সোমবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা

নীতিমালার কথা বলে ডোনাররা মাঝপথে ভাসিয়ে দিয়ে যান

---------- পরিকল্পনামন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

নীতিমালার কথা বলে ডোনাররা মাঝপথে ভাসিয়ে দিয়ে যান

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, নীতিমালার কথা বলে ডোনাররা প্রকল্পের মাঝপথে চলে যান। শুরুতে নানা নীতিমালার কথা বলে ডোনার সাহেবরা মাঝপথে ভাসিয়ে দিয়ে চলে যান। তিনি বলেন, বর্তমানে আমাদের অবস্থা আগের চেয়ে অনেক ভালো হয়েছে। মাঝপথে ভাসিয়ে দিয়ে যদি ডোনার আমাদের থেকে বিদায় নেন, তাহলেও আমরা পারব। আমাদের নিজস্ব সম্পদ দিয়ে চলতে পারব।

গতকাল রাজধানীর মিরপুরে আন্ডার প্রিভিলেজড চিলড্রেনস এডুকেশনাল (ইউসেপ) বাংলাদেশে ‘মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও ইউসেপের  গৌরবময় অভিযাত্রা’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিকল্পনামন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি  বলেন, বর্তমানে সক্ষমতা আছে, আমরা আর সহায়তা চাই না। তবে কেউ যদি সম্মানের সঙ্গে আমাদের পাবলিককে সালাম দিয়ে কাজ করতে চান, তাহলে করুক। ডোনাররা মাঝপথে নীতি পরিবর্তন করে ফেলেন, এটা আর করতে দেওয়া যাবে না। নদীতে ভাসিয়ে দিয়ে চলে যাবে, সেই দিন আর আমাদের নেই। এগুলো আমাদের এড়িয়ে যেতে হবে।

তিনি আরও বলেন, ডোনাররা তাদের নীতিমালা পরিবর্তন করতেই পারেন। তবে শেখ হাসিনা কখনো বলেন না যে উনার নীতিমালা পরিবর্তন করেছেন। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী মানবিক। দেশের দায়িত্বগুলো শেষ বিচারে আমাদেরই বইতে হবে। এটাই আমাদের মূল কথা। তিনি বলেন, আমাদের নিজস্ব সম্পদ আগের তুলনায় অনেক বেড়েছে। আমাদের লাখ লাখ মানুষ কাজ করছেন। কাজ করছেন বলেই সম্পদ বেড়েছে। বক্তৃতা দিয়ে কোনো সম্পদ সৃষ্টি হয় না। সম্পদ সৃষ্টি করতে হলে কাজ করতে হবে, লোহার ওপরে পেটাতে হবে, অথবা নৌকা বাইতে হবে, অথবা লাঙল বাইতে হবে। তিনি বলেন, লাখ লাখ মানুষ কাজ করছে বলেই সম্পদ সৃষ্টি হচ্ছে। এ সম্পদ আমাদের কাজে লাগাতে হবে। টেকনিক্যাল শিক্ষা কাজে লাগাতে হবে। আমাদের প্রধানমন্ত্রী সুবিধাবঞ্চিত ও অবহেলিত মানুষের জন্য কাজ করছেন। পরিকল্পনামন্ত্রী আরও বলেন, বাংলাদেশে শিক্ষার ঘাটতি আছে। এই শিক্ষা দিয়ে বাকি পথ পাড়ি দেওয়া যাবে না। দেশে সাক্ষরতার হারও সম্মানজনক না। যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আমাদের প্রযুক্তিগত শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে। আমরা কৃষিপণ্য বিদেশে পাঠানোর জন্য কাজ করছি। মাছ, মাংস, ডিম ও দুধ বিদেশে পাঠাব। কারণ, আমাদের দক্ষ জনশক্তি আছে।

সর্বশেষ খবর