক্ষ্মীপুরের সংসদ সদস্য শহিদ ইসলাম পাপুলের কারাদন্ড হওয়াকে বাংলাদেশের জন্য ‘দুঃখজনক ও লজ্জাজনক’ আখ্যায়িত করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন। সূত্র : বিডি নিউজ।

পাপুলের সাজার দুই দিন পর গতকাল ওই রায় নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘আপনারা জানেন উনি আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য ছিলেন না, উনি স্বতন্ত্র ছিলেন। এটা খুবই দুঃখজনক, অবশ্যই এটা দুঃখজনক, লজ্জাজনক।’

গতকাল সন্ধ্যায় রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন মেঘনায় প্রথম বঙ্গবন্ধু ডিপ্লোমেটিক টেনিস টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে এ বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন। তিনি সাজার বিষয়ে বলেন, ‘বিষয়টা কুয়েত আমাদের সরকারিভাবে জানাক,

এরপর আমরা সংসদকে জানাব। তখন বিধি মোতাবেক উনার সম্পর্কে কী করা হবে, দেখব।’ কুয়েত সরকারের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক বক্তব্য জানার জন্য রাষ্ট্রদূতকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি। আবদুল মোমেন আরও বলেন, ‘স্বদেশের নাগরিক বিদেশে অপরাধের সঙ্গে যুক্ত হলে আমাদের লজ্জা লাগে। আমাদের জন্য দুঃখজনক। আমাদের লোক যখন বিদেশে খুব সম্মান পায়, আমরা সবাই খুব খুশি হই। নিউইয়র্কে যখন ট্যাক্সি ড্রাইভার সম্মানিত হন, কেউ তার গাড়িতে ফেলে গেছে টাকা-পয়সা, তিন ফেরত দিয়েছেন। তখন মেয়র সাহেব আমাদের বাংলাদেশের নাগরিককে সম্মান দেন, আমাদের কলিজাটা একেবারে গর্বে ভরে ওঠে। আমাদের দেশের কেউ যদি বিদেশে ক্রাইম করে, তাহলে আমাদের প্রত্যেকের জন্য এটা একটা লজ্জার বিষয়।’ তবে পাপুলের সাজার ফলে কুয়েতের সঙ্গে সম্পর্কে ‘ভাটা’ পড়বে না বলে মনে করেন মোমেন। তিনি বলেন, ‘কারণ কুয়েতের সঙ্গে আমাদের বিভিন্নভাবে সম্পর্ক এবং খুব সলিড ও পুরনো সম্পর্ক। বঙ্গবন্ধুর সময় থেকে আমাদের একটি ভালো সম্পর্ক। এই একটি ঘটনায় আমাদের সম্পর্কে কোনো ঘাটতি হবে না।’ উল্লেখ্য, লক্ষ্মীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য পাপুলকে গত বছর ৬ জুন রাতে কুয়েতের মুশরিফ এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। মারাফি কুয়েতিয়া কোম্পানির অন্যতম মালিক পাপুলের সেখানে বসবাসের অনুমতি রয়েছে। পাচারের শিকার পাঁচ বাংলাদেশির অভিযোগের ভিত্তিতে পাপুলের বিরুদ্ধে মানবপাচার, অর্থপাচার ও ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের শোষণের অভিযোগ আনে কুয়েতি প্রসিকিউশন। কুয়েতের পাবলিক প্রসিকিউশনের তদন্তে পাপুলসহ নয়জনের বিরুদ্ধে অর্থপাচার, মানবপাচার, ঘুষ বিনিময় ও রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা ভঙ্গের অভিযোগ আনা হয়।


আপনার মন্তব্য